বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ ০৭:৩৩:৪২ এএম

পেছনের মানুষের গল্প

জাহিদুল খান সৌরভ | জেলার খবর | শেরপুর | মঙ্গলবার, ৩০ জানুয়ারী ২০১৮ | ১১:৩৭:২৭ এএম

এখনো সমাজে কিছু পরপকারী বিশুদ্ধ মানুষ আছে বলেই সমাজ ব্যবস্থা টিকে আছে।

"অনিক নিনাদ" সদ্য অনার্স পড়ুয়া একটি ছেলে, সম্পর্কে আমার চাচাত ভাই। শেরপুর জেলাসদর সহ আশপাশের কয়েক ইউনিয়নের ক্রিকেট প্রেমী সবাই তাকে চেনার কথা কারণ সে ভাল একজন ক্রিকেটারও বটে।

অনেকদিন পর আজকে লিখতে বসলাম,

বিষয়ঃ স্বেচ্ছায় রক্তদান।

গত কয়েকদিন আগে পাশের বাসার সৌদি ফেরত এক বড় ভাইয়ের শারীরিক অবস্থা হঠাৎ চরম অবনতি নেওয়া হল জেলা সদর হাসপাতালে, কর্তব্যরত ডাক্তার দিলেন কতগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা। অবশেষে সব রিপোর্ট তার হাতে, জানালেন রোগীকে অতি দ্রুত পাঁচ ব্যাগ O+ রক্ত দিতে হবে। তখন রাত ৯ টা বেজে কয়েক মিনিট।

শেরপুরে রক্তদান সংস্থা সহ বেশ কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংঘটন রয়েছে যারা মূমুর্ষ রোগীকে রক্ত দিয়ে থাকেন কিন্তু এখন এত রাতে তাদের কিভাবে জানাব তখনই নিজে শশরীরে উপস্থিত "অনিক,.... বললো আমার গ্রুপ O+ আমি দিব রক্ত।

যেই কথা সেই কাজ ওইদিন সে, এই কননকনে ঠান্ডায় রাত ১০ টা পর্যন্ত হাসপাতালে রক্ত দিয়ে তারপর বাসায় ফিরছে। অনিক যে শুধু একজনকে রক্ত দিয়েছে তা নয়, এরকম অনেক রোগী সহ নিজের শরীরের ভাল মন্দ চিন্তা ও নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে এলাকার এক ৪-৫ বছরের বাচ্চাকে ২৫০ গ্রাম রক্ত প্রতি মাসে দেয়। এই দিকে এক ব্যাগ ব্যবস্থা তো হলো পরদিন আরও লাগে ৪ ব্যাগ চিন্তায় পরে গেল রোগীর স্বজনরা তখন সেই অনিকের মাধ্যেমে তার বন্ধু 'আশরাফুল' এসে হাজির সকাল ৮টায় সেও গেল রক্ত দিতে। যাক কিছুটা চিন্তামুক্ত হয়ে পরে "রক্ত" লাগবে বলে স্ট্যাটাস দিলাম ফেইসবুকে, তাতে নজর ছোট ভাই সোবাহান ও রক্তদান সংস্থা জাহাঙ্গীরের মাধ্যেমে বিজয়ের। আরও ২ ব্যাগ রক্তের ব্যবস্থা হয়ে গেল।

যাই হোক আমার দুঃখটা হচ্ছে এরকম অনিক, আশরাফুল, সোবাহান বা বিজয়দের আমরা শুধু বিপদের সময় ডাকি, রক্ত দেওয়ার পর আমরা কজন এই উপকারের কথা স্মরণ করে তাদের শরীরের খোঁজ-খবর নেই।

বাঁচানোর মালিক আল্লাহ, আর মানুষ তো উছিলা। আজকে যাদের দেহের মূল্যবান রক্তের বিনিময়ে অনেক মূমুর্ষ রোগী সুস্থ হয়ে প্রাণে বাঁচে, শ্রদ্ধার সাথে স্যালুট জানাই তাদের। দোআ করি সৃষ্টিকর্তা যেন তাদের নেক হায়াৎ দান করেন এবং এভাবেই যেন বিপদে সাহায্যে করতে পারে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন