শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ০৩:০১:০১ এএম

গর্ব করে বলুন ‘আমি বাংলাদেশী’

জাতীয় | শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০৯:১২:৩৪ পিএম

বাংলাদেশ শব্দটা শুধুমাত্র একটা দেশের নাম না। বাংলাদেশ একটা ইতিহাস। এক ত্যাগের ইতিহাস, এক বিজয়ের ইতিহাস, এক উজ্জ্বলের প্রতীক। আর বাঙ্গালী শুধুমাত্র জাতি না। বাঙ্গালী এক আত্মত্যাগ, এক স্বাধীনতা, অর্জন, এক বুক রক্ত, শত মায়ের কষ্ট।

আজ শনিবার (১৬ই ডিসেম্বর) আমাদের বিজয় দিবস। এ বিজয় কোনো সাধারণ বিজয় না। এ বিজয় শত ত্যাগের জয়। শত শত মায়ের কষ্ট, বোনের হাহাকার, ভাইয়ের বুক থেকে ঝরে পড়া রক্ত।

আর যারা বাঙ্গালী বলে পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করেন, বাংলাদেশকে ছোট, অনুন্নত, অসমৃদ্ধ দেশ মনে করেন তারা আজ থেকে গর্ব করে মাথা উচুঁ করে বলুন বাঙালী, আমি বাঙালী। সমৃদ্ধ আমাদের দেশ। প্রকৃতির এক অপরুপ সৃষ্টি আমার দেশ।

জেনে নিন দেশের অর্জনগুলো। তুলে ধরুন বিশ্বের বুকে আর মাথা উচুঁ করে বলুন আমি বাংলাদেশী। আমি বাঙ্গালী।

বাংলাদেশের সমৃদ্ধি:


১. সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে ৩য়।
২. আলু উৎপাদনে বাংলাদেশ ৮ম।
৩. ইলিশ মাছের স্বত্ব বাংলাদেশের।
৪. মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের ৪র্থ।
৫. চাল উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে ৪র্থ।
৬. চিংড়ি রপ্তানিতে বাংলাদেশ অন্যতম।
৭. পরিবেশ সহিষ্ণু ধান উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষে।
৮. খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ ৩৯৬.৮৮ লক্ষ মেট্রিক টন খাদ্য উৎপাদন।
৯. অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ২য় দ্রুতগামী দেশ বাংলাদেশ।
১০. ২০১৭- ২০১৮ অর্থবছরে বাংলাদেশ রপ্তানি আয় ৩৪ বিলিয়ন ডলার।
১১. রেমিট্যান্স উপার্জনে বাংলাদেশ বিশ্বে ৭ম।
১২. অর্থনৈতিক বিনিয়োগের ১১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।
১৩. বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ১৬০২ মার্কিন ডলার।
১৪. আউটসোর্সিং-এ বাংলাদেশ ২য়।
১৫. নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের অবস্থান ৬ষ্ঠ।
১৬. জিডিপির দিক দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ৩২টি অর্থনৈতিক দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩১ তম।
১৭. পাট উৎপাদনে বাংলাদেশ ২য় রপ্তানিতে ১ম।
১৮. বিশ্বের ১৩৫ টিরও বেশি দেশে বাংলাদেশ থেকে ঔষধ রপ্তানি করা হয়।
১৯. মোবাইল ব্যাংকিং-এ বাংলাদেশ ২য়।
২০. নারী-পুরুষ লিঙ্গ সমতায় দক্ষিণ এশিয়ায় ১ম।
২১. পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশ ২য়।
২২. বাংলাদেশের ব্রাক ব্যাংক বিশ্বের ১ নম্বর বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।
২৩. ২০১৬ সালে বিশ্বের সবচেয়ে আশাবাদী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ প্রথম।
২৪. বাংলাদেশের পারমানবিক যুগে প্রবেশ চলমান।
২৫. ঢাকা মেট্রো রেল চলমান।
২৬. বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চলমান।
২৭. ঢাকা- চট্টগ্রাম ৪ লেন হাইওয়ে।
২৮. পদ্মা সেতু চলমান।
২৯. ঢাকা এলেভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে চলমান।
৩০. বছরের প্রথম দিন ১০০% শিক্ষার্থীর হাতে বই।
৩১. ২৩,৩৩৩ টি স্কুল ডিজিটাল সুবিধার আওতায়।
৩২. বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় শতভাগ।
৩৩. ৭.৫ মিলিয়ন দরিদ্র ও বাদ পড়া শিশু স্কুল মূখী।
৩৪. বাংলাদেশ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় লিঙ্গ সমতা অর্জন করেছে।
৩৫. ৭০ মিলিয়ন শিশু বার্ষিক শিক্ষাবৃত্তি পায়।
৩৬. প্রাথমিক শিক্ষকতায় ৬০ ভাগ নারী শিক্ষক।

বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গ:


১. ‘জাবেদ করিম’ বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত ইউটিউব প্রতিষ্ঠাতাদের একজন।
২. ‘ ড. মুহাম্মদ ইউনুস’ শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার বিজয়ী।
২ . ‘সালমান খান আমির’ বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত মার্কিন শিক্ষা গবেষক, উদ্যোক্তা এবং ‘খান একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা’
৩.‘নাজমা আক্তার’ পোষাক শ্রমিকদের নেত্রী।
৪. ‘আয়মান সাদিক’ ২০১৭ কুইন্স ইয়াং লিডার অ্যাওয়ার্ড বিজাতা।
৫.‘ওসামা বিন নূর’ আন্তজার্তিক তরুন নেতৃত্বর পুরষ্কার বিজয়ী।
৬. ‘সুমাইয়া কাজী’ ‘ওমেন অব নফ্লুয়েন্স’ বিজয়ী।
৭. ‘ড. মকসুদুল আলম’ পাটের জিনের আবিষ্কারক।
৮. ‘ডা. সায়েবা আক্তার’ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বহুল ব্যবহৃত প্রসুতির রক্তক্ষরণ বন্ধের সাশ্রয়ী ও অভিনব উপায় আবিষ্কারক।
৯. ‘পুলিশ সুপার শাসসুন্নাহার’ পুলিশ সপ্তাহ প্যারেডে প্রথম নারী হিসেবে নেতৃত্ব দিয়ে ইতিহাস গড়েন।
১০. ‘শাহনাজ পারবিন’ বিশ্ব সেরা শিক্ষক-২০১৭ ৯ (গ্লোবাল টিচার প্রাইজ) বিজাতা।
১১. ‘রোবসানা বেগম’ আন্তজার্তিক কিক বক্সিংয়ের ব্রোজ বিজয়ী।
১২. ‘সাকিব আল হাসান’ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।
১৩. ‘সিদ্দিকুর রহমান’ এশিয়ার ১২ টি ইভেন্ট বিজয়ী।
১৪. ‘ড.তামজিদুল’ শৈবাল থেকে জৈব জ্বালানী তৈরির যন্ত্র ও সফটওয়্যার আবিষ্কার করেছেন।
১৫. ‘নিজামউদ্দিন আউলিয়া লিপু’ মোটরগাড়ি বিশেষজ্ঞ, ডিজাইনার এবং কোচ বিল্ডার। ডিসকভারি চ্যানেল তাকে নিয়ে ‘চপ সপ লন্ডন গ্যারেজ’ নামে একটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম তৈরি করেছে।
১৬. ‘তহমিমা আনাম’ একজন বাংলাদেশি লেখিকা এবং ঔপন্যাসিক। তার প্রথম উপন্যাস অ্যা গোল্ডেন এজ এর জন্য ‘কমনওয়েলথ সেরা প্রথম বই পুরস্কার ২০০৮’ পেয়েছেন।
১৭. ‘গোলাম ফারুক’ ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্ম আপওয়ার্ড বিশ্বের লক্ষাধিক ফ্রিল্যান্সার গ্রাফিক্স ডিজাইনারের মধ্যে অর্জন করেন ২য় স্থান।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন