বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ ০৫:০০:১২ এএম

ভৈরবের মানিকদীতে ইভটিজিং এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ

কাজী রুমেল | জেলার খবর | কিশোরগঞ্জ | ভৈরব | সোমবার, ২২ আগস্ট ২০১৬ | ০৫:২৩:৩১ পিএম

ভৈরব উপজেলার মানিকদী আলফাজ উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ইভটিজিং ঘটনায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।শনিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এ বিক্ষোভ কর্মসূচী চলে।
এঘটনার পর থেকে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা অবস্থা বিরাজ করছে। স্থানীয়সূত্রে জানা যায়,ভৈরব উপজেলার মানিকদী আলফাজ উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন তাতালচর গ্রামের করিম মিয়ার বখাটে ছেলে বায়েজিদ সহ  ৫/৬ জন ছাত্রীদের প্রায়ই উত্যক্ত করতো ।কিন্তু ছাত্রীরা সম্মানের ভয়ে সহ্য করে আসছিল।কিন্তু গতকাল স্কুলে ক্লাস বিরতির সময় বখাটে বায়জিদ তার হাতে থাকা মোটোফোন থেকে অশ্লীল ছবি ক্লাস রুমে ঢোকে ছাত্রীদের সামনে উপস্থাপন করলে ছাত্রীরা ক্লাস রুম থেকে বের হয়ে আসে৷  
তাৎক্ষনিক স্কুলের শিক্ষিকা ছুটে এসে বিস্তারিত জেনে প্রতিবাদ করলে বখাটে বায়জিদ তেড়ে এসে শিক্ষিকাকে লাঞ্ছিত করে এবং প্রকাশে শালীনতাহানির হুমকি দেয়৷ 
ঘটনাটি এলাকায় ছড়িয়ে পরলে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ওই বখাটে বায়েজিদের গ্রেপ্তার ওবিচার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করে এবং ক্লাস বর্জনসহ পরীক্ষা বর্জনের ঘোষনা দেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কিছু এলাকাবাসী বলেন, করিমমিয়ার ছেলের  ছোটবেলা থেকেই স্বভাব চরিত্র খারাপ। এ কারনে লেখাপড়াও করতে পারেনি। 
প্রায়ই ছাত্রীদেরকে উত্যক্ত করে। এই ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিইচ্ছুক আরেক ব্যক্তি বলেন বায়জিদ তাতালচরের করিমের ছেলে সে নিয়মিতই স্কুলের মেয়েদের উত্যক্ত করে ৷ 
১ বছর আগে মানিকদীর একটা মেয়েকে বিদ্যালয়ে সবার সামনে জোর করে শালীনতা হানির চেষ্টা করেছিল৷  সর্বশেষ গত পরশু বিদ্যালয়ে মেয়েদের উত্যক্ত করার সময় শিক্ষিকা  প্রতিবাদ করলে বায়োজিত শিক্ষিকাকে গালাগাল করে ও মারতে আসে ৷ স্থানীয় লোকজন জানান- শুধু বায়োজিত না আরও অনেক বখাটে ছেলে আছে,যারা স্কুল সংলগ্ন পাড়াতলা ব্রিজে বসে থেকে ছাত্রীদের উত্যক্ত করে৷ 
বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমাদের ছাত্রীদের সাথে যে ঘটনা ঘটানো হয়েছে তার সঠিক বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। অতি দ্রুত বিচার করার জন্য কর্তৃপক্ষক ও প্রশাসনকে অনুরোধ করছি।’
উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বলেন এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনকে জানিয়েছি। ছাত্ররা ক্লাসবর্জনের যে ঘোষনা দিয়েছে আমরা তাদেরকে ক্লাসে ফিরিয়ে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি। তারা বলেন বায়জিদ পথভ্রষ্ট,সে আমাদেরই ছাত্র, তাকে সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে হবে৷ আর সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে হলে পরিবার থেকেও সহযোগিতা করতে হবে৷ 
এ ঘটনা ঘিরে এলাকা ও সামাজিক মাধ্যমে চলছে প্রতিবাদের ঝড়,দেশে বিদেশে এই স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থীরা এর নিন্দা জানিয়ে উত্তাল৷ অনেকে ঘটনার পর বায়জিদের ফেইসবুক প্রোফাইল ঘেটে তার বিভিন্ন সময়ের পোস্ট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন,তারা বলেন বখাটে বায়জিদের  ফেইসবুক পোস্টের বেশীর ভাগই অশ্লীল ও যৌন উত্তেজক ৷ 
তার দ্বারা এই ধরনের কাজ সম্ভব ৷ তাই এখনই ব্যবস্থা গ্রহণ করলে ছেলেটি যেমন সুন্দর জীবনে ফিরবে ঠিক তেমনি তার পরিবারটিও মানুষের ঘৃনা থেকে মুক্তি পাবে কারণ কোন পরিবারই চায় না তাদের সন্তানের এ পরিনিতি ৷

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন