শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১২:৪০:৪৫ পিএম

রংপুরের শিরোপার জন্য সবথেকে বড় কৃতিত্বটা ম্যাশ’কেই দিলেন গেইল

খেলাধুলা | বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০৫:৫১:৪৮ পিএম

রংপুর রাইডার্সকে শিরোপা জিতিয়েও ক্রিস গেইলের মন খারাপ। পুরো আসরে ১১ ইনিংস ব্যাটিং করলেও বোলিং পেয়েছেন মাত্র এক ওভার। স্বঘোষিত বিশ্বসেরা অফস্পিনার গেইল। কিন্তু মাত্র এক ওভার দেয়ায় অধিনায়ক মাশরাফির উপর যত রাগ গেইলের। মাশরাফি নিজের কোর্টে বল না রেখে কোচ টম মুডির উপর চাপিয়ে দেন। ওখানে গেইলের কিছু করার নেই।

বিশ্বজুড়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ফেরি করে বেড়ান তিনি। নানান দল, নানান অধিনায়ক, নানান খেলোয়াড়ের সঙ্গে খেলার সুযোগ হয়েছে তার। তবুও মাশরাফি তার কাছে ভিন্ন। ভিন্ন একাধিক কারণে; তার নেতৃত্বগুণ, তার পাগলাটে আচরণ, তার অসাধারণ ধৈর্য্য এবং দলগত প্রচেষ্টার কারণে। একবার দুবার নয়, মাশরাফির কাছে এসে এর প্রমাণ ক্রিস গেইল পেয়েছেন একাধিকবার।

তাই রংপুরের শিরোপার জন্য সবথেকে বড় কৃতিত্ব ক্রিস গেইল দিয়েছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। ক্রিস গেইল সোজাসাপ্টা বলেছেন,‘ম্যাশ দারুণভাবে দলটা পরিচালনা করেছে। আমরা শুরুর দিকে সুযোগ হারাচ্ছিলাম। আমাদের হাত থেকে অনেক সাফল্য বেরিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু সঠিক সময়ে ঠিকই আমরা ঝলসে উঠেছি।’

স্বদেশী ড্যারেন স্যামি গেইলের ট্রফিসহ ছবি ইন্সট্রাগামে পোস্ট করে লিখেছেন,‘দ্য ডন ব্রাডম্যান অফ টি-২০ ক্রিকেট।’ প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ক্রিকেটের এ ছোট্ট ফরম্যাটে ১১ হাজার রান করার কীর্তি গড়া গেইলকে যদি ব্র্যাডম্যান বলা হয় তাহলে ভুল হয়তো হবে না। সেই টি-টোয়েন্টির ‘ব্র্যাডম্যান’ মাশরাফিকে নিয়ে উল্লসিত, উচ্ছ্বাসিত,‘ম্যাশ অসাধারণ অধিনায়ক। তার অভিজ্ঞতাও দারুণ। ঠান্ডা মাথার সতেজ মানুষ। এমন সময়ে পাগলাটে কিছু কাজ করবে যেগুলো আপনাকে সতেজ করে তুলবে। আপনিও প্রাণবন্ত হয়ে উঠবেন।’

‘ম্যাশের নেতৃত্বে খেলা সব সময়ই দারুণ কিছু। কখনো হারার আগে হারতে দেখিনি। খুব ভালো একজন শ্রোতাও। আমাদের দলে ম্যাককালামও ছিল। যখন যে পরামর্শ দিয়েছে সেটা মন দিয়ে শুনেছে। ওর প্রতি দলের সবার শ্রদ্ধাবোধও দারুণ।’- যোগ করেন ক্রিস গেইল।

শিরোপা জয়ের পর মাঠে উদযাপন করতে পারেননি গেইল। তবে টিম হোটেলে শিরোপা উদযাপন করেছেন রাতভর। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সে ছবি গেইল নিজেই পোস্ট করেছেন।

ফ্রাঞ্চাইজি লিগ মাতানো শেষ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ সামনেই। গেইল দলের সঙ্গে যোগ দিবেন কিছুদিনের মধ্যেই। এরপর বিশ্বকাপের কোয়ালিফাইয়ারও খেলতে হবে তাদেরকে।

বিশ্বকাপে দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা যদি না থাকে তাহলে একটি তারা তো খসে পরবে। গেইলের প্রত্যাশা ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোয়ালিফাইয়ার পার করে মূল বিশ্বকাপে খেলবে,‘আমাদের জন্য কোয়ালিফাইয়ার খুব গুরুত্বপূর্ণ। সামনেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ। আশা করছি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে এবার ভালো কিছু করতে পারব। আমাকেও সেখানে গিয়ে দ্রুত মানিয়ে নিতে হবে। প্রত্যাশা করছি কোয়ালিফাইয়ারে ভালো করে বিশ্বকাপে খেলতে পারব আমরা।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন