বৃহস্পতিবার, ২৯ জুন ২০১৭ ০৮:০৮:৩৯ পিএম

দুই দিনের ভারী বর্ষনে কোটালীপাড়ায় তরমুজ ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি

জেলার খবর | গোপালগঞ্জ | রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৭ | ০৫:২৮:৪৪ পিএম

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় দুই দিনের ভারী বর্ষনে তরমুজ ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। প্রতি বছরই উপজেলার কলাবাড়ী ইউনিয়নের কৃষকেরা কোটি কোটি টাকার তরমুজ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্রি করে থাকেন। কিন্তু বৃষ্টিতে ক্ষেতে পানি জমে গিয়ে ক্ষেতের তরমুজ নষ্ট হয়ে গেছে।

কৃষকদের দাবী, দুই দিনের বৃষ্টিতে কোটি কোটি টাকার তরমুজ নষ্ট হয়ে গেছে। তবে কৃষি বিভাগ মনে করছেন বৃষ্টিতে এ এলাকার তরমুজের ২ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

কলাবাড়ী ইউনিয়নের কালিগঞ্জ, বুরুয়া, হিজলবাড়ি, নলুয়া, চকপুকুরিয়াসহ প্রায় ২৫টি গ্রামে এবছর তরমুজের ব্যাপক চাষ হয়েছে। ইতোমধ্যে কিছু কিছু তরমুজ ক্ষেত থেকে উত্তোলন করতে শুরু করছিল কৃষকরা।

কৃষি অফিসের তথ্য মতে, এ বছর কোটালীপাড়ায় সাড়ে ৮শ’ হেক্টর জমিতে তরমুজের চাষ করেছিলেন কৃষকেরা। লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছিল ১৬ হাজার মেট্রিক টন তরমুজ।

এই তরমুজ বিক্রির জন্য কলাবাড়ী ইউনিয়নের কালিগঞ্জ বাজারে গড়ে উঠেছে তরমুজ বিক্রির বিশাল আড়ৎ। প্রতিদিন শতাধিক ট্রাক তরমুজ ভর্তি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যায় বিক্রির উদ্দেশে। এ বছর বৃষ্টির কারণে অগ্রিম ক্ষেত থেকে তরমুজ তুলে আড়ৎতে বিক্রির জন্য এনেছে এলাকার কৃষকরা। আর এ কারণে কৃষকরা ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

কলাবাড়ী ইউনিয়নের হিজলবাড়ী গ্রামের তরমুজ চাষী স্বপন বর্ণিক বলেন, বৃষ্টির পানিতে তরমুজের জমি তলিয়ে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছি। তিনি বলেন, ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে অনেকেই তরমুজ চাষ করেছিলেন। লাভের টাকায় দেনা পরিশোধের কথা থাকলেও কৃষকদের আশায় যেন গুড়ে বালি পড়েছে।

কলাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাইকেল ওঝা বলেন, গত দুইদিনের বৃষ্টিতে আমার ইউনিয়নের তরমুজ চাষিদের ক্ষেতের তরমুজ নষ্ট হয়ে গেছে। ক্ষতি হয়েছে কয়েক কোটি টাকার। আমি এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে কৃষকদের ব্যাংক ও এনজিও এর ঋণ মওকুফের দাবী জানাচ্ছি।

উপজেলা কৃষি অফিসার রথীন্দ্রনাথ বিশ্বাস বলেন, কলাবাড়ী ইউনিয়নের একটা বিশাল এলাকা জুড়ে তরমুজ চাষ হয়ে থাকে। গত দুই দিনের বৃষ্টিতে ২শ’ হেক্টর জমির তরমুজ ক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে। এতে প্রায় ২ কোটি টাকার তরমুজের ক্ষতি হয়েছে। তিনি এ অঞ্চলে তরমুজের ক্ষেতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নত করা দরকার বলে মত প্রকাশ করেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন