সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১০:১২:৩৫ এএম

বালিশের নিচে নিরব ঘাতক

লাইফস্টাইল | শনিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০১৮ | ০৯:২৩:২৪ পিএম

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে মোবাইল ফোন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। মোবাইল ছাড়া যেন একমুহূর্তে চলা দায়। পরিবারের সদস্য থেকে শুরু করে অফিস,বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন সবার সঙ্গে প্রয়োজনীয় কথা বলতে মোবাইল ফোনের জুড়ি নেই। মোবাইল খুদে বার্তা বা ফোনের মাধ্যমে মুহূর্তে আপনি জানতে পারেন গুরুত্বপূর্ণ অনেক খবর।

মোবাইল ফোনের যেমন উপকারিতা রয়েছে, তেমনি এর অপকারিতাও রয়েছে। অনেকেই ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন বন্ধ করেন না৷ অ্যালার্ম দিয়ে ফোনকে বালিশের নিচে বা পাশে রাখার অভ্যাস রয়েছে অনেকের৷ অনেকেই আবার ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোনটি সঙ্গী করে ঘুমান। কিন্তু আপনি হয়তো জানেন না মোবাইল ফোন বালিশের নিচে কিংবা আপনার ঘুমানোর কাছাকাছি কোন স্থানে রাখা কতটা বিপজ্জনক।

গবেষকরার বলছেন, মোবাইল ফোন থেকে বের হওয়া রেডিয়েশন আপনার মস্তিষ্কের ক্ষতি করতে পারে এবং আপনি প্রচণ্ড মাথাব্যথা, মাংসপেশী ব্যথা কিংবা অন্য কোন শারীরিক সমস্যা অনুভব করতে পারেন। মোবাইল থেকে বের হওয়া ৯০০ মেগা হার্জেল পরিমান রেডিয়েশন শরীরের কার্যকারিতা নষ্ট করার সংকেত প্রদান করে।

গবেষণায় দেখা গেছে, মোবাইল ফোন থেকে বের হওয়া রেডিয়েশনের সঙ্গে শরীরের কার্যকারিতার একটা যোগসূত্র আছে। এটা শরীরের সব ধরনের উর্বরতা কমায়। মোবাইল ফোন থেকে বের হওয়া নীল রঙের রশ্মি ঘুমেরও ব্যাঘাত ঘটায়। কারণ এই রশ্মির তরঙ্গদৈর্ঘ্য অনেকটা দিনের আলোর মতোই, একারণে মনে হয় আমরা দিনের আলোতেই ঘুমাচ্ছি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন আপনার থেকে কমপক্ষে তিন ফুট দুরত্বে রাখুন। যখন ঘুমাতে যান মোবাইল ফোনের সুইচ বন্ধ রাখুন অথবা এরোপ্লেন মুডে রাখুন। অনেকে মোবাইল ফোনেই অ্যালার্ম দিয়ে নিজের পাশে রেখে ঘুমান। কিন্তু যখন আপনি জানছেন এটা আপনার জন্য ক্ষতিকর তখন সত্যিকারের অ্যালার্ম ঘড়ি রাখুন। কেউ কেউ আবার ঘুমানোর আগে প্রিন্টের চাইতে ই-বুক পড়তে পছন্দ করেন । শরীর ও মন সুস্থ রাখতে ঘুমানোর আগে এই ধরনের খারাপ অভ্যাস পরিত্যাগ করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন