সোমবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ১১:৫০:০২ পিএম

যেভাবে না.গঞ্জের ৭জনকে হত্যা করা হয়

জেলার খবর | নারায়ণগঞ্জ | সোমবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৭ | ১১:৫২:৫০ এএম

আজ নারায়ণগঞ্জে বহুল আলোচিত সাত খুন মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। মামলায় নূর হোসেন, র‌্যাবের প্রাক্তন তিন কর্মকর্তা লে. কর্নেল তারেক সাঈদ, লে. কমান্ডার এম এম রানা ও মেজর আরিফসহ ২৬ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। ৩৫ আসামির মধ্যে বাকি নয় আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাঁজা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার ১০টা ০৫ মিনিটে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেন এ আদেশ দেন। গত বছরের ৩০ নভেম্বর মামলার যুক্তিতর্ক শেষে রায় ঘোষণার জন্য ১৬ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন আদালত।

সাত খুন মামলার অভিযোগপত্রে (চার্জশিট) উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর অনেক তথ্য। ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল সাতজনকে অপহরণ ও লাশ উদ্ধারের প্রায় একবছর পর ২০১৫ সালের ৮ এপ্রিল দেওয়া হয় চার্জশিট। এতে উঠে এসেছে সাতজনকে হত্যার আগে নেওয়া দীর্ঘ এক প্রস্তুতির বিবরণ।

অভিযোগপত্রে (চার্জশিট) মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওই সময়ের জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মামুনুর রশিদ মন্ডল উল্লেখ করেছেন, কাউন্সিলর নূর হোসেন অবৈধভাবে বিভিন্ন ব্যবসা করে প্রতিদিন প্রায় ৩০/৩৫ লাখ টাকা আয় করতো। তার এসব অবৈধ ব্যবসা থেকে সুবিধাভোগীরা অবাধে যাওয়া-আসা করতো তার কাছে।

সাত খুনের ঘটনার ৫/৭ মাস আগে থেকেই র‍্যাব-১১ এর উপ-অধিনায়ক মেজর (অব.) আরিফের সঙ্গে নূর হোসেনের সাক্ষাত হয়। আরিফকে প্রতি মাসে ১০ লাখ টাকা দিত নূর হোসেন, বলে গ্রেপ্তারকৃত আসামি রহম আলী আদালতে দেওয়া জবানবন্দীতে উল্লেখ করেছে।

চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়, নূর হোসেন একপর্যায়ে মেজর (অব.) আরিফ হোসেন ও সিও লে. কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদকে কাউন্সিলর নজরুলকে টাকার বিনিময়ে অপহরণ, হত্যা ও গুমের প্রস্তাব দেয়। এরপর ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল সকালে আদালতে নজরুলের হাজিরা দেওয়ার তথ্যও জানিয়েছেন। যার প্রমাণ মেজর (অব.) আরিফ হোসেনের মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়।

২০১৪ সালের ৬ এপ্রিল থেকে ২৭ এপ্রিল রাত ১০.৫৫ মিনিট পর্যন্ত মামলার প্রধান আসামি কাউন্সিলর নূর হোসেনের মোবাইলে আসামি মেজর (অব.) আরিফ হোসেন ২৭ বার কল করে কথা বলেছেন, একই সময়ে নূর হোসেন কল করে কথা বলেছেন ১২ বার।

এছাড়া, ২৭ এপ্রিল দুপুর ১.৫৬ মিনিট থেকে রাত ২.১১ মিনিট পর্যন্ত মেজর (অব.) আরিফ হোসেন র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদের অফিসের সরকারি টেলিফোন নম্বরে ৪ বার কল করে কথা বলেন এবং তারেক সাঈদ ৭ বার কল করে আরিফের সঙ্গে কথা বলেন। এছাড়া তারেক সাঈদ তার মোবাইল থেকে আরিফ হোসেনের মোবাইলে ২টি এসএমএস পাঠায়।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল দুপুর ১২.২২ মিনিট থেকে রাত ২টা পর্যন্ত লে. কমান্ডার (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) এমএম রানা তার সরকারি মোবাইল থেকে লে. কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদের সরকারি মোবাইল নাম্বারে ৬ বার কল করে কথা বলেন। একই সময়ে তারেক সাঈদও রানার মোবাইলে ৬ বার কল করে কথা বলেন। এছাড়া তারেক সাঈদ তার মোবাইল থেকে রানার মোবাইলে ২টি এসএমএস পাঠায়।

অন্যদিকে, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল রাত ১০.৫০ মিনিটে লে. কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদ তার সরকারি মোবাইল নম্বর থেকে ঢাকার র‌্যাব হেডকোয়ার্টার্সে কোনো প্রতিবেদন পাঠায়নি।

চার্জশিটে আরো উল্লেখ করা হয়, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল রাতে শহরের কালিরবাজারে অবস্থিত র‌্যাব-১১ এর স্পেশাল ক্রাইম প্রিভেনশনাল কোম্পানির ইনচার্জ লে. কমান্ডার (অব্যাহতি প্রাপ্ত) এমএম রানার নির্দেশে র‌্যাব সদস্য ট্রলার চালক এলএস সামাদ, আজম ও রাজ্জাক (আদালতে সাক্ষী প্রদানকারী) নারায়ণগঞ্জ লঞ্চঘাট থেকে কাঁচপুর বি আইডব্লিউটিএ’র ল্যান্ডিং ঘাটে ট্রলার নিয়ে যায়।

রাত ১০টা ৩০ মিনিটে টহল পার্টির সহায়তায় র‌্যাব সদস্য এমদাদ, এনামুল, কবির, বেলাল, তাজুল, নাছিরদের মাধ্যমে প্লাস্টিকের বস্তায় ইট ভর্তি প্যাকেট মাইক্রোবাসে তুলে কাঁচপুর ল্যান্ডিং ঘাটে র‍্যাব সদস্যদের সহায়তায় ট্রলার ওঠায়।

এজাহারনামার ১নং আসামি নূর হোসেনের পাঠানো আসামি শাহজাহান, রহম আলী, আলী মোহাম্মদ, মর্তুজা জামান চার্চিল, বাসার, জামাল, সেলিম, রিয়াজ, মিজানদের দিয়ে কাঁচপুর বি-আইডব্লিউটিএ এর ল্যান্ডিংঘাটের আশেপাশে কোনো লোক যেতে না পারে এজন্য পাহারা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে এবং র‌্যাব সদস্যদের হত্যার পথ সুগম করলে র‌্যাব সদস্যদের ব্যবহৃত ২টি মাইক্রোতে থাকা ভিকটিম নজরুলসহ ৭ জনের মুখে পলিথিন দিয়ে গলায় রশি আটকে শ্বাসরোধে হত্যা করে আসামি মেজর (অব.) আরিফ, এসআই পুর্নেন্দু বালা, হীরা মিয়া, তৈয়ব, আল আমিন, মহিউদ্দিন, আলীম, শিহাব ও অন্যান্য র‌্যাব সদস্যরা ৭টি লাশ ট্রলারে তুলে নেয়।

এরপর তারা ট্রলার নিয়ে রাত আড়াইটার দিকে মেঘনা ও শীতলক্ষ্যা নদীর মোহনায় পৌঁছে প্রতিটি লাশের সঙ্গে ২টি করে ইটের বস্তা বেঁধে মেজর (অব.) আরিফসহ অন্য র‌্যাব সদস্যরা চাকু দিয়ে নিহত ৭ জনের পেট ফুটো করে মেঘনা ও শীতলক্ষ্যা নদীর মোহনায় লাশ ফেলে দেয়। ফিরে আসার সময় এসআই পুর্নেন্দু বালা নিহতদের ব্যবহৃত মোবাইল ও সিমকার্ড ভেঙে নদীতে ফেলে দেয়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন