রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭ ০২:৫৩:১৩ পিএম

গরীবের হাসপাতাল নদীগর্ভে বিলীন

জেলার খবর | লালমনিরহাট | শনিবার, ২৬ আগস্ট ২০১৭ | ০৪:১৮:৫৩ পিএম

হামরা এ্যালা কোনটে যাম বাহে, হামাগুলার অসুখ হলে ঔষধ এ্যালা কায় দেবে, এবার হামাকগুলাক ঔষধ না খ্যায়া মরা লাগবে – এভাবেই কথাগুলো বলেন, গরীবের হাসপাতাল গোবর্দ্ধন কমিউনিটি ক্লিনিক সংলগ্ন ওহাবের স্ত্রী সাহার বানু (৪০) ও সাত্তারের স্ত্রী শরিফা বেগম (৪৫)। তাদের আহাজারিতে আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠে।

চোখের সামনে তাদের একমাত্র চিকিৎসা সেবা কেন্দ্র তিস্তা নদীর গর্ভে বিলীন হচ্ছে। যেন কোনভাবেই নদীর হাত থেকে রক্ষা করা যাচ্ছে না কমিউনিটি ক্লিনিকটি। শুধু ক্লিনিকই নয়, ক্লিনিকের সাথে সাথে দুটো পরিবারের বাড়িঘর সরিয়ে নেয়া হচ্ছে অন্যত্র।

শুক্রবার (২৫ আগস্ট) আদিতমারী উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৩ কিলোমিটার দূরে মহিষখোচা ইউনিয়নের গোবর্দ্ধন গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তিস্তা নদী গোবর্দ্ধন কমিউনিটি ক্লিনিকটিতে আঘাত হানে। এ সময় ক্লিনিকের টিনের একটি ঘড় রাতেই নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। নদীর প্রবল স্রোতে ক্লিনিকের একটি অংশ নদীতে বিলীন হতে চলেছে।

খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী, ইউপি সদস্য মতিয়ার রহমান ও আব্দুল হামিদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। চোখের সামনে গরীবের হাসপাতালটি তিস্তা গর্ভে বিলীন হতে দেখে তারাও হতবাক। এরপর উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে ক্লিনিকের দরজা-জানালা ভাঙ্গার কাজ করছেন স্থানীয়রা।

এদিকে হঠাৎ করে তিস্তা নদীর পানির স্রোতে পরিবর্তন হয়ে রাতারাতি ক্লিনিকটিতে আঘাত হানায় এলাকাবাসীও রয়েছেন হুমকির মুখে।

ক্লিনিক সংলগ্ন বাসিন্দা ওহাব ও সাত্তার তাদের বাড়িঘর অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছেন। ক্লিনিকটি যে কোন সময় নদীতে বিলীন হলে তাদের বাড়িঘরও বিলীন হবার আশংকা করছেন তারা।

ইউপি সদস্য আব্দুল হামিজ জানান, হঠাৎ করে তিস্তা নদী আঘাত হানায় রাতারাতি ক্লিনিকের টিনের একটি ঘড় নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এখন পাঁকা ভবণটিতে নদী আঘাত হানায় স্থানীয়দের সহায়তায় দরজা জানালা সরানোর কাজ চলছে বলে জানান তিনি।

মহিষখোচা ইউপি চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী বলেন, নদী থেকে ক্লিনিকের দুরত্ব ২শ গজ দূরে ছিল কিন্তু হঠাৎ করে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আসাদুজ্জামান জানান, বিষয়টি জানার পর স্বাস্থ্য বিভাগের লোক ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, নদীর হাত থেকে রক্ষার জন্য ক্লিনিকের যতটুকু অংশ সরানো যায় সে বিষয়ে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন