শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭ ০৮:৫৭:৪৭ পিএম

ময়মনসিংহে নারী পুলিশের ‘আত্মহত্যা’, এসআই ক্লোজ

জেলার খবর | ময়মনসিংহ | সোমবার, ৩ এপ্রিল ২০১৭ | ০৪:০৮:৩২ পিএম

জেলার গৌরীপুর থানা কমপাউন্ডের ব্যারাকে এক নারী কনস্টেবল গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহনন করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একই থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মিজানুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে ঘটনার তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএম নিয়াজীকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জানা যায়, প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে রোববার বেলা আড়াইটার দিকে এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর হালিমা খাতুন নামের আগুনে দগ্ধ ওই কনস্টেবলকে দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।সেখানে পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত ডিআইজি ড. আক্কাস উদ্দিন ভূইয়া, পুলিশ সুপার নুরুল ইসলাম তাকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান। এ সময় অগ্নিদগ্ধ হালিমা গৌরীপুর থানার এসআই মিজানের সঙ্গে তার প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার বিষয়টি পুলিশ সুপার এবং ডিআইজিকে জানান।

পরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অবস্থার অবনতি হলে ডাক্তাররা তাকে ঢাকা পাঠান। ঢাকা নেওয়ার পথে রাত ৮টার দিকে ভালুকা হাসপাতালে সে মারা যায়। হালিমার বাড়ি নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার শ্যামগঞ্জে।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেলোয়ার হোসেন মোবাইলে জানান, এসআই মিজান ব্যক্তি জীবনে বিবাহিত এবং তার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রাণী সরকারও হালিমা এবং মিজানের বিষয়টি প্রেম গঠিত বলে মোবাইলে স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম মোবাইলে জানান, এই ঘটনায় জড়িতসন্দেহে গৌরীপুর থানার এসআই মিজানকে ক্লোজ করে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। পুলিশ পুরো বিষয়টি গভীরভাবে খতিয়ে দেখছে। এ ব্যাপারে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। দোষ প্রমাণিত হলে শাস্তি তাকে পেতেই হবে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন