বুধবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ ০৯:৩৫:২০ এএম

হুমায়ূন আহমেদের ৬৯ তম জন্মবার্ষিকী আজ

বিনোদন | সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭ | ১০:১০:২৭ এএম

বাংলা সাহিত্যের বরপুত্র ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের ৬৯ তম জন্মবার্ষিকী আজ। হুমায়ূন আহমেদ। নানা আয়োজনে হুমায়ূন ভক্তরা দিনটিকে উদযাপন করবেন। এছাড়া হুমায়ূনের পরিবারেও রয়েছে দিনটিকে ঘিরে আনুষ্ঠানিকতা। হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একাধারে লেখক, টিভি ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। বহুমুখী প্রতিভাবান এই মানুষটি ২০১২ সালের ১৯ জুলাই ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

সাহিত্যাঙ্গনে কিংবদন্তি এক নাম। তার বাবা ফয়জুর রহমান আহমদ এবং মা আয়েশা আখতার খাতুন। বাবা পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন এবং তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পিরোজপুর মহকুমার এসডিপিও হিসেবে কর্তব্যরত অবস্থায় শহীদ হন। তার বাবা লেখালিখি করতেন। বগুড়া থাকাকালীন তিনি একটি গ্রন্থও প্রকাশ করেছিলেন। গ্রন্থের নাম ‘দ্বীপ নেভা যার ঘরে’।

হুমায়ূন আহমেদের ছোট ভাই অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল দেশের একজন খ্যাতিমান শিক্ষক এবং কথাসাহিত্যিক। সর্বকনিষ্ঠ ভ্রাতা আহসান হাবীব রম্যসাহিত্যিক এবং কার্টুনিস্ট। হুমায়ূন আহমেদের ছোট তিন বোন শিকু, শিফু ও মনি।

ছোটকালে হুমায়ূন আহমেদের নাম রাখা হয়েছিল শামসুর রহমান। ডাক নাম কাজল। তার বাবা নিজের নাম ফয়জুর রহমানের সঙ্গে মিল রেখে ছেলের নাম রাখেন শামসুর রহমান। পরবর্তীতে তিনি নিজেই নাম পরিবর্তন করে হুমায়ূন আহমেদ রাখেন।

বাবার চাকরি সূত্রে নেত্রকোনা, দিনাজপুর, বগুড়া, সিলেট, পঞ্চগড়, রাঙামাটি ও বরিশালে তার শৈশব কেটেছে। সেই সুবাদে দেশের বিভিন্ন স্কুলে লেখাপড়া করার সুযোগ পেয়েছেন। তিনি বগুড়া জেলা স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেন এবং রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে সব গ্রুপে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন। পরে ঢাকা কলেজে ভর্তি হন এবং সেখান থেকেই বিজ্ঞানে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়ন শাস্ত্রে অধ্যয়ন করেন এবং প্রথম শ্রেণিতে বিএসসি (সম্মান) ও এমএসসি ডিগ্রি লাভ করেন।

হুমায়ূন আহমেদ মুহসীন হলের আবাসিক ছাত্র ছিলেন এবং ৫৬৪ নং কক্ষে ছাত্রজীবন অতিবাহিত করেন। জনপ্রিয় কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা তার রুমমেট। এমএসসি শেষে হুমায়ূন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ডাকোটা স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে পলিমার রসায়ন বিষয়ে গবেষণা করে পিএইচডি লাভ করেন। তবে প্রচারবিমুখ এই বিস্ময় পুরুষ সাধারণত নামের শেষে কখনও ‘ড.’ উপাধি ব্যবহার করতেন না।

কর্মে প্রবেশ করেন ১৯৭৩ সালে, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত থাকা অবস্থায় প্রথম বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি ‘তোমাদের জন্য ভালোবাসা’ লিখেছিলেন। ১৯৭৪ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন। লেখালেখিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় একসময় অধ্যাপনা ছেড়ে দেন।

১৯৭৩ সালে দাম্পত্য জীবন শুরু করেন। হুমায়ূন আহমেদের প্রথম স্ত্রীর নাম গুলতেকিন আহমেদ। ভালোবেসে তিনি গুলতেকিনকে বিয়ে করেছিলেন। হুমায়ূন আহমেদের উত্থান ও তার প্রথম জীবনের সংগ্রামে নেপথ্যের নায়িকা হয়ে ছিলেন তার স্ত্রী। হুমায়ূন আহমেদ তার ‘হোটেল গ্রেভার ইন’ বইতে সেই সাক্ষ্য নিজেই দিয়ে গেছেন। হুমায়ূন-গুলতেকিন দম্পতির তিন মেয়ে এবং দুই ছেলে। তিন মেয়ের নাম বিপাশা আহমেদ, নোভা আহমেদ, শীলা আহমেদ এবং ছেলের নাম নুহাশ আহমেদ। অন্য আরেকটি ছেলে অকালে মারা যায়।

১৯৯০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যভাগ থেকে শীলার বান্ধবী এবং তার বেশ কিছু নাটক-চলচ্চিত্রে অভিনয় করা অভিনেত্রী শাওনের সঙ্গে হুমায়ূন আহমেদের ঘনিষ্ঠতা জন্মে। এর ফলে সৃষ্ট পারিবারিক অশান্তির অবসানকল্পে ২০০৫ সালে গুলতেকিনের সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয় এবং ওই বছরই শাওনকে বিয়ে করেন। এ ঘরে তাদের তিন ছেলে-মেয়ে জন্মগ্রহণ করে। প্রথম ভূমিষ্ঠ কন্যাটি মারা যায়। সেই কন্যার নাম রেখেছিলেন লীলাবতী। তাকে একটি বইও উৎসর্গ করেছিলেন হুমায়ূন। ছেলেদের নাম নিষাদ হুমায়ূন ও নিনিত হুমায়ূন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলের ছাত্র থাকা অবস্থায় সাহিত্যে যাত্রা শুরু করেন ‘নন্দিত নরকে’ উপন্যাসের মাধ্যমে, ১৯৭২ সালে। ‘শঙ্খনীল কারাগার’ তার ২য় গ্রন্থ। তারপর থেকে যেখানেই হাত দিয়েছেন হুমায়ূন, সেখানেই সোনা ফলেছে। সময়ের অববাহিকায় দীর্ঘদিনের সাহিত্য জীবনে তিনি রচনা করেছেন প্রায় তিন শতাধিক গ্রন্থ, যা বিশ্ব সাহিত্যে একজন লেখক হিসেবে তাকে দিয়েছে অনন্য মর্যাদা।

তার রচনাসমগ্রের মধ্যে এইসব দিনরাত্রি, জোছনা ও জননীর গল্প, মন্দ্রসপ্তক, দূরে কোথাও, সৌরভ, নি, ফেরা, কৃষ্ণপক্ষ, সাজঘর, বাসর, গৌরীপুর জাংশান, বহুব্রীহি, আশাবরি, দারুচিনি দ্বীপ, শুভ্র, নক্ষত্রের রাত, আমার আছে জল, কোথাও কেউ নেই, আগুনের পরশমণি, শ্রাবণ মেঘের দিন, মেঘ বলেছে যাবো যাবো, মাতাল হাওয়া, শুভ্র গেছে বনে, বাদশাহ নামদার, এপিটাফ, রূপা, আমরা কেউ বাসায় নেই, মেঘের ওপারে বাড়ি, আজ চিত্রার বিয়ে, এই মেঘ, রৌদ্রছায়া, তিথির নীল তোয়ালে, জলপদ্ম, আয়নাঘর, হুমায়ূন আহমেদের হাতে ৫টি নীলপদ্ম ইত্যাদি অন্যতম।

লিখেছেন অসংখ্য ছোট গল্প। তার ছোট গল্পগুলো বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে। ভৌতিক গল্পেও জুড়ি নেই হুমায়ূনের। এর বাইরে কবিতা ও গান লেখাতেও হাত চালিয়েছেন। বিশেষ করে একজন গীতিকবি হিসেবে হুমায়ূন ‘বরষার প্রথম দিনে’ ‘যদি মন কাঁদে তবে চলে এসো’ ‘চাঁদনি পসর রাইতে যেন আমার মরণ হয়’ ‘চাঁদনী পসরে কে আমারে স্মরণ করে’ ‘আমার ভাঙা ঘরে’ ‘ও আমার উড়াল পঙ্খিরে’ ইত্যাদি গানে নিজেকে কালজয়ী করে রেখেছেন।

বাংলা সাহিত্যের নতুন যুগের স্রষ্টা ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। বাংলা সাহিত্যকে সার্বজনীন করে তুলতে এই কিংবদন্তি কথাশিল্পীর অবদান ইতিহাস হয়ে থাকবে। তার সৃষ্ট চরিত্র ‘হিমু’ জনপ্রিয়তায় বিশ্ব সাহিত্যেও বিস্ময়। এর বাইরে ‘মিসির আলী’ ‘রুপা’ ‘শুভ্র’‘মাজেদা খালা’ ‘বাকের ভাই’ ‘মোনা’‘ছোট মামা’ ইত্যাদি চরিত্রগুলোও দারুণ জনপ্রিয় বাংলা সাহিত্যে। তবে এই চরিত্রগুলো নাটক ও চলচ্চিত্রের হাত ধরে চিরদিনের মতো থেকে গেল আশ্চর্য রকম জীবন্ত।

দীর্ঘদিনের সাহিত্য জীবনে একজন লেখক হিসেবে প্রায় সবই তিনি অর্জন কিংবা জয় করে নিয়েছিলেন। পাঠক, ভক্ত, সম্মান, টাকা—সবকিছুই তিনি পেয়েছিলেন দু’হাত ভরে। আর স্বীকৃতিস্বরুপ নানা সময়ে ঘরে উঠেছে নানা পুরস্কার। তার মধ্যে রয়েছে সাহিত্যে বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক, লেখক শিবির পুরস্কার, মাইকেল মধুসুদন পদক, হুমায়ূন কাদির স্মৃতি পুরস্কার, জয়নুল আবেদীন স্বর্ণপদক এবং চলচ্চিত্রে পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (শ্রেষ্ঠ কাহিনি ১৯৯৪, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ১৯৯৪, শ্রেষ্ঠ সংলাপ ১৯৯৪), বাচসাস পুরস্কার ইত্যাদি।

বিশেষ এ দিনটিকে ঘিরে চ্যানেল আই এর ‘চেতনা চত্বর’-এ দিনভর চলবে ‘হুমায়ূন মেলা’। তাকে স্মরণ করেই সোমবার সকাল ৭ টা ৪০মিনিটে চ্যানেল আইতে সরাসরি সম্প্রচারিত হয় গানে গানে সকাল শুরু। আর এই বিশেষ পর্বের পরিবেশনায় ছিল হুমায়ূন আহমেদের প্রিয় কিছু গান। ইউসুফ আহমেদের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠের তরুণ শিল্পী চম্পা বণিক, রাফসান ও শারমিন।

কথাসাহিত্যের মানুষ হলেও যথেষ্ট গান পাগল মানুষ ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। তিনি নিজেও লিখে গেছেন বেশ কিছু গান। আর তাই পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে গাওয়া হয় হুমায়ূন আহমেদের প্রিয় সব গান। অনুষ্ঠানে বারী সিদ্দিকীর গাওয়া সোয়া চান পাখি আমার আমি ডাকিতাসি তুমি ঘুমাইছ নাকি গানটি পরিবেশন করেন এ প্রজন্মের শিল্পী রাফসান।

তার চলচ্চিত্রের আমার আছে জল গানটি দিয়ে শেষ হয় গানে গানে সকাল। চ্যানেল আই এ সারা দিনব্যাপী রয়েছে হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে অনুষ্ঠান।

হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন জানান, ঘরোয়া আয়োজনে প্রতি বছরের মতোই রাত ১২টায় কেক কাটা হবে। এছাড়া হুমায়ূনের প্রিয় জায়গা নূহাশপল্লীতে এতিমদের খাওয়ানো হবে। দিনভর হুমায়ূন ভক্তরা নূহাশপল্লীতে আসবেন তাদের প্রিয় লেখককে শ্রদ্ধা জানাতে।

হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনকে ঘিরে তারই লেখা নাটক ‘নৃপতি’ মঞ্চস্থ করতে যাচ্ছে নান্দনিক নাট্যগোষ্ঠী। কাল (সোমবার) সন্ধ্যায় জাতীয় নাট্যশালার পরীক্ষণ থিয়েটার হলে নাটকটির প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

হুমায়ূন আহমেদের ‘কে কথা কয়’ উপন্যাস থেকে ম্যাড থেটার প্রযোজিত নাটক ‘নদ্দিউ নতিম’। এরইমধ্যে নাটকটি বেশ প্রশংসিত হয়েছে। গত ১০ ও ১১ নভেম্বর লন্ডনের ব্রাডি আর্টস সেন্টারে নাটকটির দুটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। হুমায়ূনের উপন্যাস থেকে নাট্যরূপ ও দিয়েছেন আসাদুল ইসলাম।

হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনকে ঘিরে এবছরও হুমায়ূন মেলার আয়োজন করেছে চ্যানেল আই। তেজগাঁও’র চ্যানেল আই ভবনে দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এই মেলা চলবে।

শাহবাগের পাবলিক লাইব্রেরী চত্বরে হুমায়ূনের লেখা বই নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে বইমেলা। বিকেল থেকে রাত অবধি বইমেলা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া নেত্রকোনায় হুমায়ূনের গ্রামের বাড়ি এবং দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে হুমায়ূন ভক্তরা নানা আয়োজনে তাদের প্রিয় লেখককে শ্রদ্ধা জানিয়ে অনুষ্ঠান আয়োজন করবেন বলে জানা গেছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন