শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮ ০২:২৯:৩২ পিএম

চকবাজারে প্রেমিককে আটকে রেখে কিশোরীকে গণধর্ষণ!

নগর জীবন | শনিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০১৮ | ০৪:৩৫:২২ পিএম

রাজধানীর চকবাজারে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে এক কিশোরী (১৪) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী কিশোরীর স্বজনদের অভিযোগ, গত ১৯ জানুয়ারি চকবাজারের কাজী রিয়াজ উদ্দিন সড়কের একটি বাসায় বন্ধুকে আটকে রেখে তার সেই প্রেমিকাকে গণধর্ষণের পaর নগ্ন ছবি তুলে রাখে বখাটেরা। পরে সেই ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করে ধর্ষণকারীরা।

গত বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আলামিন ও ইয়াছিন নামের দুজনসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

ওই কিশোরীর এক স্বজন জানান, ভুক্তভোগী কিশোরী মা-বাবার সঙ্গে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকায় থাকেন। তার বাবা একজন প্রতিবন্ধী রিকশাচালক। মা গৃহিনী। গত ১৯ জানুয়ারি বিকেলে চকবাজারের কাজী রিয়াজ উদ্দিন রোডে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে যায় মেয়েটি। সেই সময় আলামিন ও ইয়াছিনসহ ওই এলাকার তিনজন বখাটে কিশোরী ও তার প্রেমিক এবং প্রেমিকের এক বন্ধুকে একটি বাসার আলাদা অলাদা কক্ষে আটকে রাখে। পরে হত্যার হুমকি দিয়ে বখাটেরা মেয়েটিকে গণধর্ষণ করে। একপর্যায়ে প্রেমিককে এনে তার পাশে মেয়েটিকে রেখে অশ্লীল ছবি তোলে বখাটেরা। ঘটনা প্রকাশ পেলে ধারণকৃত নগ্নছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায় তারা।

কিশোরীর ওই স্বজন আরও জানান, লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি প্রথমে চেপে যায় মেয়েটি। পরে বখাটেরা যখন ধারণকৃত ওই নগ্ন ভিডিওচিত্র ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে তাদের কাছে টাকা দাবি করে। তখন বিষয়টি ওই কিশোরী তার মাকে খুলে বলে। এরপর ভুক্তভোগীরা যে বাসায় ঘটনাটি ঘটে সেই বাসার মালিককে বিস্তারিত খুলে বলেন। পরে বুধবার রাতে কিশোরীকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি চকবাজার থানা পুলিশকে জানালে বুধবার রাতেই আলামিন ও ইয়াছিনসহ তিনজনকে আটক করে পুলিশ।

এ বিষয়ে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম রশিদ তালুকদার বলেন, এ ঘটনায় তিনজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন