শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭ ০৯:৪৬:১৭ পিএম

আমাকে ভাড়াটে বউ বানিয়ে ফেলেন ফারাজে

অর্থনীতি | বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৭ | ০১:২৭:৩১ এএম

প্রথম রাতের শারীরিক সম্পর্কের পর সাবেক বৃটিশ ইউকিপ নেতা নাইজেল ফারাজে তার প্রেমিকা, যাকে তিনি রক্ষিতা বানিয়ে রেখেছিলেন, সেই আনাবেলে ফুলার’কে বলেছিলেন, চাঁদের আলোতে তোমাকে বিস্ময়কর সুন্দর দেখিয়েছিল রাতে।

আর আগের রাতে তাদের জীবনে প্রথমবারের মতো যে শারীরিক সম্পর্ক হয়েছিল সে বিষয়ে আনাবেলে ফুলারের অনুভূতি জানতে চেয়েছিলেন তিনি। বলেছিলেন, তুমি কি এ জন্য অনুতপ্ত?

জবাবে আনাবেলে ফুলার বলেছিলেন- না। নাইজেল ফারাজেও অনুতপ্ত নন বলে মন্তব্য করেন। এরপর থেকে তাদের শারিরীক সম্পর্ক ক্রমাগত বৃদ্ধি পেতে থাকে। ক্রমশ একজন আরেকজনের দিকে অগ্রসর হন।

তবে একটি বিষয় স্পষ্ট। তাহলো, আনাবেলে ফুলার’কে এই সম্পর্কের কথা গোপন রাখতে বলেন ফারাজে। এ বিষয়ে আনাবেলে ফুলার বলেন, ফারাজে আমাকে বলেছিলেন তিনি আমাকে ভালোবাসেন। আমাকে সতর্ক করে দেন।

বলেন, মানুষ যদি আমাদের সম্পর্কের কথা জানতে পারে তাহলে আমার জীবন শেষ হয়ে যাবে। এ সম্পর্কের কথা গোপন রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। আমি জানতাম আমাদের মধ্যে যে সম্পর্ক তা ভিন্ন মাত্রার স্পেশাল। আমি প্রেমে পড়েছি। এ জন্য খুব খুশি আমি।

তারপর থেকে আমাদের সম্পর্ক দাঁড়িয়ে যায় একটি যথাযথ যুগলের মতো। আমি তখন থাকতাম মায়েলবিকে। যখনই ফারাজে ব্রাসেলস আসতেন তখনই তিনি আমার ফ্ল্যাটে উঠে পড়তেন। আমার এই ফ্ল্যাটেই তিনি রাখতেন তার কিছু পোশাক ও জুতা।

আবার কখনো আমরা অন্য মানুষের সঙ্গে দলবল নিয়ে বাইরে বেরুতাম। আমার মনে হতো সবাই জানে বা ভাবে যে, আমরা একটা আইটেম হয়ে গিয়েছি। এরই মধ্যে আমাকে তিনি একজন ভাড়াটে বউ বানিয়ে ফেলেন।

তার জীবন কিভাবে চলবে, অভ্যন্তরীণ ও পেশাদার জীবন কেমন হবে- সবই আমাকে নির্ধারণ করে দিতে হতো। এর মধ্য দিয়ে আমি তার জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠি। আনাবেলে ফুলার বলেন, ফারাজে ওই সময় ছিলেন ভীষণ উন্মনা।

তিনি প্রতিদিন সকালে একটি ভেজা তোয়ালে ফেলে যেতেন মেঝেতে। সেটা আমাকে তুলে নিতে হতো। সব কিছুতে তিনি লেজেগোবরে করে ফেলতেন। এর অনেক পরে ২০১৪ সালে তোরকুয়ি’তে দলীয় সম্মেলন হয়। সেখানে কানে ব্যথার অভিযোগ করেন ফারাজে।

আনাবেলে ফুলার বলেন, আমি তা বুঝতে পারি। কারণ, কয়েক দিন ধরে তার কানের ভেতর রয়ে গেছে ‘কিউ-টিপ’-এর ভাঙা অংশ। তবে তিনি সব সময় জুতা পালিশ করায় ছিলেন ওস্তাদ। এভাবে তার রক্ষিতা হয়ে থাকতে আমার কাছে ভালোই লাগছিল।

কিন্তু সময় পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমার অনুভূতি পাল্টাতে শুরু করে। সম্পর্কের প্রথম দিকটায় সকালে আমার ঘুম ভাঙতো তার কারণে। নাইজেল ফারাজে যখন ইংল্যান্ডে ফিরে যেতেন তখন আমার কাছে সবকিছু ভীতিকর মনে হতো। মনে হতো আমি নিঃসঙ্গ।

এ সময়ে তিনি আমাকে একটি ফোনও করতেন না। কারণ, তিনি বলতেন এ সময়টায় তিনি পরিবারের সঙ্গে থাকতেন। তার আরো একটা জীবন আছে, আরো একটা সংসার আছে একথা শোনার পর তা আমার কাছে খুব কষ্টের মনে হতে থাকে।

ফারাজে যে আমার কাছে আসেন তা তার স্ত্রী কিরস্টেন জানতেন। তাকে দলীয় কেউ একজন একথা বলে দিয়েছিলেন। ইংল্যান্ডের কেন্টে কখনো কখনো পরিবারের সঙ্গে থাকা অবস্থায় আমি তাকে ফোন করতাম। ফোন ধরতেন কিরস্টেন।

কখনো শুনতে পেতাম তিনি ফোনটি নাইজেল ফারাজের হাতে দিয়ে বলতেন- তার ফোন। আমি যে স্থানে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করছিলাম সেখানে আরেকজন বসে আছেন, এটা ভেবে আমার মধ্যে ক্রমাগত উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা বাড়তে থাকে। আমার ভেতরে ঘুণে ধরে।

আস্তে আস্তে আমি কয়েক মাসের মধ্যে সম্পর্ক ছিন্ন করা শুরু করি। তখন আমার ভেতরে কি অনুভূতি তা বলতে পারবো না। এসব বিষয়ে আমি নাইজেল ফারাজেকে বললাম। তিনি বললেন, তিনিও বিধ্বস্ত। এ জন্য নিজেকে দায়ী করলেন তিনি। আমার কাছে অনুনয় করলেন, চুপ থাকার জন্য। থেমে থাকার জন্য।

তিনি আমাকে বললেন, আমি তোমাকে ভালোবাসি। ২০০৬ সালের গ্রীষ্ম। তখনকার ইউকিপ দলের লন্ডন প্রেস অফিসে কাজ করতে বৃটেনে ফিরে আসেন আনাবেলে ফুলার। ওই বছর ৩রা নভেম্বর ছিল আনাবেলে ফুলারের ২৫তম জন্মদিন।

এদিন দু’জনের ভালোবাসা বোঝানোর জন্য নাইজেল ফারাজে তাকে ডায়মন্ডের একটি দুল উপহার দেন। শরতের দিকে একদিন ইস্ট সাসেক্সে বিচি হেড এলাকায় হাতে হাত রেখে হাঁটছিলেন আনাবেলে ফুলার ও নাইজেল ফারাজ। এ সময় তাদের সম্পর্কের ইতি টানার সিদ্ধান্তের কথা ফারাজেকে জানান ফুলার।

আনাবেলে ফুলার বললেন, আমাদের সম্পর্ক আর কাজ করছে না। আমার জীবনে আরেকজন নারী আমি চাই না। যেহেতু আমি তাকে ভালোবাসতাম তাই আমি চেয়েছিলাম একটি প্রকৃত বা খাঁটি রিলেশনশিপ। জবাবে তিনি বললেন, সবই বুঝতে পারেন তিনি। তবে তার সন্তান আছে।

তাদের বিষয়টি তিনি অগ্রাধিকার দেন। এরপর আসে ২০০৬ সালের ২৫শে নভেম্বর। এই তারিখে নাইজেল ফারাজের লেখা একটি চিঠি পান আনাবেলে ফুলার। এই চিঠিটি এখনো তার কাছে আছে।
(ফারাজে কি লিখেছিলেন সেই চিঠিতে জানতে চোখ রাখুন পরের পর্বে) এমজমিন

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন