শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ০৬:৪২:৩৯ এএম

‘বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিতে উঠার অযোগ্য ছিল’

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১২:০৮:০৬ পিএম

বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিতে উঠার অযোগ্য এমন কথা বলেছে ডাকওয়ার্ড লুইস। কি ভাবছেন? ডাকওয়ার্থ লুইস তো একটা পদ্ধতির নাম। এটা আবার কথা বলে কিভাবে তাইতো?

হ্যা, এই ফ্রাঙ্ক ডাকওয়ার্থ ও টনি লুইস, যারা বৃষ্টি আইনের হিসাব আবিষ্কার করেছিলেন। পরে তাদের নাম অনুসারেই পদ্ধতিটির নাম ডাকওয়ার্থ লুইস রাখা হয়। সেই ডাকওয়ার্থ লুইস বলেছে, চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিতে বাংলাদেশ নয়, অষ্ট্রেলিয়ার যাওয়া উচিত ছিল।

গ্রুপ পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে অষ্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাত্র ১৮২ রানেই থেমে গিয়েছিল বাংলাদেশ। জবাবে অষ্ট্রেলিয়া ১৬ ওভার ব্যাটিং করে ১ উইকেটে ৮৩ রান করার পর বৃষ্টি শুরু হয়েছিল। এরপর আর খেলা অনুষ্ঠিত হতে না পারায় ম্যাচটি পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হয়।

ক্রিকইনফোতে এক কলামে ডাকওয়ার্থ ও লুইস লিখেছেন, সেদিন কাগজে কলমেই জয়ী ছিল অষ্ট্রেলিয়া। কিন্তু কিভাবে জয়ী ছিল সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তারা। ওয়ানডে ক্রিকেটের ক্ষেত্রে কোনো ফল পেতে হলে দুই দলকে কমপক্ষে ২০ ওভার ব্যাট করতে হবে। অস্ট্রেলিয়া তো ব্যাট করেছেই ১৬ ওভার। ডাকওয়ার্থ ও লুইসের দাবি সেদিন প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ীই অস্ট্রেলিয়াকে জয়ী ঘোষণা করা যেত।

রাত আটটায় খেলা থেমেছিল সেদিন। বলা হয়েছিল আধাঘন্টা পর খেলা শুরু হবে, অজিদের ইনিংস থেকে ৭ ওভার কেটে রাখা হবে। আর তাদের নতুন টার্গেট হবে ১৬৬ রান। এরপর বৃষ্টি না থামায় কাট অফ টাইম ৯টা ৫৯ পর্যন্ত অপেক্ষা ম্যাচটি পরিত্যক্ত করেছিল আম্পায়ার।

ডাকওয়ার্থ ও লুইস বলছে, বৃষ্টির কারনে অষ্ট্রেলিয়ার রান প্রতি ওভারে কমে আসছিল। ম্যাচ যদি ৩০ ওভারে হত তাহলে অজিদের টার্গেট হত ১২০ রান। যদি সেটা কমে ২২ ওভারে হত তাহলে তাদের টার্গেট হত ৭৯ রান যা এরই মধ্যে তারা অতিক্রম করে ফেলেছিল। আর ম্যাচটি ২২ ওভারে নেমে আসার সময় ছিল ৯টা ৫১ মিনিটে অর্থাৎ কাট অফ সময়ের আগেই। তাই ঐ সময় যদি আম্পায়ার বৃষ্টির খোজ না নিয়ে অষ্ট্রেলিয়ার পরবর্তি লক্ষ্যের হিসাব করত তাহলেই অষ্ট্রেলিয়া বিজয়ী হত।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন