শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ১০:১৮:২৫ পিএম

হাথুরু ও মুডি- পার্থক্য যেন আকাশ পাতাল

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১১:৫৫:২৮ এএম

কিছুদিন আগেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের কোচের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। আর তাঁর বিদায়ে অনেক ক্রিকেটারই যে হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন তা বলাই বাহুল্য।

কেননা জাতীয় দলের অনেক ক্রিকেটারই নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানিয়েছিলেন যথেষ্টই স্বেচ্ছাচারী ছিলেন হাথুরু। তাঁর সিদ্ধান্তে কলকাঠি নাড়তো বোর্ড। দল নির্বাচন থেকে শুরু করে কে কোথায় ফিল্ডিং করবেন সেটিও নাকি ঠিক করে দিতেন এই লঙ্কান।

হাথুরুর এই চরিত্রের কারণেই অনেকের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছিলেন তিনি। বিশেষ করে সিনিয়র ক্রিকেটাররাই বেশি নাখোশ ছিলেন এই লঙ্কানের প্রতি। তবে হাথুরুর ঠিক উল্টো চরিত্র যেন অস্ট্রেলিয়ান কোচ টম মুডি। সদ্য শেষ হওয়া বিপিএলে চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের কোচ ছিলেন মুডি।

ধুঁকতে ধুঁকতে শেষ চারে ওঠা দলটিকে দারুণ দক্ষতায় চ্যাম্পিয়ন বানিয়ে ছেড়েছেন এই অভিজ্ঞ কোচ। দলের প্রত্যেক ক্রিকেটারের সাথেই তাঁর সম্পর্ক যথেষ্ট ভালো ছিলো বলেও জানা গেছে। বিশেষ করে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা তো মুডির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েই আছেন।

অধিনায়ক হিসেবে মুডির কাছ থেকে পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা পেয়েছিলেন ম্যাশ বলে সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন দৈনিক প্রথম আলোর এক সাক্ষাৎকারে। আর এই কারণে নিজের মতো করে খেলতেও পেরেছেন তিনি।

কোনও বিষয়েই সেভাবে হস্তক্ষেপ করেননি টম মুডি। আর এই বিষয়গুলিই দলকে সাফল্য এনে দেয়ার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা রেখেছিলো বলে মনে করেন ম্যাশ। কোচের সঙ্গে নিজের বোঝাপড়া প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন,

'সবচেয়ে ভালো লেগেছে, দল নির্বাচন করার সময় কোচ আমার ওপর কিছু চাপিয়ে দিতেন না। অনেক সময় হয়তো ফ্র্যাঞ্চাইজি কাউকে খেলানো ভালো মনে করলো। কিন্তু কোচ আমাকে বলে দিতেন, ‘তোমার যদি এটাতে আস্থা না থাকে তাহলে এটা করার দরকার নেই।’

আমি যে একাদশ নিয়ে মাঠে নামবো সেটা যেন আমার মনমতো হয়, সেই স্বাধীনতাটা দিতেন। যেমন আমি কয়েকটা ম্যাচে আগে ব্যাটিং করেছি। এ রকম যেটাতেই আমি আত্মবিশ্বাস দেখাতাম, কোচ সেটাই আমাকে করতে দিয়েছেন এবং সমর্থনও করেছেন।'

মুডিকে যথেষ্ট শক্ত একজন কোচ হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন মাশরাফি। দল জিতলেও খুব একটা উত্তেজিত হতেন না তিনি বলে জানান রংপুর অধিনায়ক। তাঁর ভাষ্যমতে,

'টম মুডি অনেক শক্ত কোচ। দল জিতলেও খুব উত্তেজিত হতেন না, আবার হারলেও তেমন মন খারাপ করতেন না। নিজের ওপর তাঁর নিয়ন্ত্রণ অনেক বেশি।'

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন