রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ ১২:৪০:৩৩ এএম

বই-খাতা ফেলে ভ্যান নিয়ে পথে পথে স্কুলছাত্রী শিমু

জেলার খবর | দিনাজপুর | বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৭ | ০৫:৫৩:৫৪ পিএম

স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী আফরুজা আকতার শিমু। সংসারের হাল ও অসুস্থ বাবার ওষুধ কেনার অর্থ যোগাতে এখন সে নিজ এলাকায় ভ্যান চালাচ্ছে। ছোট এই কিশোরী সারাদিন ভ্যান চালিয়ে যা আয় করে তা দিয়ে চলছে তাদের সংসার।

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়তো শিমু। প্রায় এক মাস সে আর স্কুলে যাচ্ছে না। সে উপজেলার আব্দুল ইউনিয়নের বেলতলী গ্রামের সিরাজুল ইসলামের মেয়ে।

শিমু জানায়, তার বাবা সিরাজুল ইসলাম এক বছর ধরে প্যারালাইসিস রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ডান হাত ও পা নাড়াতে পারছেন না। ভ্যানচালক বাবার চিকিৎসার টাকা সংগ্রহ ও সংসারের খরচ যোগাতে সংসারের হাল ধরতে হয়েছে তাঁকে ও তাঁর মাকে। সপ্তাহে পালাক্রমে মা ও সে (শিমু) বাবাকে ভ্যানে বসিয়ে রাস্তায় রাস্তায় টাকা চাচ্ছে।

তাদের পরিবারে ২ বোন এক ভাই বাবা মাসহ মোট ৫ জন সদস্য। এরমধ্যে বড়ভাই বিয়ে করে আলাদা হয়েছে। বড় বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। এখন পবিারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বাবাও এক বছর ধরে অসুস্থ্য।

শিমুর বাবা সিরাজুল কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, সংসারে আয় করার মতো কেউ নেই তাই সংসারের খরচ ও চিকিৎসার টাকা যোগাড় করতে বাধ্য হয়ে স্কুলের ক্লাশ নষ্ট করে শিশু কন্যা আফরুজা ও তার মাকে দিয়ে ভ্যানে বসে ভিক্ষা করছি।

আব্দুলপুর ইউপি চেয়ারম্যান ময়েন উদ্দীন শাহ জানান, আগামী অর্থ বছরে প্রতিবন্ধী ভাতার তালিকায় সিরাজুলকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

বেলতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খালেদা রোকেয়া জানান, আফরুজা ছাত্রী হিসেবে মেধাবী কিন্তু বাবা অসুস্থ হওয়ার পর থেকে সে নিয়মিত স্কুলে আসে না। ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন