বুধবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৮ ০১:৫৯:২৬ পিএম

আর যা করলেই ক্রিকেট থেকে আজীবন নিষিদ্ধ হবেন সাব্বির

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারী ২০১৮ | ০১:০১:৩৫ পিএম

এক কিশোরকে পেটানোর ঘটনা সাব্বিরের অপরাধে সাব্বিরের নিজেকে শুধরানোর এটাই শেষ সুযোগ দিয়েছেন বিসিবির শৃঙ্খলা কমিটি। একই ধরনের অপরাধ আবার করলে তাকে আজীবন নিষিদ্ধই করে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির শৃঙ্খলা কমিটির চেয়ারম্যান। ক্রিকেট থেকে আজীবন নিষিদ্ধ হওয়ার হুমকিতে সাব্বির।

শৃঙ্খলা কমিটির সভায় নিজের অপকর্মের জন্য ক্ষমাও চেয়েছিলেন। কিন্তু তাতে মন গলেনি শৃঙ্খলা কমিটির। শুনানিতে সাব্বির অনেক সরি টরি বলেছে। এমন কাণ্ড আরও অনেকবার করেছে। ও কারো কথা পাত্তাই দিচ্ছে না। তাই আমরা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিই দিয়েছি। আরও বড় শাস্তি দিতে চেয়েছিলাম জানাল একজন।

সাব্বিরের উপর অনেক বিসিবি কর্মকর্তাই ক্ষেপে ছিলেন। মাঠে খেলা চলাকালে ২১ ডিসেম্বর ঘটানো তার ঘটনাটি কোনোভাবেই মানতে পারছিলেন না তারা। অনেকেই সাব্বিরের আজীবন নিষেধাজ্ঞা চেয়েছিলেন। কিন্তু বিসিবি ধারায় তা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। তবে একই অপরাধ বারবার করার শাস্তি আজীবন নিষেধাজ্ঞা। তাই সাব্বির আর একবার এমন কোন কাণ্ড ঘটালে তাকে আজীবন নিষেধাজ্ঞার খড়গেই পড়তে হবে বলে জানান শেখ সোহেল, ‘আমরা সাব্বিরকে জানিয়ে দিয়েছি এটাই শেষ সুযোগ। আর একবার এমন কোন কাণ্ড ঘটালে আজীবন নিষিদ্ধ। ’

সোমবার বিসিবি সভাপতির ঘোষণায় উঠে আসে সাব্বিরের শাস্তির ব্যাপারটা। বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে সাব্বিরকে বাদ দেওয়ার কথা বলেন তিনি। এছাড়াও ঘরোয়া ক্রিকেটে ছয় মাসের জন্য নিষেধাজ্ঞা ও নগদ ২০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তবে সাব্বিরের শাস্তির শেষ যে এখানেই তাও বলেননি পাপন। আগামী বোর্ড সভায় এ শাস্তির পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি, ‘প্রস্তাবনা কি এসেছে তাই বলছি। এবারই তাকে শেষ সুযোগ দেয়া হচ্ছে। টাকার অঙ্ক কিন্তু অনেক। অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য সাসপেন্ড করার চিন্তাও করেছে (কমিটি)। আমরা বোর্ড মিটিংয়ে ফাইনাল করবো। ’

২১ ডিসেম্বর জাতীয় লিগের ষষ্ঠ ও শেষ রাউন্ডের ম্যাচ চলাকালে রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে গ্যালারিতে একটি ছেলে সাব্বিরকে উত্যক্ত করছিল। বিড়ালের অনুকরণ করে 'ম্যাও' বলে ডাকছিল সেই ছেলে। উদ্দেশ্য সাব্বির। সাব্বিরের ক্যাটস আই। সেই কারণেই। ব্যাপারটি মানতে পারেননি ক্রিকেটার।

রেগেমেগে আম্পায়ারদের অনুমতি নিয়ে ১ ওভারের জন্য বাইরে যান তিনি। এরপর বল বয়কে দিয়ে ছেলেটিকে ডাকিয়ে এনে সাইট স্ক্রিনের পেছনে নিয়ে চড়-থাপ্পর মেরেছিলেন বলে জানা যায়। বাজে ট্র্যাক রেকর্ডের কারণে তাই সাব্বির ২৬ বছরের জীবনের সবচেয়ে বড় শাস্তিটাই পেয়ে গেলেন। এরপরও তিনি না শুধরালে, তার ক্রিকেট জীবনের ওপর খুনে চোখ নিয়ে তাকিয়ে থাকা সারা জীবনের নিষেধাজ্ঞা যে নেমে আসবে নিশ্চিত, তা তো এখন স্পষ্টই।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন