বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৩:৫১:২৬ পিএম

আশুলিয়ায় ভালবাসার প্রমাণ দিতে আঙ্গুল কেটে স্ত্রীকে উপহার!

জেলার খবর | ঢাকা | রবিবার, ১৬ জুলাই ২০১৭ | ১১:৪৭:৩৭ এএম

দীর্ঘ দিন ধরে পারিবারিক কলহ চলছিল আহাদ-লাকি দম্পত্তির মধ্যে। দুই পরিবারের লোকজন মিমাংসা করার চেষ্টা করেছে কয়েক বার। কিন্তু থামেনি আহাদ-লাকি দম্পত্তির সেই কলহ। এক পর্যায়ে দুই পরিবারের লোকজনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আহাদ-লাকি দম্পত্তির মধ্যে ডিভোর্স হয়। অবশ্য স্বামী আহাদ স্ত্রী লাকিকে ডিভোর্স না দিতে অনুরোধও করেন।

এত কিছুর পরও মন গলেনি স্ত্রী লাকি আক্তারের। স্ত্রীর মন না গললেও লাকিকে নিয়ে আবার সংসার করতে আগ্রহ দেখান স্বামী আহাদ। এরই সূত্র ধরে ওই দম্পত্তিসহ তাদের উভয়ের পরিবারের লোকজন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের বাসায় জড়ো হন উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতির সমাধানের জন্য।

কিন্তু স্ত্রী লাকি সংসার না করার পক্ষেই অনড় থাকেন। আর্ এতে উত্তেজিত ও ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী আহাদ সালিশ চলাকালীন সময়ের এক ফাকে চেয়ারম্যান বাড়ির রান্না ঘবে প্রবেশ করেন। এবং রান্না ঘরে থাকা বটি দিয়ে নিজের হাতের একটি আঙ্গুল কেটে নিয়ে এসে স্ত্রীর জামার উড়নায় বেধে দিয়ে ভালবাসার প্রমান সরুপ উপহার দিয়ে চলে যান।

শুনতে গল্প মনে হলেও এমন ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকালে সাভারের আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউনিয়নের কলতাসূতি গ্রামে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম সুরুজ।

স্থানীয়রা জানান, গত ৭-৮ দিন আগে ওই দম্পত্তির মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যায়। পূরব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার সকালে উভয় পক্ষের লোকজন উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতির সমাধানের জন্য আশুলিয়ার পূরব কলতাসূতি গ্রামে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম সুরুজের বাসায় উপস্থিত হন। উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে স্বামী আহাদ লাকিকে নিয়ে আবার সংসার করতে আগ্রহ দেখায়।

এ সময় আহাদ এবং আহাদের পরিবারের লোকজনের অনুরোধে লাকিকে আবার নতুন করে সংসার শুরু করার জন্য বুঝানো হয়। কিন্তু লাকিসহ লাকির পরিবার তাদের সিদ্ধান্তে অনড় থাকে।

পরবর্তীতে উভয় পরিবারের লোকজন দেনা-পাওনা নিয়ে কথা বললে স্বামী আহাদ নিজের একটি আঙ্গুল কেটে স্ত্রীর লাকির জামার উড়নায় বেধে দিয়ে ভালবাসার প্রমাণ সরুপ উপহার দিয়ে দেন। পরবর্তীতে আহাদকে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় একটি ক্লিনিকে প্রেরন করা হয়।

জানা যায়, বিগত ১০ বছর আগে আশুলিয়ার কলতাসূতি এলাকার আয়নাল হকের মেয়ে লাকির সাথে গাজীপুরের জয়দেবপুর থানাধীন লতিফপুর গ্রামের বাসিন্ধা আহাদের মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই পারিবারিক বিষয় নিয়ে আহাদ-লাকি দম্পত্তির মধ্যে ঝগড়া লেগেই থাকতো্। এছাড়া এই দম্পত্তির ৪ বছর বয়সী এক ছেলেসহ ২ বছর বয়সী এক কন্যা সন্তান রয়েছে।

এদিকে, নিজের আঙ্গুল কেটে স্ত্রীকে উপহার দেওয়ার ঘটনাটি এলাকা জুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন