মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ ১১:৫৫:০০ এএম

‘এখনকার নায়িকারা শুটিংয়ে ঘুমায়’

বিনোদন | রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭ | ১১:৫৬:৫৬ এএম

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন চলচ্চিত্র অভিনেতা ও প্রযোজক মনোয়ার হোসেন ডিপজল। তিনি আগের মতো আর সিনেমায় অভিনয় করেন না। তবুও সিনেমার জন্য তিনি যেন বিরাট কিছু। এফডিসির মানুষজন শত হতাশার মাঝে যাদের ভরসা করেন, তাদের মধ্যে ডিপজল অন্যতম। এখনো অনেকেই বিশ্বাস করেন ডিপজল ভূমিকা নিলেই চলচ্চিত্রের সব সংকট কেটে যাবে নিমিষেই। চলচ্চিত্রে সার্বিক সমস্যা ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে এবার খোলামেলা কথা বললেন ডিপজল।

ক্যামেরার সামনে দাঁড়াবেন কবে জানতে চাইলে ডিপজল বলেন, আগামী ৫ জানুয়ারি থেকে নতুন ছবির কাজ শুরু করব। নাম ‘পাথরের কান্না’। ‘এক কোটি টাকা’ নামে আমার আরো একটি ছবির কাজ বাকি রয়েছে। সেই ছবির কাজও শুরু করব। এছাড়াও আমার নিজের প্রযোজিত ৩টি এবং বাইরের ১ ছবির কাজ হাতে রয়েছে।

চলচ্চিত্রের বর্তমান পরিবেশের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ফিল্ম সম্পর্কে বর্তমানে কারো ধারণা নেই বললেই চলে। কীভাবে একটি ফিম্ম আসবে। সিনেমা হলে প্রদর্শিত হবে চলবে এই পরিবেশ এ সম্পর্কে কারো ধারণা নাই বর্তমানে। এখন যারা ছবি করছে তারা কি বুঝবে। টাকা আছে ছবি করছে চলে যাচ্ছে। নাটক আর ফিল্ম তো এক না। নাটকের ক্ষেত্রে একটা ভালো না লাগলে অন্য চ্যানেল দেখা যায়। কিন্তু একটা সিনেমা হলে একটা ফিল্মই তো চলে চ্যানেল পরিবর্তনের সুযোগ নাই। তাই দর্শকরা এক গেট দিয়ে ঢোকে আর অন্য গেট দিয়ে বের হয়। প্রযোজক একটা সিনেমা বানিয়েই ফিল্ম কি বুঝে যায়। পরের ছবি বানানোর তৌফিক আর হয় না। অন্যদিকে সিনেমার হলের মালিক হয়ে গেছে একজন আর সিনেমার মালিক হয়ে গেছে আরেকজন। এসব কারণে চলচ্চিত্রের বর্তমান পরিস্থিতি ভালো না।

নায়ক-নায়িকার সংকট নিয়ে ডিপজল বলেন, সিনেমায় এখন নায়িকার সংকট সবচেয়ে বেশি। সিনেমা বানানোর পর বেশির ভাগ প্রযোজকের আর খুঁজে পাওয়া যায় না। তাদের পরের ছবি বানানোর মতো অবস্থা থাকে না। নায়িকাও দেখা যায় ওই ওই প্রযোজক বা পরিচালকের ছবি করার জন্য বসে থাকে। এরপর আর কাজ পায় না। সিনেমায় অনেক সুন্দর সুন্দর মেয়ে এসেছে কিন্তু ওরা ফিল্ম কি বোঝে না।

তিনি বলেন, মাহির তো বিয়ে হয়ে গেছে। বাংলাদেশের কোনো নায়িকার বিয়ে হলে তার ছবি দর্শক দেখে না। ভারতে চলে। সেখানে অনেক উদাহরণ আছে। মাঝে সুন্দর একটা মেয়ে এসেছিল পরীমণি। তাকেও তো সেভাবে পাওয়া যাচ্ছে না। সবাই আসলে একটা জায়গাতে আটকা পড়ে গেছে। আমরা যারা আছি আমি কিংবা মৌসুমী। আমরা যদি নায়ক-নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করি তাহলে কি হবে? আমরা তো এখন সাপোর্ট মাত্র। ফিম্মে নতুন নায়ক-নায়িকা আসতে হবে। ‘এখনকার নায়িকারা শুটিংয়ে ঘুমায়’! কথার ঠিক নাই। সময় সচেতনতার অভাব। মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা, অপু বিশ্বাসের তো এমন বদনাম শুনি নাই কোনোদিন।

নায়কের প্রসঙ্গে ডিপজল বলেন, শাকিব তো বয়স্ক হয়ে গেছে। নতুন ছেলে আসছে অনেক। সাইমন সাদিক, আরিফিন শুভ, বাপ্পী চৌধুরী ভালো কাজ করছে। শাকিবের জ্বালা কেউ সহ্য করতে চায় না। সে তো সেটে দেরি করে আসে। একটা কাজ করতে গিয়ে সিনিয়র শিল্পীরা শাকিব দেরি করায় বসে ছিলেন। পরের দিন আমি নিজেও একই ভাবে বসে থাকলাম। কে কার জন্য বসে থাকে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন