মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ ০৯:৪০:৫৫ এএম

ডিএসইর চার ব্রোকারকে ৭০ লাখ টাকা জরিমানা

অর্থনীতি | মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | ০৯:২৫:০৭ পিএম

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চার ব্রোকারেজ হাউসকে ৭০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করায় মঙ্গলবার বিএসইসির ৬১৬তম কমিশন সভায় এ জরিমানা করার সিদ্ধান্ত হয়।

জরিমানা হওয়া ব্রোকারেজ হাউসগুলোর মধ্যে গ্লোব সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ২০ লাখ, এস বি সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ১৫ লাখ, খুরশিদ সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ১০ লাখ এবং সার্প সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বিএসইসি জানিয়েছে, চারটি ব্রোকারেজ হাউসই কনসোলেটেড কাস্টমারদের অ্যাকাউন্টে ঘাটতি দেখিয়েছে। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানগুলো সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুল ১৯৮৭-এর রুল ৮এ এর সাব রুল ১ ও ২ লঙ্ঘন করেছে। পাশাপাশি গ্লোবাল সিকিউরিটিজ অনুমোদিত প্রতিনিধিদের নামে বিও অ্যাকাউন্ট খুলে আইন লঙ্ঘন করেছে।

এস বি সিকিউরিটিজ পরিচালক, পরিচালকদের আত্মীয় এবং কর্মচারীদের ঋণ দিয়ে বিএসইসির নির্দেশনা লঙ্ঘন করেছে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি নগদ হিসাব এবং ‘জেড’ গ্রুপের শেয়ারে ঋণ দিয়েও বিএসইসির নির্দেশনা লঙ্ঘন করেছে। পাশাপাশি বিও হিসাবে ঋণাত্মক ব্যালান্স থাকা সত্ত্বে ও টাকা উত্তোলন করে ব্রোকারেজ হাউজটি স্টক-ডিলার, স্টক-ব্রোকার ও অনুমোদিত প্রতিনিধি বিধিমালা লঙ্ঘন করেছে। একই সঙ্গে ৫ লাখ টাকার বেশি নগদ গ্রহণের মাধ্যমে সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করেছে।

খুরশিদ সিকিউরিটিজ ডিপির ক্লিয়ারিং অ্যাকাউন্ট ও ব্যাক অফিসের মধ্যে গরমিল করে স্টক-ডিলার, স্টক-ব্রোকার ও অনুমোদিত প্রতিনিধি বিধিমালা লঙ্ঘন করেছে। পাশাপাশি একজন বিনিয়োগকারীকে তিন মাসের গড় নেট ক্যাপিটাল ব্যালান্সের ২৫ শতাংশের অতিরিক্ত মার্জিন ঋণ দিয়ে মার্জিন রুল ১৯৯৯-এর ৫(১) ধরা লঙ্ঘন করেছে। এছাড়া নগদ হিসাবে ঋণ দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি মার্জিন রুলের ৩(১) ধরা ভঙ্গ করেছে।

সার্প সিকিউরিটিজ পরিচালক, কর্মচারী এবং তাদের আত্মীয়দের ঋণ দিয়ে বিএসইসির নির্দেশনা লঙ্ঘন করেছে। পাশাপাশি পরিচালকদের হিসাবে নেগেটিভ ব্যালেন্স থাকার পরও টাকা উত্তোলন করে স্টক-ডিলার, স্টক-ব্রোকার ও অনুমোদিত প্রতিনিধি বিধিমালা লঙ্ঘন করেছে। এছাড়া একজন বিনিয়োগকারীকে তিন মাসের গড় নেট ক্যাপিটাল ব্যালান্সের ২৫ শতাংশের অতিরিক্ত মার্জিন ঋণ দিয়ে আইন লঙ্ঘন করেছে। একই সঙ্গে ৫ লাখ টাকার বেশি নগদ গ্রহণ ও প্রদান করে এবং অনুমোদিত প্রতিনিধিদের নামে বিও হিসাব পরিচালনার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘন করেছে। নগদ হিসাবে ঋণ প্রদান করেও মার্জিন রুল ভঙ্গ করেছে ব্রোকারেজ হউসটি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন