বুধবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ ০৯:৪১:৫১ এএম

সন্ধ্যার পরে মিরপুরে ঝড় তুলবেন ম্যাককালাম!

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০২:৩২:৫৬ পিএম

ইলিমিনেটর রাউন্ডে খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করেছিলেন ক্রিস গেইল। সেই সেঞ্চুরিতে ভর করে কোয়ালিফায়ার-২ এ উঠে আসে রংপুর রাইডার্স। এরপরই পোস্ট ম্যাচে কথা বলতে এসে রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেছিলেন, এবার ম্যাককালামের ব্যাটে রান চাই। সন্ধ্যার পরে মিরপুরে ঝড় তুলবেন ম্যাককালাম!

অধিনায়কের মনের কথা তাহলে সত্যি সত্যি বুঝতে পারলেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম! ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেললেন ৪৬ বলে ৭৮ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংস। তার এই ইনিংসটি সাজানো ৯ ছক্কায়। ৫৪ রানই এলো ছক্কা থেকে। বাউন্ডারি ১টি। অর্থ্যৎ মোট ৫৮ রান এলো বাউন্ডারি আর ওভার বাউন্ডারি থেকে। যদিও, ম্যাককালাম নায়ক হতে পারলেন না। হলেন সাইড নায়ক। কারণ, তার জুটির সতীর্থ জনসন চার্লস যে সেঞ্চুরি উপহার দিয়ে ফেলেছেন!

বিপিএলে প্রথমবার খেলতে এসে শুরু থেকে যেভাবে নিজেকে হারিয়ে খুঁজছিলেন, তাতে তার সামর্থ্য নিয়েই প্রশ্ন উঠে গেছে। জাতীয় দল থেকে তো বহু আগেই অবসর নিয়েছেন। এবার কী তবে ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেট টি-টোয়েন্টি থেকেও অবসর নেয়ার সময় হয়ে এলো তার!

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই তো বিপিএলে যাত্রা শুরু হয়েছিল ম্যাককালামের। সেই ম্যাচে করেছিলেন মোটে ১৩ রান। ক্রিস গেইলের সঙ্গে মিলে ম্যাককালাম ঝড় তুলবেন এবারের বিপিএলে- এটাই ছিল সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয়; কিন্তু প্রথম ম্যাচ থেকেই কেমন যেন নিষ্প্রভ বিধ্বংসী এই জুটি। দর্শকরাও হতাশ হয়ে পড়েছিল তাদের দু’জনের ওপর। বিশাল অংকের টাকা পারিশ্রমিক দিয়ে এই দু’জনকে বিপিএলে এনে লসের খাতায় নাম লেখাতে যাচ্ছিল রংপুর।

ম্যাককালামের ব্যাট থেকে এর আগের ১০টি ইনিংসে সর্বোচ্চ এসেছিল মাত্র ৪৩ রান। সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে। এছাড়া নিজের দ্বিতীয় ম্যাচে সেই সিলেটের বিপক্ষেই খেলেছিলেন ৩৩ রানের ইনিংস। এছাড়া কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের ফিরতি ম্যাচে খেলেছিলেন ২৪ রানের ইনিংস।

বিধ্বংসী এই দুই ব্যাটসম্যানের মধ্যে গেইল ইলিমিনেটরেই নিজেকে প্রমাণ করে দিলেন। অসাধারণ এক সেঞ্চুরি করে বড় ম্যাচের নায়ক হয়েই থাকলেন সেই ম্যাচে। ম্যাককালামের ওপর মানসিকভাবেও চাপ ছিল, নিজেকে নায়কে পরিণত করার।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ফাইনালে ওঠার লড়াই কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে প্রথমেই গেইল আউট হয়ে গেলেন। ১০ বল খেলে করেছিলেন মাত্র ৩ রান। তাকে কেমন যেন খোঁড়াতেও দেখা গিয়েছিল তখন। এরপর জনসন চার্লসের কিছুটা ঝড়, ৭ ওভারে ৫৫ রান তোলার পরই বৃষ্টি নামে।

যে কারণে শেষ পর্যন্ত ম্যাচ একদিন স্থগিত করে নিয়ে আসা হয় সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত। আগেরদিন খেলা যেখানে শেষ হয়েছিল সেখান থেকেই আবার শুরু হলো আজ। উইকেটে ৬ বলে ৪ রান নিয়ে ছিলেন ম্যাককালাম। আর ২৬ বলে ৪৬ রান নিয়ে ছিলেন জনসন চার্লস।

বিরতির সময়টা বেশ ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছেন ম্যাককালাম। আগেই তো উইকেট চিনে এসেছেন। রাতে এবং আজ দিনের প্রথমাংশে হয়তো নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুতও করে ফেলেছিলেন। সুতরাং মাঠে নামার পরই ঝড় তুললেন তিনি কুমিল্লার বোলারদের ওপর। মেহেদী হাসান, হাসান আলি, শোয়েব মালিক, সাইফউদ্দিন কিংবা আল আমিন হোসেনদের একের পর এক বাউন্ডারির ওপারে আছড়ে ফেলতে লাগলেন।

৯ ছক্কা তারই প্রমাণ। বড় ম্যাচের খেলোয়াড় যে তিনি, সেটাই আবার প্রমাণ করে দিলেন। গ্যালারিতে উপস্থিত দর্শকরাও মন ভরে ম্যাককালামের উত্তাল উইলোবাজি দেখলো। দেখতে দেখতে কেউ কেউ ২০০৮ সালে আইপিএলের প্রথম আসরে প্রথম ম্যাচে কেকেআরের হয়ে সেই ম্যাককালামের ১৫৮ রানের ইনিংসটির কথাও স্মরণ করা শুরু করে দিয়েছিলেন। সঙ্গে জনসন চার্লসের বোনাস সেঞ্চুরি তো ছিলই। এই দু’জনের জুটিতে উঠলো ১৫১ রান। তাতেই রংপুরের সংগ্রহ গিয়ে দাঁড়াল ৩ উইকেট হারিয়ে ১৯২ রান।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন