মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭ ০৬:৫৬:৪২ পিএম

বনানী ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে লন্ডনে মানববন্ধন

প্রবাস | শুক্রবার, ১২ মে ২০১৭ | ০৭:২৯:১২ পিএম

দেশজুড়ে নারী বিরুধী সহিংসতা, নির্যাতন ও ঢাকার বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের প্রতিবাদে লন্ডনে মানববন্ধন করেছেন প্রবাসী বাঙালীরা।

গণজাগরণ মঞ্চ যুক্তরাজ্যের আহবানে সারা দিয়ে বৃহস্পতিবার ১১ইমে পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্কস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে জড়ো হয়েছিলেন বিপুল সংখ্যক প্রবাসী। প্রতিবাদ মানববন্ধনে উপস্থিত প্রবাসীদের প্রত্যকেই তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ধর্ষকদের তড়িৎ বিচারের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি বিধানের আহবান জানান। তারা ধর্ষণের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য পারিবারিক শিক্ষা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পাঠ্যপুস্তকে মানবিক শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার ওপর জোর দেন।

বক্তারা তাদের বক্তব্যে তুলে ধরেন রাষ্ট্র ও সমাজের অসঙ্গতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার প্রয়োজনীয়তা। কিভাবে একটি পরিবার তার ছেলে সন্তানদের নৈতিক শিক্ষা দিতে পারে তার গুরুত্ব তুলে ধরেন তারা।

বক্তারা বলেন, বাবা তার সন্তানদের সামনে মা ও মেয়ের সাথে যেমন ব্যবহার করবে ছেলে সন্তানও ঠিক একই চর্চা করবে অন্য নারীদের সাথে। তাই নিজ পরিবার থেকেই যদি সঠিক নৈতিক শিক্ষা দেয়া যায় তবেই ছেলে সন্তানদের চারিত্রিক অবক্ষয় থেকে দূরে রাখা সম্ভব।

ধর্ষকদের উপযুক্ত শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত এ ধরনের প্রতিবাদ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়া হয় মানববন্ধন থেকে। ভিকটিমদের আইনি সহায়তা দেয়ার পাশাপাশি জনসচেতনতা বাড়ার পক্ষেও জোর দেয়া হয় মানববন্ধনের ঘোষণায়। প্রতিবাদ ও প্রতিরোধই পারে নারীর প্রতি সকল সহিংসতা, অত্যাচার, নির্যাতন আর ধর্ষণ রুখে দিতে, এমন মতামত দেয়া হয় বক্তাদের পক্ষ থেকে।

ধর্ষকদের পাশাপাশি তাদের সহযোগী ও প্রশ্রয়দানকারীদেরও আইনের আওতায় আনার দাবি জানান বক্তারা। তারা বলেন, ধর্ষিতা দুই তরুণী থানায় মামলা দিতে গেলে পুলিশ প্রথমে কেন তাদের মামলা নেয়নি তা তদন্ত করে এরজন্য দায়ী পুলিশ অফিসারকেও আইনের আওতায় আনতে হবে।

আপন জুয়েলার্সের মালিক যিনি ছেলের পক্ষে সাফাই গাইতে গিয়ে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে বলে মন্তব্য করেছেন, তাকেও আইনের কাঠগড়ায় তুলার দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, একটি সমাজ কলুষিত করতে এরকম একজন বাবা-ই যথেষ্ট, সুতরাং কলুষমুক্ত সমাজের স্বার্থেই এই বাবার বিরুদ্ধেও আইনী ব্যবস্থা নিতে হবে।

দুই ধর্ষক সাফাত ও সাদমানের গ্রেফতারে সন্তুষ প্রকাশ করে তারা বলেন, শুধু দুই ধর্ষক নয়, এই ঘটনার সাথে জড়িত সবগুলো ক্রিমিনালকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। প্রভাবশালী বলে অপরাধীরা যেন পার পেয়ে না যায়, এমন হুশিয়ারী দিয়ে বক্তারা বলেন, অপরাধীদের পার পেতে কোন মহল বা গোষ্ঠি যদি ভূমিকা রাখার চেষ্টা করেন তবে এই ঘটনার প্রতিবাদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে, এই আলোড়ন বিষ্ফোরণে রূপ নিতে পারে। বক্তারা দ্রুত বিচার আইনে বড়লোকের বখে যাওয়া এই ধর্ষক সন্তানদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

যুক্তরাজ্য গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র অজন্তা দেব রায়ের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, কবি শামীম আজাদ, মুক্তিযোদ্ধা মেফতা ইসলাম, নাট্যব্যক্তিত্ব গোলাম কবির, সাংবাদিক হামিদ মোহাম্মদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব স্মৃতি আজাদ, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব বুলবুল হাসান, টাওয়ার হ্যামলেট লেবার পার্টি র আনিসুর রহমান আনিস, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সায়মা আহমেদ, নাট্যকার মুকুল আহমেদ, ব্লগার ও আইনজীবী নিঝুম মজুমদার, ব্লগার সুশান্ত দাসগুপ্ত, ব্লগার আরাফাত তানিম, ফয়সাল ইফতেখার রাজা, জনাব সায়েদ আহমেদ সায়াদ, সাংবাদিক তারেক চৌধুরী ইমরান, নাহিদ জায়গীরদার, সাইফুল ইসলাম মিঠু, শারমিন জান্নাত ভুট্টো, সিনথিয়া আরেফিন ও রোমেল আলাউদ্দিন প্রমূখ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন