বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭ ০১:৫৫:৫৮ এএম

আমরা চারপাশে পাগল হিসাবে যাদের দেখি ওরা আসলে কে !

ভিন্ন খবর | ঢাকা | বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭ | ০১:০৪:৪৬ পিএম











পাগল
বলে সাধারণ মানুষ তাদের এড়িয়ে চলে। আসলে তারা পাগল নয়। পাগল সেজে এরা
সামাল দেয় মাদকের ব্যবসা। এই পাগল নিয়মিত মেকআপও নেয়। নিয়ম করে নোংরা থাকার
কৌশল শেখে। তারা রাজধানীর রাস্তায় বিভিন্ন পয়েন্টে বসে থেকে মাদকের খুচরা
ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। জানিয়ে দেয় পুলিশের অবস্থান। সারাদিন
এদের দেখা না মিললেও সন্ধ্যার পর থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত এদের উপস্থিতি থাকে
ফুটপাতজুড়ে।

মহাখালী থেকে ফেনসিডিল আর গাঁজা আসবে শ্যামলী। মহাখালী ব্রিজের নিচে
একজন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উল্টো পাশ দিয়ে যে লিঙ্ক রোড রয়েছে সেখানে
সমান দূরত্বে তিনজন, পাসপোর্ট অফিসের সামনে একজন, সেখান থেকে শিশু
হাসপাতাল পার হয়ে একজন, শ্যামলী ব্রিজের ওপর একজন।


এভাবে সাতজন মিলে পার করে দেবে প্যাডলারকে। এর মধ্যে কোথাও পুলিশের
সঙ্গে বোঝাপড়ায় ঝামেলা হলে সেই খবর পরস্পরের মধ্যে আদানপ্রদান করা হয়
নিমিষেই। এই পাগলদের একই এলাকায় পাওয়া যাবে তা নয়। তবে একটু এদিকে সেদিক
করে রুটটা এমনই থাকে। এরা পরস্পর লাইনম্যানের মতো কাজ করে। এ রকম প্রতিটা
রুটে ঘুরে ঘুরে তারা কাজ করে।


এই ছদ্মবেশী পাগলদের একজন হুমায়ুন। থাকেন মহাখালী সাততলা বস্তিতে।
মহাখালী বক্ষব্যাধী হাসপাতালের পাশের বস্তি থেকে মাদকের ‘হোম ডেলিভারির’
দায়িত্ব তার। কেন এ রকম কৌশল ঠিক করলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, পুলিশের
সঙ্গে যোগাযোগের একটা এলাকাভিত্তিক লেনদেন আছে।

এলাকা মহাখালী। সেখানে যাতে ঝামেলা না হয় সেটা সে দেখে। কিন্তু তার কাস্টমার বেশি শ্যামলীতে। সেখান পর্যন্ত পৌঁছাইতে হইলে এতগুলো এলাকা
পার হইয়া যাইতে হয়। আবার সব পুলিশ সিস্টেমেও আসে না। তখন তারা এই বুদ্ধি করেছে। 

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন