মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ১২:৫২:০৯ এএম

মসজিদের গেট থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে নৃশংস কায়দায় প্রবাসী যুবককে হত্যা

জেলার খবর | সিলেট | শনিবার, ২৪ জুন ২০১৭ | ০১:১৬:১৯ পিএম

মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় তাকে মসজিদের সামনে থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে সিলেটের গোলাপগঞ্জে এক প্রবাসীকে। ঘটনার সময় স্থানীয় মসজিদের মাইকে ওয়াজ চলার কারণে তার চিৎকারের শব্দ শোনা যায়নি বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা । শুক্রবার উপজেলার শরীগঞ্জ ইউনিয়নের কদুপুর এলাকায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যার এ নির্মম ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর স্থানীয় জনতা সন্দেহভাজন তিনজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেছে।

এলাকার একটি সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন থেকে নিহত ইমাম উদ্দিনের পরিবারের সঙ্গে এলাকার একটি চক্রের বিরোধ ছিল। আর এ বিরোধই কাল হল ইমাম উদ্দিনের।

নিহতের ভাই নজির আহমদ শুক্রবার রাতে জানান, প্রায় এক বছর যাবত নিহত ইমাম উদ্দিনের পরিবারের সঙ্গে একই গ্রামের খালেদ হোসেনের পরিবারের বিরোধ চলে আসছিল। বিষয়টি মীমাংসা হওয়ার পথেও ছিল। শুক্রবার ইমাম উদ্দিন জুমার নামাজ পড়তে স্থানীয় কদুপুর মসজিদের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। এসময় মসজিদের কাছে আসামাত্র পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা একই গ্রামের খালেদ হোসেন (৩৫), নরুল ইসলাম (২৫), সুরুজ উদ্দিনের পুত্র দোলাল আহমদ (২৭) ও হেলাল আহমদ (৩৫) এবং হিরা আহমদ ইমাম উদ্দিনের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

এ সময় তারা ইমাম উদ্দিনকে ধরে ৩০/৪০ গজ দূরে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। তাদের এলোপাতাড়ি হামলায় তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।

ঘটনার সময় স্থানীয় মসজিদের মাইকে ওয়াজ চলার কারণে তার চিৎকারের শব্দ শোনা যায়নি বলেও জানান তিনি ।

পরে এ ঘটনাটি দেখে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন এলাকাবাসী। তারা সঙ্গে সঙ্গে এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রাজু নামে একজনসহ ৩ জনকে আটক করে পুলিশে দেয়। বাকি দু’জনের নাম তাৎক্ষনিক জানা যায়নি।

ঘটনাটি পূর্ব পরিকল্পিত উল্লেখ করে নিহতের ভাই আরও জানান, যেভাবে ইমাম উদ্দিনকে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে তা মধ্যযুগীয় বর্বরতাকেও হার মানায়।

খবর পেয়ে গোলাপগঞ্জ সার্কেলের এএসপি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।সময়েরকণ্ঠস্বর।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন