রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭ ০২:৫৩:৫৫ পিএম

মহেশপুর পৌরসভার বিরুদ্ধে কপোতাক্ষ নদে বর্জ্য ফেলার অভিযোগ

আতিকুর রহমান | জেলার খবর | ঝিনাইদহ | সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৭ | ১১:৪৭:৪৪ এএম

ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ প্রতিদিনের বর্জ্য কপোতাক্ষ নদে ফেলছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে পানি দুষিত হওয়ার পাশাপাশি নদটি ভরাট হয়ে যাচ্ছে। পৌরসভার সচিব রাকিবুল ইসলাম জানিয়েছেন, বিষযটি তারা দেখবেন।

পৌরসভার যে কর্মচারীরা এই নদের মধ্যে ময়লা ফেলে তাদের ইতিমধ্যে নিষেধ করা হয়েছে, তারপরও কেন ফেলা হচ্ছে সেটা দেখা হবে। তিনি বলেন, ইতিপূর্বে নদ এর পাড়ের বাসিন্দারা অভিযোগ করেছিলেন। তখনই তারা এই বর্জ্য ফেলা বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি আরো বলেন, নদ-নদী আমাদের রক্ষা করতে হবে।

ফলে এভাবে বর্জ্য ফেলে নদ ভরাট করা যাবে না। যশোর জেলার উপর দিয়ে যাওয়া কপোতাক্ষ নদটি’র কিছু অংশ গেছে ঝিনাইদহের মহেশপুর ও কোটচাঁদপুর উপজেলার বুকচিরে। মহেশপুর শহরের উত্তার পাশ দিয়ে বয়ে গেছে এই নদ। নদটির মহেশপুর উপজেলার পুরন্দপুর এলাকা দিয়ে প্রবাহিত হয়ে খালিশপুর বাজার পার করে মহেশপুর শহরে প্রবেশ করেছে। নদটি মহেশপুর শহর পেরিয়ে বৈচিতলা হয়ে আবারো শহরের আরেক পাশ দিয়ে বয়ে আজমপুর হয়ে কোটচাঁদপুর উপজেলায় প্রবেশ করেছে। সেখান থেকে চৌগাছা হয়ে যশোরের কেশবপুর মিলেছে।

এই নদের মহেশপুর শহর দিয়ে প্রবাহিত হওয়া অংশ ঘেষে উত্তরে রয়েছে মহেশপুর সরকারি ডিগ্রি কলেজ, আর দক্ষিনে পৌরসভার নির্মান করা একটি সড়ক। তার পাশেই রয়েছে পৌরসভা অফিস ভবন। মহেশপুর বাসষ্টান্ড থেকে শহরকে বাইপাস করে এই সড়কটি বারোইপাড়া নামক জায়গায় উঠেছে। পৌরসভা অফিস ভবনের অদূরে এই নদ এর মধ্যে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য।

সড়কের ধার ঘেষে নদ এর মধ্যে বর্জ্য ফেলায় এলাকায় দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। স্থানিয় বাসিন্দারা এই দূর্গন্ধে বসবাস করতে পারছেন না। তারা নদটির পানিতেও নামতে পারছেন না। মহেশপুর উপজেলার প্রবীণ শিক্ষক এ.টি.এম. খায়রুল আনাম জানান, এটা খুবই অন্যায়। তিনি দূঃখ করে বলেন, বর্তমানে সময়ে এগুলো দেখার যেন কেউ নেই। এ ব্যাপারে মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম জানান, বিষয়টি তিনি খোজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন। তিনি পৌরসভার মেয়রের সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন