শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭ ০৬:৫৯:০৬ এএম

যশোরে ব্ল্যাস্ট নামক ভাইরাস রোগে শত হেক্টর জমির সুগন্ধি বাশমতি ধানের আবাদ নষ্ট

বেনাপোল প্রতিনিধি | জেলার খবর | যশোর | রবিবার, ৫ মার্চ ২০১৭ | ০৬:৫৪:৫০ পিএম

যশোরের বেনাপোলসহ শার্শার মাঠে মাঠে ব্ল্যাস্ট নামক ভাইরাস রোগে আক্রান্ত হয়ে শত শত হেক্টর জমির সুগন্ধি বাশমতি ধানের আবাদ নষ্ট হয়ে গেছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তর এ বিষয়ে কোন খোজই রাখে না।
Displaying Sharsha Photo........3.jpg
রোগাক্রান্ত জমিতে ঔষুধ ব্যবহার করে কোন সুফল পাচ্ছে না কৃষকরা। পথে বসেছে এ এলাকার কৃষকরা।

যশোরের বেনাপোলসহ শার্শা উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ২১ হাজার ৫ শত ৫০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির ধান চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে সুগন্ধি বাশমতি ধানের আবাদ রয়েছে। ব্ল্যাস্ট নামক ভাইরাস রোগে আক্রান্ত হয়ে শত শত হেক্টর জমির সুগন্ধি বাশমতি ধানের আবাদ নষ্ট হয়ে গেছে। উপজেলার বেনাপোল, বাহাদুরপুর, লক্ষনপুর, ডিহি, শার্শা ও উলাশীর বিভিন্ন এলাকায় রোগাক্রান্ত জমির সংখ্যা বেশী। এ রোগে আক্রান্ত জমির ধান গাছের গোড়া ও শিকড় পচে যায়। ধান গাছের পাতায় ফোটা ফোটা কালো দাগ পড়ে এবং পাতা লালচে হয়ে যায়। ধীরে ধীরে গাছ মরে যায়। চাষীদের অভিযোগ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরকে জানানোর পরও তারা কোন খোজ খবর নেয়নি।
Displaying Sharsha Photo........2.jpg

সময় মত খোজ খবর নিলে এ অবস্থার সৃষ্টি হতো না। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার কারণে পথে বসেছে এ এলাকার কৃষকরা। চরম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিরক কুমার সরকার বলেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কিছু কিছু বাশমতি ধানের জমিতে ব্ল্যাস্ট নামক ভাইরাস রোগ দেখা দিয়েছে। এ রোগে আক্রান্ত জমির ধান গাছের গোড়া ও শিকড় পচে যায়। ধান গাছের পাতা লালচে হয়ে যায়। এ রোগে আক্রান্ত কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। পরামর্শ গ্রহন করে কৃষকরা ঔষুধ ব্যবহার করছে, সুফল পাচ্ছে। অফিসে জন বলের শূর্ণতা রয়েছে। জন বলের শূর্ণতার কারণে কৃষকদের সঠিক ভাবে সেবা দিতে পারছি না। শূর্ণতা পূরণ হলে কৃষকদের কোন অভিযোগ থাকবে না।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন