রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭ ০২:৫৫:০৩ পিএম

ফুলবাড়ী সীমান্তে সিভিলে গাঁজা আটক করে বিপাকে পুলিশ!

জেলার খবর | কুড়িগ্রাম | শনিবার, ২০ মে ২০১৭ | ০৬:০১:৫৮ পিএম

সিভিলে পুলিশ ফুলবাড়ী সীমান্ত থেকে ৩০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করে আসার সময় বিজিবি’র সন্দেহে গাঁজাসহ তাদেরকে আটক করে বিজিবি। এসময় পুলিশের পরিচয় বিজিবিকে দেখাতে না পেয়ে বিপাকে পড়েন এসআই ইসমাইল হোসেন ও সিপাই আনোয়ার হোসেন।

এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পড়ে উভয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অতিরিক্তি পুলিশ এসে বিজিবি’র সঙ্গে সমন্বয় করে গাঁজা গুলো থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ ফুয়াদ রুহানী জানান, শনিবার সকালে উপজেলার ৯৩১ নং আর্ন্তজাতিক মেইন পিলারের সন্নিকটে ধুলারকুটি এলাকায় নারী শিশু নিযার্তন আইনের একটি মামলা তদন্ত করার জন্য এসআই ইসমাইল হোসেন ও সিপাই আনোয়ার হোসেনকে পাঠানো হয়। এ সময় গোপন সংবাদে ওই এলাকার চেংটু মিয়ার ছেলে জয়নাল আবেদীনের বাড়ী তল্লাশী করে ৩০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করে তারা।

এ সময় চেংটু মিয়াসহ তার ছেলে রশিদুল ও আশাদুল পালিয়ে যায়। পরে গাঁজা গুলো থানায় আনার সময় কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই বিজিবি’র সদস্যরা বালারহাট সংলগ্ন এলাকায় তাদের পরিচয় জানানোর জন্য মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে। পরিচয় দেয়া সত্তেও তাদেকে ছেড়ে না দিয়ে বিজিবি’র উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবগত করে ।

৪৫ বিজিবি শিমুলবাড়ী কোম্পানি কমান্ডার নায়েক সুবেদার শাহআলম জানান, সীমান্ত এলাকায় কোন মালামাল পুলিশ আটক করলে নিকটবর্তী বিজিবিকে জানানো প্রয়োজন। তারা সেটি করেননি। তাছাড়াও পুলিশের কোন পরিচয়পত্র দেখাতে পারেনি। এ জন্য আমাদের সন্দেহ সৃষ্টি হলে তাদেরকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পরে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে পুলিশের সাথে সমন্বয় করা হয়েছে ।

কুড়িগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাগেশ্বরী সার্কেল আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, পুলিশ ও বিজিবি’র মধ্যে ভুল বুঝা বুঝির হয়। পরে উভয়ের সমন্বয়ে উদ্ধারকৃত মালামালকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন