বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ ০৪:৫৭:১৯ পিএম

ঠাকুরগাঁওয়ে নারীকে নগ্ন করে নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ

এস. এম. মনিরুজ্জামান মিলন | জেলার খবর | ঠাকুরগাঁও | শুক্রবার, ১২ মে ২০১৭ | ১০:৪৫:২৪ এএম

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নে এক নারীকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে নগ্ন করে নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রায়হান ও ইউপি সদস্য কেদারনাথকে গ্রেফতার করেছে ঠাকুরগাঁও পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১১ মে) রাত ১০ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঠাকুরগাঁও শহর থেকে তাদের আটক করা হয় বলে জানিয়েছে ঠাকুরগাঁও পুলিশ।

নির্যাতনের ঘটনায় ঐ নির্যাতিত নারীবুধবার (১০ মে) রাতে বাদী হয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি মামলা করে।

আসামি হলেন জগন্নাথপুর যুবলীগের সভাপতি রায়হান, ইউপি সদস্য কেদারনাথ ও আনিসুর রহমান, যুবলীগ নেতা নুর ইসলাম, আব্দুল্লাহ, মহিলা সদস্য মালেকা বেগমসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৭-৮ জন।

উল্লেখ্য, ঐ নারী তার বাড়ির সামনে একটি দোকান করত। ব্যবসার জন্য ঠাকুরগাঁও খোঁচাবাড়ী হাটের ব্যবসায়ী গৌরীপুর গ্রামের প্রমথচন্দ্র রায়ের সাথে ঐ নারীর ব্যবসার বিষয়ে ভালো সম্পর্ক ছিল।

কিন্তু ঐ নারী যে জমির ওপর বসতভিটা গড়ে তুলেছিল, সেই জমির ওপর জগন্নাথপুর এলাকার চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য আনিসুর ও যুবলীগ নেতা রায়হানের নজর পড়ে। ঐ জমি দখলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে নানারকম কৌশল করতে থাকেন জগন্নাথপুর এলাকার মেম্বার, চেয়ারম্যান ও স্থানীয় যুবলীগ নেতারা। ভিটেমাটি ছেড়ে দেয়ার জন্য এর আগে অনেকবার হুমকিও দেন চেয়ারম্যানের লোকজন ও স্থানীয় যুবলীগ নেতারা। বাড়ি ছেড়ে না দিলে দুই লাখ টাকা পণ দাবিও করেন তারা।

সেই কথায় রাজি না থাকায় ঠাকুরগাঁও খোঁচাবাড়ীহাটের ব্যবসায়ী গৌরীপুর গ্রামের প্রমথচন্দ্র রায়ের সাথে ঐ নারীর অবৈধ সম্পর্ক আছে বলে এলাকাবাসীর কাছে চেয়ারম্যানের লোকজন ও স্থানীয় যুবলীগ নেতারা নানারকম কথা ছড়ায়।

এরপর রবিবার (৭ মে) রাতে জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আলালের নির্দেশে যুবলীগ নেতা রায়হানের কর্মীরা তিন সন্তানের জননী ঐ নারীকে তুলে নিয়ে যায়। এরপরে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে তাকে নগ্ন করে নানাভাবে নির্যাতন করা হয়েছে বলে জানান নির্যাতিত ঐ নারী।

একই সময়ে খোঁচাবাড়ী হাটের ব্যবসায়ী গৌরীপুর গ্রামের প্রমথচন্দ্র রায়কেও ইউনিয়ন পরিষদে তুলে নিয়ে এসে নির্যাতন করেন চেয়ারম্যানের লোকজনরা। এ ঘটনার নেতৃত্ব দেন যুবলীগ নেতা রায়হান, ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান, নারী সদস্য মালেকা বেগম ও কেদারনাথ রায় ।

নারীটিকে নগ্ন করে নির্যাতনের ঘটনাটি স্থানীয় লোকজন জানতে পারলে স্থানীয় লোকজন ঐ নারীকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। তিনি বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে ঠাকুরগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঠাকুরগাঁও শহর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন