শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০১৭ ১০:৪৫:৪৩ এএম

ভেড়ামারাতে শ্লীলতাহানির অভিযোগে চাঁদসী ডাক্তার পরিমল আটক

রোকনুজ্জামান | জেলার খবর | কুষ্টিয়া | বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ ২০১৭ | ০২:৪১:৫০ পিএম

শ্লীলতাহানির অভিযোগে পরিমল কুমার বিশ্বাস (৩৩) নামের এক চাঁদসী ডাক্তারকে আটক করেছে ভেড়ামারা থানা পুলিশ। ২৬ ফেব্র“য়ারি সন্ধ্যায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা মধ্যবাজার এলাকার পুরাতন চাঁদসী ক্ষত চিকিৎসালয়ের মালিক ডাঃ পরিমলকে নিজ চেম্বার থেকে আটক করা হয়।

পরদিন তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। সে রাজবাড়ীর কালুখালী থানার আদারকৌটা গ্রামের মৃত শীবনাথ বিশ্বাসের ছেলে এবং ভেড়ামারার মৃত ডাঃ দুলাল কুমার বিশ্বাসের ছোট ভাই।

থানার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২২ ফেব্র“য়ারি বিকেলে গৃহবধূ মৌসুমী (ছদ্দনাম)’র পায়ের আঙ্গুলে ঘা দেখা দিলে, রোগ নিরাময়ের জন্য পুরাতন চাঁদসী ক্ষত চিকিৎসালয়ের ডাক্তার পরিমল কুমার বিশ্বাসের কাছে যান।

পরিমল তার চেম্বারের ভিতরে নিয়ে গিয়ে গৃহবধূর বোরকা খোলার জন্য বলেন, গৃহবধূ তাতে সায় না দিলে সে উঠে এসে গৃহবধূর ঘাড়ে, পিঠে, পেটে ও গোপনাঙ্গে হাত রাখে এবং জোরপূর্বক শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে।

গৃহবধূ তখন চিৎকার দিয়ে জোরপূর্বক সেখান থেকে পালিয়ে আসে এবং সেই দিনই বিষয়টি তার পরিবারের কাছে জানায়।

এ বিষয়ে গৃহবধূ মৌসুমী (ছদ্দনাম)’র স্বামী বাদী হয়ে ভেড়ামারা থানায় নারী শিশু নির্যাতন আইনে একটি অভিযোগ দায়ের করে।

গত ফেব্রুয়ারি এই ঘটনার পরেও পরিমল স্থানীয় নেতাকর্মীদের সহায়তায় ২ দিন তার ডাক্তারের চেম্বার খুললেও গৃহবধূর স্বামীর থানায় লিখিত অভিযোগের পর থেকে সে চেম্বার বন্ধ করে গা ঢাকা দেয়।

ভেড়ামারা মধ্যবাজারের ফল ব্যবসায়ী আবু হানিফ সান্টু বলেন, “ঘটনাটি খুবই লোমহর্ষক।

পরিমল এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছে আমার শালী’র সাথে। গত পাঁচ মাস আগে আমার শালী’র বুকে ব্যাথা হলে সে পরিমলের কাছে যায়।

তখন পরিমল তাকে বুক ঝাঁকানোর কথা বলে আমার শালীর শরীরের বিভিন্ন জায়গায় হাত দিয়ে শ্লীলতাহানি করে এবং বিভিন্ন অশ্লীল কথা বলে। সেই দিনই আমার শালী ঘটনাটি আমার কাছে খুলে বললে, সমাজে আমাদের মানসম্মানের হানি হবে এই ভেবে লজ্জা ও ভয়ে তার বিরুদ্ধে কোন কথা বলেনি। আজ আর আমার কোন কথা বলতে বাধা নাই।

আমরা চাই তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক।” এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নূর হোসেন খন্দকার উক্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ভেড়ামারার কিলিক মোড় এলাকার এক গৃহবধূ’র স্বামী ডাক্তার পরিমলের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে থানায় মামলা করে।

ওই মামলার প্রেক্ষিতে এস.আই রিফাজ তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে পরিমলকে তার নিজ চেম্বার থেকে আটক করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১০ ধারায় তাকে কোর্টে চালান করে দেওয়া হয়।

মামলা নং-০৯। তারিখ ২৭/০২/১৭ ইং। শ্লীলতাহানির ঘটনার পর থেকে লম্পট পরিমলকে বাঁচানোর জন্য স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গ উক্ত ঘটনাটিকে ধামাচাপা দেয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করে।

প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ সমাজ থেকে এধরনের লম্পট ব্যক্তিদের কাছ থেকে মা-বোনদের সম্ভম রক্ষার তাগিদে সকল প্রভাবশালীদের উপেক্ষা করে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় এবং ভুক্তভুগির দাবিকৃত বিচারের নিমিত্তে আসামী পরিমলকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন