শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭ ০৯:৩৩:৩৪ পিএম

বিপিএল পয়েন্ট টেবিলে সাকিব-আফ্রিদির ডায়নামাইটস ‘নম্বর ওয়ান’

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৭ | ০৭:৩৬:৫৯ পিএম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ-বিপিএলে জিততে জিততে হেরে গেল খুলনা টাইটানস। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে খুলনা সংগ্রহ করে ১৫৬ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে মাত্র এক বল হাতে রেখে চার ইউকেটে ম্যাচ ছিনিয়ে নিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। এই জয়ে বিপিএল পয়েন্ট টেবিলের নম্বর ওয়ানে উঠলেন সাকিব-আফ্রিদিরা।

মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস জিতে খুলনাকে ব্যাটিংয়ের আহ্বান জানান ঢাকার অধিনায়ক সাকিব। লড়াকু ইনিংস খেলে অপরাজিত ব্রেথওয়েটের ৬৪ রানের কল্যাণে শেষ পর্যন্ত ১৫৬ রানের ইনিংস দাঁড় করায় খুলনা।


বিপরীতে খেলতে নেমে ম্যাচটা প্রায় হারতেই বসেছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। তবে হাল ছাড়েননি কাইরন পোলার্ড ও জহুরুল ইসলাম অমি। এই দু'জনের ব্যাটিং-নৈপুণ্যে নিশ্চিত হার থেকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ঢাকা ডায়নামাইটনস।

ব্যাটিং করতে নেমে ৪১ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে চরম বিপর্যয়ে পড়ে ঢাকা ডায়নামাইটস। প্রথম ওভারে এভিন লুইস ও দ্বিতীয় ওভারে শহীদ আফ্রিদি ফিরে যান। পঞ্চম ওভারে ক্যামেরন দেলপোর্ট ফিরে গেলে চাপ বাড়ে ঢাকার। এরপর ২৪ রানে সুনীল নারাইন ও দলীয় ৪১ রানে ফিরে যান সাকিব আল হাসান।

ডুবতে বসা ঢাকার ইনিংসটাকে সামলান কাইরন পোলার্ড ও জহুরুল ইসলাম অমি। ৬৩ রান যোগ করেন এই দু'জন। তাতে পোলার্ডের অবদান ৫৫। দলীয় ১১৪ রানে শফিউলের বলে আউট হন পোলার্ড। মাত্র ২৪ বলে ছয়টি ছক্কা ও তিন চারে ৫৫ রান করেন এই ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান। ৩৯ বলে ৪৫ রানে অপরাজিত থাকেন জহুরুল।

পোলার্ড ফিরে আসার পর ঢাকাকে আবার চেপে ধরেন খুলনার বোলাররা। তবে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে দলকে ম্যাচে ফেরান জহুরুল ইসলাম। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ঢাকার দরকার ছিল ৬ রান। কার্লোস বাফেটের প্রথম চার বলে মাত্র দুই রান নেন মোসাদ্দেক-জহুরুল। এই সময় ম্যাচটা হেলে পড়ে খুলনার দিকে। পঞ্চম বলে দারুণ এক চার মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন জহুরুল।

অন্যদিকে খুলনার হয়ে ব্যাট হাতে নাজমুল হাসান শান্ত ও মাইকেল ক্লিংগার শুরুটা ভালো করলেও বেশিক্ষণ সে অবস্থায় থাকতে দেননি ঢাকার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। দলীয় ২২ রানের মাথায় ক্লিংগারকে ফিরিয়ে দেন সাকিব। ব্যক্তিগত ১০ রানে ক্লিংগার ফিরে যান।

এরপর আবু হায়দার রনি আঘাত হানেন খুলনা শিবিরে। দলীয় ২৯ এবং ব্যক্তিগত ২ রানে ধীমান ঘোষকে ফেরত পাঠান রনি।

দলীয় ৪৬ রানের মাথায় আঘাত হানেন সুনীল নারিন। ব্যক্তিগত ২৪ রানে নাজমুল হাসান শান্ত ফিরে যান সাজঘরে।

এরপর রাইলি রশুকে সঙ্গী করে দেখেশুনে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছিলেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। তবে ঢাকা ডায়নামাইটসের পাক তারকা শহীদ আফ্রিদি বাঁধ সাধেন তাতে। ১০ বলে ১৪ রান করা মাহমুদুল্লাহ ফিরে যান দলীয় ৭১ রানের মাথায়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন