শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭ ০৫:২৮:২৫ এএম

নারী সিটে বসে যা বললেন পুরুষ যাত্রী ( ভিডিও)

নগর জীবন | মঙ্গলবার, ২১ মার্চ ২০১৭ | ১০:৫২:০৩ এএম

বাসের নির্দিষ্ট সিটের ওপরে ‘নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের জন্য সংরক্ষিত লেখা’ থাকলেও অধিকাংশ সময়ই সিটগুলোতে পুরুষ যাত্রীই বসে থাকেন। অন্য যাত্রীরা তো নয়ই, বাসের ড্রাইভার-হেলপারও পুরুষ যাত্রীদের মহিলা সিটে বসতে বাধা দেন না।

আর মহিলা যাত্রীরা তাদের উঠতে বললে মহিলা সিটে বসে থাকা অধিকাংশ যাত্রীই এ নিয়ে আজেবাজে মন্তব্য করেন। আবার বাসে সংরক্ষিত নারী আসন খালি থাকার পরও অনেক হেলপারই মহিলা যাত্রী উঠাতে চান না। হেলপারদের এ নিয়ে প্রশ্ন করলে হেলপাররা মহিলা যাত্রীদের উঠাতে-নামাতে সময় বেশি লাগে, জায়গা বেশি লাগে এমন মন্তব্যও করেন।



নারীদের স্বচ্ছন্দে যাতায়াতের জন্য বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা (বিআরটিসি) ১৯৯০ সালে প্রথম ঢাকা শহরে দুটি রুটে নারীদের জন্য আলাদা বাস সার্ভিস চালু করে। কিন্তু বাণিজ্যিকভাবে অলাভজনক হওয়ায় মাত্র ৮ মাস পরই তা বন্ধ হয়ে যায়। ২০০১ সালের ২৫ অক্টোবর তা পুনরায় চালু করা হয়। বিআরটিসির তথ্যমতে, বর্তমানে রাজধানীতে বিভিন্ন সড়কপথে মোট ১৬টি বাস নারীদের জন্য পরিচালিত হচ্ছে।

নারী যাত্রীদের মতে, বাসের এ সংখ্যা বর্তমান চাহিদার তুলনায় খুবই কম। আর যেসব বাস চালু রয়েছে তা নির্দিষ্ট রুটও মানে না, নির্দিষ্ট সময়ও মানে না। দীর্ঘসময় এ বাসগুলোর জন্য অপেক্ষা করতে হয়, কিন্তু বাসের দেখা মেলে না। এতে নারী যাত্রীদের আরও ভোগান্তির শিকার হতে হয়। কখনো কখনো আবার বিআরটিসির মহিলা বাসগুলোয় পুরুষ যাত্রী বহন করতেও দেখা যায়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন