বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৭ ১১:৩৪:২১ পিএম

সালমান শাহ হত্যা নিয়ে ভিডিও: কেন বন্ধ হলো রাবেয়া রুবি'র সেই ফেসবুক অ্যাকাউন্ট?

বিনোদন | শনিবার, ১২ আগস্ট ২০১৭ | ১০:৫৮:১৩ পিএম

প্রয়াত চিত্রনায়ক সালমান শাহ হত্যা মামলার আসামি যুক্তরাষ্ট্রর পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যে বসবাসরত রাবেয়া সুলতানা রুবির ফেসবুক আইডি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গত ৭ আগস্ট সোমবার ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় সালমান শাহর মৃত্যু নিয়ে কথা বলেছেন রুবি। তা নিয়ে দেশ ও বিদেশে শুরু হয় তোলপাড়। এর প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার থেকে তার ফেসবুক আইডি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ফেসবুকে ভিডিও বার্তা প্রকাশের কয়েকদিন পর রুবি আরেকটি ভিডিও বার্তায় সবকিছুই অস্বীকার করে বলেন, আমি আগের ভিডিও যা বলেছি, 'সব মিথ্যা বলেছি'। কারণ আমি একজন মানসিক রোগী। আমার কাছে হাসপাতালের সব কাগজপত্র রয়েছে। আবার আমার ছেলে আমাকে হাসপাতালে পাঠাবে।

অপর দিকে গত এক সপ্তাহ আগে নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল কার্যালয়ে দেখা গেছে রুবিকে। সালমান শাহ হত্যা মামলার ঘটনা নিয়ে তার ফেসবুকে ভিডিও বার্তা প্রকাশের আগে ঘটনার বর্ণনা শোনাতে তিনি কনস্যুলেট অফিসে এসেছিলেন বলে জানা গেছে। কনস্যুলেট জেনারেল কার্যালয়ে এসে সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডর বর্ণনা শোনাতে চিৎকার করছিল রাবেয়া সুলতানা রুবি।

নিউ ইয়র্ক প্রবাসী মোহাম্মদ শফিক উল্লাহ জানান, তিনি গত এক সপ্তাহ আগে পাসপোর্ট সংক্রান্ত এক কাজে নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল কার্যালয়ে গিয়ে সেখানে সালমান শাহ খুনের 'আসামি' সেই রাবেয়া সুলতানা রুবিকে দেখতে পেয়েছেন। এর কয়েকদিন পর রুবি তার ভিডিও বার্তায় সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডর রহস্য উৎঘাটনের জন্য সকলের সাহায্য চায়।

শফিক জানান, রুবি ওই দিন কনসুলেট অফিসে চিৎকার করে কথা বলছিলেন। কি প্রসঙ্গে কথা বলছিলেন তা তিনি সঠিকভাবে জানেন না। তবে শফিক রুবিকে ভেতরে গিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানান।

এ ব্যাপারে নিউ ইয়র্কের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান এনডিসি'র সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, রুবি কয়েকদিন আগে আমাদের অফিসে এসেছিল সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডর ঘটনা নিয়ে কথা বলার জন্য এসেছিলেন। ওই সময় আমি বাইরে থাকায় তার সঙ্গে কথা হয়নি। অফিসের অন্য একজন কর্মকর্তার সঙ্গে রুবির কথা হয়েছে। তবে আমরা সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডর বিষয় নিয়ে তার কোনো বক্তব্য শুনতে রাজি নই। এসব আদালতের ব্যাপার। তাই তার কোনো বক্তব্যই শোনা হয়নি। যদি আদালত থেকে কোনো নির্দেশনা দেওয়া হতো তখন আমরা তার বক্তব্য শুনতাম।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন