বুধবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ ০৯:২৫:১১ এএম

বিপিএল ২০১৭: কুমিল্লার পরাজয় মানতে পারছেন না সমর্থকরা!

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১২:২৮:০৪ পিএম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) রংপুর রাইডার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচ নিয়ে ছিল নানা বিতর্ক। ঐ ম্যাচ মাঠে গড়ানোর আগেই হানা দিয়েছিল বৃষ্টি।

সংবাদমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানা যায়- বৃষ্টির কারণে খেলা সম্পন্ন না হলে বিপিএলের বাই লজ অনুযায়ী ফাইনালে উত্থিত হবে দুই দলের মধ্যে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দল, অর্থাৎ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

তবে শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত সময়েই শুরু হয় দ্বিতীয় কোয়ালিয়াফার ম্যাচটি। ফের শুরু হলো বৃষ্টি এবং সেই সাথে শুরু হল বিতর্ক। ফের ম্যাচ শুরুর জন্য অফিশিয়ালরা সর্বশেষ যে নির্ধারিত সময় বেঁধে দিয়েছিলেন, তার আগেই থেমে যায় বৃষ্টি।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তখন ম্যাচ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ৫ ওভার। তবে মাঠ প্রস্তুতি ও খেলোয়াড়দের সলাপরামর্শে সেই সময়েরও অনেকটা কেটে যায়। ম্যাচ সম্পন্ন করতে তখন উপায় ছিল একটাই- সুপার ওভার।

তবে সুপার ওভারে ম্যাচ না গিয়ে পরেরদিন অসমাপ্ত অংশ সম্পন্নের কথা জানানো হয়। এরপর বিভিন্ন গণমাধ্যমে দাবি করা হয়, টুর্নামেন্টের আইন ভেঙেছে খোদ বিপিএল কর্তৃপক্ষ; যা রংপুরের পক্ষে গেলেও এসেছে কুমিল্লা বিপক্ষে।

এ নিয়ে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে বিসিবি। সোমবার রাতে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সূচিতে রিজার্ভ ডে না থাকা সত্ত্বেও একদিন পিছিয়ে ম্যাচ সম্পন্ন করাতে কোনো আইন ভঙ্গ হয়নি। সেই সাথে নিজেদের দাবির পক্ষে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যাও দিয়েছে দেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

এতে বলা হয়, পঞ্চম বিপিএলের ম্যাচ আয়োজনের শর্তের ধারা ১৬.১২ অনুযায়ী- এলিমিনেটর, কোয়ালিফায়ার-১ অথবা কোয়ালিফায়ার-২ এর কোনো ম্যাচ টাই হলে অথবা কোনো ফলাফল না আসলে দুটি পদক্ষেপ গ্রহণ করা যেতে পারে- ১. সুপার ওভারের মাধ্যমে জয়ী দল নির্বাচন করা, ২. নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সুপার ওভার আয়োজন করা না গেলে অথবা সুপার ওভার টাই হলে, যে দল পয়েন্ট টেবিলে এগিয়ে ছিল তারাই জয়ী বলে বিবেচিত হবে।

বিপিএল, বিসিবি এবং আইসিসির টি-২০ ম্যাচ আয়োজনের শর্তের ১৬.১.৩ নম্বর ধারা অনুযায়ী, কোনো ম্যাচে উভয় দল অন্তত ৫ ওভার করে ব্যাটিং করতে না পারলে ম্যাচটি ফলাফলহীন বলে গণ্য হবে। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্সের মধ্যকার ম্যাচে রংপুর ব্যাট করেছিল ৭ ওভার, অন্যদিকে কুমিল্লা ব্যাট হাতে ক্রিজে নামতেই পারেনি। বাই লজ অনুযায়ী ৩০ মিনিট সময় বর্ধিত করা হলেও ঐ সময় কুমিল্লার কমপক্ষে ৫ ওভার ব্যাটিং করার জন্য যথেষ্ট সময় ছিল না। ফলে ম্যাচ অফিশিয়ালরা দুই দলের টিম ম্যানেজমেন্টকেই ম্যাচ সুপার ওভারে গড়ানোর ব্যাপারে অবহিত করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সুপার ওভার খেলতে কোনো দল অসম্মতি জানালে প্রতিপক্ষ দলকে বিজয়ী বলে ঘোষণা করা হবে। তবে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে দুই দলই সুপার ওভার খেলতে অসম্মতি জানায়। এতে ম্যাচের ফল নির্ধারণে আবার দেখা দেয় বিপত্তি। পরবর্তীতে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের পক্ষে ম্যাচের বাকি অংশ পরেরদিন সম্পন্ন করার প্রস্তাব দিলে দুই দলই এতে রাজি হয়। আর এ কারণেই ১০ ডিসেম্বরের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচ সম্পন্ন হয়েছে ১১ ডিসেম্বর, ফাইনালের (১২ ডিসেম্বর) ঠিক আগেরদিন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে হারিয়ে রংপুর রাইডার্স ফাইনালে ওঠায় কুমিল্লার সমর্থকদের কাছে এই ম্যাচ নিয়ে বিতর্ক রূপ নিয়েছে ক্ষোভে। তবে বিসিবির প্রেস বিজ্ঞপ্তির পর এটা পরিষ্কার- বিসিবির সিদ্ধান্ত এসেছে সঠিক পথেই; এতে অবিচার হয়নি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের প্রতি, কিংবা সুবিধা পায়নি রংপুর রাইডার্সও।

তবে কুমিল্লার পরাজয় মানতে পারছেননা সমর্থকরা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়।

মুসলিম আহমেদ নামক এক ব্যক্তি জানান, ‘কোন ব্যাখ্যা ট্যাখ্যা নেই, সম্পূর্ণ বানোয়াট একটি টূর্নামেন্ট! ইচ্ছানুযায়ী নিয়ম আর প্রতিটি ম্যাচে যত্তসব হাবিজাবি দেখা যায়!! আসলে তামিমকে ফাইনাল থেকে ঠকানো হলো!’

সাইফুল ইসলাম নামক এক ব্যক্তি জানান, ‘কুমিল্লা হারেনি, হেরেছে ক্রিকেট। অভিনন্দন রংপুর ! অভিনন্দন আম্পায়ার ! অভিনন্দন বিসিবি ! অভিনন্দন জালাল ইউনুস ! যে দেশে স্বয়ং ক্রিকেটের পরিচালকরা (বিসিবি) ম্যাচ ফিক্সিং করে সে দেশে ক্রিকেট কতটুকু আর সুগম্য হবে। আর আম্পায়ার গুলোর কথা বাদই দিলাম। আমার মনে হয় একটা অন্ধ যদি আম্পায়ারিং করতো তাহলে আরো ভালো ডিসিশন দিতে পারতো। বিসিবির বরাবরই টুর্নামেন্টের শুরু থেকে কুমিল্লার বিরুদ্ধে ছিলো।কিছু বললেই একটা ভয় দেখায় বিপিএল ফ্রাঞ্চাইজি থেকে বাদ দিয়ে দিবো। আল্লাহ জানে আর বিসিবি জানে কত টাকার বিনিয়ময়ে ক্রিকেটকে বিক্রি করছে বিসিবি কামলা রংপুইরাদের কাছে। কুমিল্লা হারলেও মনে কষ্ট নেই,কারন কুমিল্লাই সেরা, কুমিল্লাই জয়ী হয়েছে।ফাইনালে মনে ঢাকা বা রংপুর কিছুই থাকবে না থাকবে শুধু কুমিল্লা। কুমিল্লা হারেনি হেরেছে ক্রিকেট। ঠকানো হয়েছে কুমিল্লাকে। সেইম অন বিসিবি, সেইম অন রংপুর, সেইম অন ঐ সমস্ত মানুষদের যারা নিজের স্বার্থে ক্রিকেটের এই অন্যায়কে সমর্থন দিয়েছে।’

এভাবে আরো অনেকেই ফেসবুকে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন