শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ০৮:০৮:১৭ পিএম

ভিডিওটা ছাড়ার পর আমি হতাশ হয়ে পড়ি: জেসিয়া

বিনোদন | বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭ | ০৩:৫৬:৩৬ পিএম

মাসব্যাপী ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ শেষে দেশে ফিরেছেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ জেসিয়া ইসলাম। রোববার রাতে তিনি চীন থেকে ঢাকায় ফেরেন। গত ২০ অক্টোবর ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে চীনে পৌঁছান জেসিয়া ইসলাম। প্রতিযোগিতার সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রায় এক মাস পর দেশে ফিরলেন তিনি।

‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ পর্বে প্রতিযোগীরা ভিডিওর মাধ্যমে নিজের দেশ আর সংস্কৃতি উপস্থাপন করেন। তার ব্যাতিক্রম ছিলেন না ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ জেসিয়া ইসলামও। তিনিও একটি ভিডিওর মাধ্যমে দেশের সংস্কৃতি উপস্থাপন করেন। আর সেখানে পাশ করেন। আর তার যে ভিডিওটি তৈরি করা হয়েছিল, সেটি খুব অল্প সময়ের মধ্যে করা হয়।

আর সে ভিডিও প্রসঙ্গে জেসিয়া ইসলাম বলেন, অবশ্যই তা ভালো হয়নি। আমাকে বলা হয়নি যে এটা পরিচিতির ভিডিও। ওই ভিডিওটা ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনের দিন করা হয়েছে। আমাকে বলা হলো, দুই মিনিটের একটা ভিডিও হবে। বললাম কিসের? বলল, এমনি। আমার ধারণা ছিল না, এটা পরিচিতির ভিডিও। পরে ভিডিও দেখে আমি স্টুপিড হয়ে যাই। আমার ভিডিও দেখে সবাই বুঝতে পেরেছে, ওটা কোনোভাবে যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে করা হয়নি। আমি কতটা আপসেট ছিলাম, তা ভিডিও দেখে বুঝেছেন সবাই। এই ভিডিও ছাড়ার পর আমি হতাশ হয়ে পড়ি। আমি হয়তো প্রতারণার শিকার। ইচ্ছে করেই আমার সঙ্গে এমনটা করা হয়েছে।

‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতা থেকে যা শিখেছেন তা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সব পরিস্থিতিতে নিজেকে কীভাবে শক্ত রাখতে হয়, তা শিখেছি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে যত প্রতিযোগী এসেছেন, তাঁদের সবার চেয়ে আমার প্রস্তুতি ছিল সবচেয়ে কম। সব প্রতিযোগীর আয়োজক দেশ তাদের প্রতিযোগীদের যেভাবে সহযোগিতা করেছে, আমি তার কিছুই পাইনি। খুব মন খারাপ নিয়ে ঢাকা থেকে আমার যাত্রা শুরু হয়। চীনে পৌঁছার পর একসময় ভাবলাম, যখন এসে পড়েছি, শেষ পর্যন্ত লড়ে যাব। সবচেয়ে কম প্রস্তুতিতে সেরা চল্লিশে থাকতে পেরেছি, আমি তাতেই তৃপ্ত। এই প্রতিযোগিতা থেকে আমরা যা শিখেছি, তা পরবর্তী সময়ে আমার দারুণ কাজে লাগবে।

প্রসঙ্গত, মিস ওয়ার্ল্ড-২০১৭ প্রতিযোগিতায় সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে পড়েন বাংলাদেশ থেকে অংশ নেওয়া ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ জেসিয়া ইসলাম। ২০ সেমি-ফাইনালিস্টকে নিয়ে স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যায় চীনের সানাইয়া শহরে ৬৭তম মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার গ্রান্ড ফাইনালে অনুষ্ঠিত হয়। আর এতে চ্যাম্পিয়ন মুকুট অর্জন করেন ভারতীয় তরুণী মানুষী চিল্লার। ২১ বছর বয়সী হরিয়ানার মেয়ে মানুষী ৪০তম স্থান থেকে উঠে আসেন পঞ্চদশ স্থানে। তখনই আশা জাগে, মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট উঠতে পারে তার মাথায়। মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার ইতিহাসে মানুষী ছয় নম্বর ভারতীয় হিসেবে সেরার মুকুট জিতলেন। সর্বশেষ ২০০০ সালে ভারতের হয়ে বিশ্বসুন্দরীর খেতাব অর্জন করেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে এবারের আসরে প্রায় ১২০ জন সুন্দরী মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার অংশ নেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন