মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৩:১৪:৪১ এএম

প্রেমের টানে মেয়ের জামাইয়ের সাথে পালিয়ে গেলেন শাশুড়ি

আন্তর্জাতিক | মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০৫:১৮:২৬ পিএম

নিজের জামাইকে বিয়ে করে সকলকে চমকে দিলেন ভারতের বিহার রাজ্যের মাধেপুরা জেলার বাসিন্দা ৪২ বছরের আশা দেবী। ঘটনায় মারাত্মক বিস্মিত আশার মেয়ে ১৯ বছরের ললিতা এবং তাঁর বাবা, যিনি দিল্লিতে কর্মরত।

ঘটনার সূত্রপাত মাস খানেক আগে। ২২ বছরের জামাই সুরজ যখন অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তখন মেয়েকে সাহায্য করতে সেখানে যান মা। জামাইয়ের সেবা করতে করতেই দুজনের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। আশার স্বামী যেহেতু কর্মসূত্রে দিল্লিতে থাকেন, তাই সেই সুযোগে একাধিকবার শাশুড়ির সঙ্গে গোপন সাক্ষাত্ও করেন জামাই।

সূত্রের খবর, জুন মাসে প্রেমের টানে মেয়ের জামাইয়ের সাথে পালিয়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন শাশুড়ি, কিন্তু পরে তারা ফের গ্রামে ফিরে আসেন। গ্রামে ফিরে আসার পর পঞ্চায়েত তাদের একসঙ্গে থাকার অনুমতিও দেয়। পঞ্চায়েত সদস্যদের মতে, তারা যখন একে অপরকে পাগলের মতো ভালোবাসেন, সেখানে তাদের আলাদা করে দেয়ার কোনো মানেই হয় না।

বহু ঘাত-প্রতিঘাতের পর অবশেষে আদালতে গিয়ে বিয়ে করে, তারা এখন একে অপরের সঙ্গেই রয়েছেন। তবে আশা এবং সুরজ তাদের নিজেদের প্রাক্তন স্ত্রী বা স্বামীর থেকে বিবাহ বিচ্ছেদে সম্মতি পেয়ে গেছেন কিনা, সেবিষয় কোনো তথ্য নেই।
কিন্তু অবশেষে শাশুরির সঙ্গেও সম্পর্ক ছেদ করলেন সুরাজ। সম্প্রতি তিনি জানান, আশা দেবীকে সে এখন আবারো মায়ের মতই দেখছে! আর সে কারণেই আশা দেবীকে ডিভোর্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তবে ললিতার সঙ্গেও সম্পর্ক পুনঃ স্থাপন করছে না সুরাজ।

গলফ নিউজকে সুরাজ জানায়, বিয়ের দুই মাস পর আশা ও সুরাজ দুইজনই অনুভব করে কত বড় পাগলামি করেছে তারা।

তবে আশা দেবী জানান, আমি ভুল করেছি এবং কোর্টে ডিভোর্সের কাগজও পাঠিয়েছি। সুরাজ আমার মেয়ে জামাই। আমি চাই সে এবং আমার মেয়ে একত্রে থাকুক। আমিও আমার স্বামীর কাছে ফেরত যেতে চাই।

কিন্তু আসলে তার এই আশা কতটা সফলতা পাবে তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে সকলের। গালফ নিউজ ও আফ্রিকান স্পট লাইট।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন