সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ ০১:২৫:৩৮ এএম

এইডস যে সেলিব্রেটিদের জীবন কেড়ে নিয়েছে

বিনোদন | শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১০:১২:১৩ এএম

বিশ্ব এইডস দিবস ১ ডিসেম্বর। মরণব্যাধি এইডসে আক্রান্ত হয়ে প্রতি বছর পৃথিবীতে অসংখ্য মানুষ মারা যাচ্ছে। এই তালিকায় রয়েছে অনেক সেলিব্রেটিরও নাম। তাদের মাঝে অভিনয় শিল্পী এবং গায়কই বেশি। এছাড়া অন্য সব পেশার জনপ্রিয় ব্যক্তিদের অনেকেই হার মেনেছেন এই ঘাতক যৌনরোগে।

রক হাডসন : ১৯৫০-৬০ এর দশকে লাখো তরুণীর হার্টথ্রব, সুদর্শন হলিউড অভিনেতা রক হাডসন ছিলেন বিরাট তারকা। ‘ম্যাগনিফিশেন্ট অবসেশন’ ‘অল দ্যাট হেভেন অ্যালাউস’ ‘জায়ান্ট’সহ বেশ কিছু সুপারহিট ছবির তারকা হাডসন এইডসে আক্রান্ত হন। খবরটি সবাইকে হতবাক করে দেয়। অবশেষে ৫৯ বছর বয়সে ১৯৮৫ সালে তার মৃত্যু হয়। তিনিই প্রথম একজন বড় তারকা, যিনি এইডসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

ফ্রেডি মারকারি : জনপ্রিয় ব্রিটিশ ব্যান্ড ‘কুইন’ এর মেইন ভোকালিস্ট ফ্রেডি জোরালো কণ্ঠের জন্য সমাদৃত ছিলেন। র‌্যাংকার ডটকমের জরিপে সর্বকালের সেরা গায়কের স্বীকৃতিও পেয়েছেন তিনি। এইডসে আক্রান্ত হয়ে ১৯৯১ সালে মাত্র ৪৫ বছর বয়সে মারা যান ফ্রেডি। অথচ তখন তিনি খ্যাতির চূড়ায়। ব্রিটিশ সঙ্গীতে অসাধারণ অবদানের জন্য পরের বছর মরণোত্তর ব্রিট অ্যাওয়ার্ড পান তিনি।

জিয়া কারানগি : ১৯৭০ ও ৮০-এর দশকে আমেরিকান মডেল জিয়া কারানগি ছিলেন জনপ্রিয় এক নাম। তাকে ‘প্রথম সুপার মডেল’ হিসেবেও স্বীকৃতি দেন কেউ কেউ। সেই জিয়া এইডসের কাছে হার মেনে মাত্র ২৬ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন ১৯৮৬ সালে।

আইজাক আসিমভ : রাশিয়ায় জন্ম নেয়া আমেরিকান জনপ্রিয় লেখক আইজাক আসিমভ। সায়েন্স ফিকশন লেখার জন্য খ্যাতি পাওয়া এই লেখক রহস্য উপন্যাস-গল্পও লিখেছেন। যদিও তাকে সায়েন্স ফিকশনের সেরা লেখক বলা হয়। গুণী এই লেখক ১৯৯২ সালে ৭২ বছর বয়সে এইডসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

অ্যান্থনি পারকিনস : আমেরিকান অভিনেতা ও গায়ক। মূলত আলফ্রেড হিচককের অসাধারণ ছবি ‘সাইকো’র কারণে পরিচিতি পান তিনি। অ্যান্থনি পারকিনস ১৯৯২ সালে এইডসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর।

ইজি ই : আমেরিকান র‌্যাপ সং আর্টিস্ট ইজি ই, তার আসল নাম এরিক লিন রাইট। তাকে বলা হতো ‘গডফাদার অফ গ্যাংস্টা র‌্যাপ’। এইডসের কাছে হার মেনে ১৯৯৫ সালে ৩২ বছর বয়সে মারা যান তিনি।

ড্যাক র‌্যাম্বো : ‘দ্য গানস অফ উইল সনেট’ ‘ডালাস’সহ অনেকগুলো জনপ্রিয় টিভি সিরিজে অভিনয় করা আমেরিকান এই অভিনেতা ৫২ বছর বয়সে ১৯৯৪ সালে মারা যান এইডসের কারণে।

সিরিল কলার্ড : ফ্রান্সের জনপ্রিয় লেখক, অভিনেতা, গায়ক সিরিল কলার্ড ছিলেন সুদর্শন।সমকামীও ছিলেন। সেটাই তার কাল হয়েছিল।৩৬ বছর বয়সে ১৯৯৩ সালে তিনি এইডসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

এরিক ব্রান : ডেনমার্কের প্রতিভাবান শিল্পী ছিলেন এরিক ব্রান। ব্যালে ড্যান্সার, পরিচালক, কোরিওগ্রাফার, গায়ক, অভিনেতা অনেকগুলো পরিচয় ছিলো তার। এই গুণী শিল্পী ৫৮ বছর বয়সে এইডসের শিকার হয়ে মারা যান। সালটা ছিল ১৯৮৬।

জন হারগ্রেভস : তিন বার অস্ট্রেলিয়ান ফিল্ম ইনস্টিটিউট অ্যাওয়ার্ড পাওয়া অস্ট্রেলিয়ার জনপ্রিয় অভিনেতা জন হারগ্রেভস ছিলেন সমকামী। এইডসে ভুগে ৫১ বছর বয়সে ১৯৯৬ সালে মারা যান তিনি।

আমেরিকাসহ পশ্চিমা অনেকগুলো দেশে এমন অনেক সেলিব্রেটি অল্প বয়সে এইডসের কাছে হেরে মৃত্যুবরণ করেছেন। তবে এইচআইভি ভাইরাসের সাথে এখনও লড়ছেন এমন বিখ্যাতরাও আছেন। যেমন আমেরিকার কিংবদন্তী বাস্কেটবল খেলোয়াড় ম্যাজিক জনসন ১৯৯১ সালে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত হন। এখনো তিনি লড়ে চলেছেন এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে। আরেক আমেরিকান অভিনেতা চার্লি শিনও এইচআইভি পজিটিভ। তারও লড়াইও অব্যাহত আছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন