বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯ ০৯:৪৬:০৭ পিএম

লামায় গণপিটুনিতে ২ জন ডাকাত নিহত, ৪ অপহৃত উদ্ধার

এস.কে খগেশপ্রতি চন্দ্র খোকন | জেলার খবর | বান্দরবন | লামা | বুধবার, ২ নভেম্বর ২০১৬ | ১২:০৩:৩৮ পিএম

বান্দরবানের লামায় মঙ্গলবার রাত ৯টায় ৪জনকে অপহরণ করেছে একটি  সংঘবদ্ধ ডাকাত দল। মুহুর্তে ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় প্রায় অর্ধ  সহশ্রাধিক লোকজন চারদিক থেকে ঘেরাও করে অপহৃত ৪জনকে উদ্ধার করে  এবং ডাকাত দলের ২জনকে আটক করে। পরে আটকককৃত ডাকাত দলের সদস্য  ২জনকে গণপিটুনি দিলে মারা যায়। 

ডাকাতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড  হারগাজা ফকিরাখোলা এলাকায়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান জেলা  হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে পুলিশ।  

এলাকার ২নং ওয়ার্ড মেম্বার কুতুব উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার দিবাগত  রাত ৯টায় হারগাজা এলাকার কয়েকজন লোক ডুলাহাজারা বাজার থেকে  বাড়ি ফেরার সময় হারগাজা ফকিরাখোলা এলাকা পৌঁছালে ওতপেতে থাকা  ডাকাত দল ৪জনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহৃতরা হল, মনু আলম (৬০) পিতা- মৃত- মমতাজ, কালা পুতু (৪০) পিতা- জামাল উদ্দিন, জহির আলম (৪২) পিতা-  মো. হোসেন গ্রাম- হারগাজা ও জাবের আহামদ (৫৫) পিতা- মৃত নুর  আহমদ গ্রাম- রোহিঙ্গা ঝিরি, ফাঁসিয়াখালী, লামা, বান্দরবান। রাতে লামা  থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইকবাল হোসেন সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে  ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে।  

ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাকের হোসেন  মজুমদারের যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, উইনিয়নের হারগাজা  এলাকাটি অপহরণ ও ডাকাতের জন্য অভয়রাণ্য হিসেবে পরিণত হয়েছে।  সাধারণ মানুষের জান মালের কোন নিরাপত্তা নেই। ডাকাত গুলো এই এলাকার  মানুষ নয়। তারা অপরিচিত।  অপহৃত ৪জন উদ্ধার ও ২ ডাকাতের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে লামা থানা  অফিসার ইনচার্জ মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ডাকাতদের নাম পরিচয়  পাওয়া যায়নি। 

তাদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান জেলা হাসপাতালে প্রেরণ  করা হয়েছে। নিহত ডাকাতদের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।  

উল্লেখ্য, গত ২৮ জুলাই বৃহস্পতিবার ফাঁসিয়াখালী ইউপি সাবেক  মেম্বার ও আওয়ামীলীগ নেতা নুরুল আবছারকে অপহরন করে এই গ্রুপটি  এবং অপহরণের ২০ঘন্টা পর ৩লক্ষ টাকা মুক্তিপণ নিয়ে ছেড়ে দেয় অপহরনকারীরা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন