বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ০১:১৫:২৮ এএম

স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা

জেলার খবর | রাজশাহী | বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১২:১৮:৫৮ পিএম

রাজশাহীর বাঘায় স্ত্রীকে হত্যা পর আত্মহত্যা করেছেন আবদুল মান্নান (৫০) নামে এক ব্যক্তি। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার পাকুড়িয়া এলাকা থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। একই সময় তার বাড়ি থেকেই উদ্ধার করা হয় স্ত্রী কাজলী বেগমের (৪৫) মরদেহ।

ভোররাতে অচেতন অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নেয়ার পর কাজলী বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। পরে মরদেহ বাড়ি নিয়ে যান স্বজনরা।

আবদুল মান্নান ও কাজলী বেগম দম্পতির দুই ছেলে। বড় ছেলে রিশন আহম্মেদ লালপুরে নানার বাড়ি থেকে মঞ্জিলপুকুর কলেজে লেখাপড়ে করেন। ছোট ছেলে সাব্বির হোসেন কালিদাসখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

বৃহস্পতিবার রাতে সাব্বির বাড়িতেই ছিল। তার ভাষ্য, রাত সাড়ে তিনটার দিকে তার মা চেঁচিয়ে ওঠেন। ওই সময় পাশের ঘরে শুয়েছিলো সে। চিৎকার পেয়ে দাদি আফরোজা বেগমের সঙ্গে সেও মায়ের ঘরে যায়। অচেনতন অবস্থায় দ্রুত মাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়া হয়। সেখানে নেয়ার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে মরদেহ বাড়িতে নেয়া হয়। এরপর তার বাবা বাাড়ির অদূরে লিচু বাগানে গলায় ফাঁস দেন। তার দাবি, মাকে হত্যার পর বাবা আত্মহত্যা করেছেন।

জানতে চাইলে বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হাসান বলেন, মরদেহ দুটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল মর্গে নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

তিনি আরো বলেন, আবদুল মান্নান আত্মহত্যা করেছেন, এটি নিশ্চিত। তবে তিনি স্ত্রীকে খুন করেছেন এটি নিশ্চিত নয় পুলিশ। ওই গৃহবধূর শরীরে আঘাতের চিহ্ন নেই। এনিয়ে আইনত ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ।

ওসি বলেন, আবদুল মান্নানের পরিবার দাবি করছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে কাজলী বেগম মারা গেছেন। তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কোনো বিরোধও ছিলো না। রাতে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে মৃত বাবার চল্লিশা আয়োজনের প্রস্তুতি চূড়ান্ত করেন আবদুল মান্নান। আবদুল মান্নানের আত্মহত্যার কারণও জানাতে পারেনি পরিবার।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন