মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই ২০১৭ ০২:৫০:২৯ এএম

পদ্মাসেতু প্রকল্পের আত্মসাতে অভিযোগ: ১২ জনের জামিন নামঞ্জুর

জেলার খবর | মাদারীপুর | সোমবার, ৩ এপ্রিল ২০১৭ | ০১:১৯:৩৭ পিএম

পদ্মাসেতু প্রকল্পের ১২ লাখ ৮০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় রবিবার ৭ নারীসহ ১২ জনের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে মাদারীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, শিবচরের কাঠালবাড়ী হাজ্বী লেদু চৌকিদারকান্দি গ্রামের হাজী আবদুল মান্নান চৌকিদার তার জমি জাল দলিল দেখিয়ে মাদারীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের এলএ শাখায় বিল জমা দিয়ে স্থানীয় ইলিয়াস চৌকিদারসহ ১৪ ব্যক্তি ১২ লাখ ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করে।

এ ঘটনায় হাজী আবদুল মান্নান চৌকিদার বাদী হয়ে ২০১৫ইং সালের ২৫ আগস্ট দন্ডবিধি ৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৩৪ ধারায় মামলা (মামলা নং এসটিসি ১/১৭) দায়ের করেন। আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে প্রেরণ করেন। দুদক তদন্ত শেষে এলএ শাখার ১জন কর্মকর্তা ও ২ জন কর্মচারীসহ ১৭ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে একটি চাজর্শীট দাখিল করে। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক চাজর্শীট আমলে নিয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানার আদেশ দেন।

রবিবার মামলায় আরজী নামীয় আসামী সুলতান চৌকিদার, বাদশা চৌকিদার, জরিনা বেগম, কলমজান বেগম, ফাতেমা বেগম, কহিনুর মিয়া, শাহিন মিয়া, শাহআলম, ফিরোজা বেগম, শিউলী বেগম, রিনা আক্তার, মমতাজ বেগম আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে বিচারক শরীফ উদ্দিন আহমেদ শুনানী শেষে আসামীদের জামিন নামঞ্জুর করে তাদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন বলেন, ‘এ দুর্নীতির ঘটনার সাথে এলএ শাখার ১ জন কর্মকর্তা ও ২ জন কর্মচারী জড়িত আছে এই মর্মে তদন্তে পাওয়া গেছে। বিধায় তাদের বিরুদ্ধে চার্জশীট দেয়া হয়েছে। চার্জশীটের পর ওই কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারী পরায়ানা জারী করলেও তারা আদালত হতে জামিন না নিয়ে অফিস করছেন। কিভাবে সেটাই এখন প্রশ্ন।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন