সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ ০৩:৩৮:৪৯ এএম

এবার মোবাইল চুরির অভিযোগে কিশোরকে অমানবিক নির্যাতনের ভিডিও প্রকাশ

মাদারীপুর সংবাদদাতা | জেলার খবর | মাদারীপুর | বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০১৬ | ১১:৫২:০২ এএম

 মাদারীপুর জেলার শিবচরে মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে মেহেদী হাসান (১৪) নামের এক কিশোরকে নির্মমভাবে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিএম দেলোয়ার হোসেনের ছোট ভাই কামরুল হোসেনের বিরুদ্ধে। এঘটনায় অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। তবে অমানবিক নির্যাতন করার ভিডিওটি এখন প্রকাশ পাওয়ায় ঘটনাটি নতুন করে চাঞ্চল্যকর হয়ে উঠেছে।
স্থানীয়, পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শিবচরের কাদিরপুর ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার বি.কে নগর পশ্চিম কাজী কান্দি গ্রামের মনোয়ার খাঁনের ছেলে মেহেদী হাসান একজন ডিস লাইনের কর্মী। সে বিভিন্ন গ্রামে ডিস লাইনের সংযোগ দিতো এবং মেরামতের কাজ করতো সে।
ডিসকর্মী মেহেদী হাসান ঈদের আগে উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান বি এম দেলোয়ার হোসেনের ছোট ভাই কামরুল হোসেন বেপারীর ঘরে ডিস লাইনের কাজ করে। এরপর ঐদিন কামরুল হোসেন বেপারীর ২টি মোবাইল সেট হারিয়ে যায়। তাই তারা ডিসকর্মী মেহেদী হাসানকে সন্দেহ করে। এরই জের ধরে গত (২৪-০৯-১৬) শনিবার দুপুর ১২টার দিকে কামরুল হোসেন বেপারী ডিস লাইনের কাজ করার কথা বলে মেহেদী হাসানকে বাড়িতে ডেকে আনে। মেহেদী হাসান এলে তাকে মোবাইল চুরির অভিযোগে মারধর করে। একপর্যায় একটি বদ্ধ ঘরে হাত-পায়ে ও গলায় লোহার শিকল বেঁধে আটকে রাখে।
পালাক্রমে উঠোনের একটি কামরাঙ্গা কাছের সাথে বেধে ২দিন ধরে শারীরিক নির্যাতন চালাতে থাকে। এই অমানবিক ঘটনা ঘটলেও প্রভাবশালী কামরুল বেপারীর ভয়ে নির্যাতিত মেহেদী হাসানের বাবা-মা পুলিশকে জানাতে সাহস পায়নি। পরে রবিবার স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে শিবচর থানা পুলিশ কিশোরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ সময় ঘটনাস্থল থেকে নির্যাতনকারীদের কাউকে আটক না করলেও নির্যাতিতা কিশোরকে মোবাইল চুরির অপরাধে গ্রেফতার দেখানোর পায়তারা করেছিল কিন্তু ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়াগুলো জানতে পারায় আর সেটা করতে পারেনি।
তবে সেই রাতেই অভিযুক্তকে আটক করে পুলিশ। পরে গত রবিবার (২-১০-১৬) বিশেষ আদালতে অভিযুক্তর জামিন নামঞ্জুর করে ১দিনে রিমান্ড মঞ্জুর করে।
এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটলেও নির্যাতিত মেহেদীর পরিবার পুলিশকে জানাতে সাহস পায়নি, নির্যাতনকারী প্রভাবশালী, তাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে দিতে পারে এ আশঙ্কায়। তবে মেহেদীকে নির্মমভাবে অমানবিক নির্যাতনের ভিডিওটি এখন নতুন করে চাঞ্চল্যকর হয়ে উঠেছে। অভিযুক্তরা প্রভাবশালী তাই মামলা তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এদিকে এই ঘটনায় হতাশ পুরো মাদারীপুরবাসী। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার ও তাদের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি এলাকাবাসীর, সুশিল সমাজ, ও মানাবাধিকার কর্মীদের।
মাদারীপুর সুশিল সমাজ কর্মী রাজন মাহামুদ শিশু নিযার্তনের মত অমানবিক ঘটনা যাতে পুনরায়বৃত্তি না হয় সে দিকে সকলের প্রতি আহব্বান জানান।
এইচ আর সিবি এম, মানবাধিকার সংগঠনের সভাপতি সুবল বিশ্বাস বলেন, সামান্য একটি মোইবাল চুরির ঘটনা নিয়ে একটি শিশুর উপর যেভাবে মধ্যযুগের কায়দার নির্যাতন করেছে, তা কোন সুস্থমস্তিস্কের মানুষ সহ্য করতে পারে না। ওই নির্যাতনকারী ও পাষন্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হয় তাহলে শিশু নির্যাতন বেড়েই যাবে।
মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মো. কামাল উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, একটি শিশুকে এমনিতেই মারা যায় না। আর সামান্য একটি মোবাইল চুরির কারনে মারধর করছে। আসলে এটা কোন ভাবেই ঠিক করেনি। শিশুটি যাতে উপযুক্ত বিচার পায় এই বিষয়টি আমরা নিশ্চিত করবো।
দেখুন নির্মমভাবে নির্যাতনের সেই ভিডিও

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন