বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ০৫:০১:৩০ পিএম

যশোরে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন

জেলার খবর | যশোর | মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ | ১১:৩৫:৪৭ পিএম

যশোরে স্ত্রী হত্যা মামলায় শহিদুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার বিশেষ জেলা ও দায়রা জজ নিতাই চন্দ্র সাহা এ রায় দেন। শহিদুল ইসলাম সদর উপজেলার বড় ভেকুটিয়া গ্রামের হঠাৎ পাড়ার আহম্মদ আলীর ছেলে।

কারাদণ্ডের পাশাপাশি আদালত আসামিকে ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দিয়েছে।

বালিয়া ভেকুটিয়া গ্রামের মনিরুল ইসলামের মেয়ে মইফুলি ওরফে মনিরা খাতুনকে বিয়ে করেন শহিদুল ইসলাম। বিয়ের পর থেকে কারণে-অকারণে মনিরার উপর শারীরিক নির্যাতন করতেন তার স্বামী। ২০০২ সালের ১৩ আগস্ট রাত আড়াইটার দিকে শারীরিক নির্য়াতনের পর মনিরাকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন শহিদুল। হত্যার বিষয়টি গোপন করতে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে গলায় ফাঁস দিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে লাশ ঝুলিয়ে রাখেন তিনি। মনিরার মৃত্যুর বিষয় নিয়ে এলাকার লোকজন শহিদুলের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। এতে নিজেকে রক্ষা করতে পর দিন ভোরে শহিদুল ইসলাম থানায় গিয়ে স্ত্রীর আত্মহত্যার বিষয়টি অবহিত করেন। সন্দেহ হলে পুলিশ শহিদুলকে ৫৪ ধারায় আটক করে জেলহাজতে পাঠায়।

এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। প্রায় এক মাস পর ময়নাতদন্ত রিপোর্টে বলা হয়- মনিরাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এরপর একই বছরের ১২ সেপ্টেম্বর কোতোয়ালি থানার এসআই শহিদ আশরাফ বাদী হয়ে শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আমান উল্লাহ একই বছরের ৭ অক্টোবর শহিদুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। এরপর আদালতে মামলার চার্জগঠন হয়। ১৪ জনের মধ্যে ১০ জন এ মামলায় আদালতে সাক্ষ্য দেন।

সাক্ষ্য গ্রহণকালে আসামি শহিদুল ইসলাম পলাতক থাকায় তার পক্ষে স্টেট ডিফেন্স হিসেবে অ্যাডভোকেট মাহমুদা খানম মামলা পরিচালনা করেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন