শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮ ০৭:১৭:৪৬ পিএম

নোয়াখালীর সেনবাগে সুন্দরী গৃহবধু পরয়িায় জড়িয়ে প্রেমিকের হাত ধরে উধাও

মো: ইমাম উদ্দিন সুমন | জেলার খবর | নোয়াখালী | মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | ০১:১৭:১৪ পিএম

নাম তার রেহানা আক্তার রুমি (৩০) পিতা: সাহাব উদ্দিন, মাতা-মমতাজ বেগম গ্রাম- গোপালপুর, ইউনিয়ন-নবীপুর, উপজেলা-সেনবাগ, জেলা-নোয়াখালী । সেনবাগের কাদরা ইউপির জামালপুরের একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারের একমাত্র সন্তানের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় ২০০৭ সালের ১লা জুন। অনুষ্ঠান হয় ধুমধাম। স্বামী একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে সুনামের সাথে শিক্ষকতা করছেন। অভাব অভিযোগ নেই বললেই চলে।

দীর্ঘ ১১ বছরের দাম্পত্যজীবন চলছে সুখেই। পরিবারের কোল জুড়ে আসে ফুট ফুটে দুই পুত্র সন্তান। দু সন্তানকে বুকে নিয়ে পিতা,দাদা, দাদী ও স্বজনদের কতো স্বপ্ন। দুসন্তানকে আদর স্নেহে ১ জনকে প্রাইমারী ও অপরজনকে ভর্তি করা হয় মাদ্রাসায়।

২০১৭ সাল ওই পরিবারে নেমে আসে ঘনঅন্ধকারাচ্ছন্ন কালো অধ্যায়। কামিনী যামিনী পদ্ম- রজনীগন্ধার সৌরভে সৌরভিত একটি পরিবারের সম্মানহানী করলো সুন্দরী গৃহবধু রুমি। এমন অযাচিত কান্ড কোন পরিবারেই আসা করেনা। নিজ পুত্রের স্কুল ব্যাগে তার কাপড় চোপড় গুচিয়ে বাচ্চাটিকে স্কুলের দিকে এগিয়ে দেয়। এমন সময় আদরের সন্তান দোকান থেকে কিছু একটা নেয়ার বায়না ধরে।
কিন্তু না তার তো সময় নষ্ট করছে সন্তান । পরকীয়ায় মত্ত প্রেমিকের অপেক্ষার পালা। আর কি? মায়ের মাতৃস্নেহ থেকে বন্চিত করলো রাক্ষসী রুমী। এক পর্য্যায়ে বাচ্চাটিকে ধমক দিয়ে স্কুলে পাঠিয়ে দেয়। একটু একটু পথ এগিয়ে বার বার পেছনে তাকায় মায়ের দিকে। কাঁদো কাঁদো চোখের জল ফেলিয়ে শিশুটি স্কুলের দিকে এগিয়ে যায়। এটা যে তার শেষ চাহনি শেষ দেখা শেষ কথা অবুঝ শিশুটিতো বলতে পারবেনা?

সময়ের সাথে তালমিলিয়ে গৃহবধু নামের কলংক রুমী ১১ বছরের সংসার জীবন ত্যাগ করে পরকীয়ায় লিপ্ত পরপুরুষের সাথে পালিয়ে যায় অজানা ঠিকানায়।
ঘটনার দিন তাকে না পেয়ে দুপক্ষই খোঁজা খুঁজি করে ব্যর্থ হয় পরিবার। ব্যাপক অনুসন্ধানে করা হয় সেনবাগ থানায় জিডি। রুমি নামের সুন্দরী গৃহবধু হয় লাপাত্তা। গত ৯ দিনে ও মিললোনা তার সন্ধান। এ ঘটনায় রুমী নামের অপদার্থ,একটি পরিবারের সম্মানহানী যে কারোরই মনে রেখাপাত করবে নি:সন্দেহে।

সময়ের কণ্ঠস্বর।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন