বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ ০৯:৩০:৫০ এএম

৯৫ শতাংশ মানুষই হয়তো ভেবেছিল আমাকে দিয়ে আর হবে না: রাজ্জাক

খেলাধুলা | মঙ্গলবার, ৩০ জানুয়ারী ২০১৮ | ১২:৩৭:২০ পিএম

চার বছর পর অপ্রত্যাশিতভাবে টেস্ট দলে প্রত্যাবর্তনের খবর নয়, আব্দুর রাজ্জাক সবার আগে পেয়েছেন ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের ফ্লাইটের টিকিটের কনফার্মেশন!

বিশ্বাস না হলে এই বাঁহাতি স্পিনারের নিজের মুখ থেকেই শুনে নিন, ‘‘আকরাম ভাইয়ের (বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির প্রধান) সঙ্গে কথা হয়েছিল কিন্তু তা স্পষ্ট কিছু ছিল না। সজীব ভাই (বিসিবির লজিস্টিক ম্যানেজার কাওসার আজম) মূলত আমাকে ফোন করেছিলেন টিকিট কনফার্ম করে। তখনো আমি খবরটা জানতাম না।

উনি আমাকে বললেন, ‘অভিনন্দন’। আমি বললাম, ‘কিসের জন্য? ৫০০ উইকেটের জন্য নাকি?’ উনি বললেন, ‘আরে না, আপনি জাতীয় দলে যোগ দিচ্ছেন এই জন্য।’ এরপর নান্নু ভাইয়ের (প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন) ফোন পেয়ে নিশ্চিত হলাম।’’

নিশ্চিত হওয়ার পর অন্য রকম ভালোলাগায় যেমন ডুবে যান, তেমনি আচ্ছন্ন হয়ে পড়েন অদ্ভুত এক ঘোরেও, ‘নিশ্চিতভাবেই ভালোলাগার ব্যাপার তো আছেই। আমি খুবই অবাক হয়েছি। আমি চিন্তাও করিনি যে এই সময়ে এমন কিছু। মাথার মধ্যেও ছিল না। হঠাৎ করেই জানতে পারলাম যে দলে নেওয়া হয়েছে। শোনার পরেও বুঝতে পারছিলাম না যে ঠিক কী হচ্ছে? সব কিছু ঠিক আছে কি না!’ জাতীয় দলে কবে ফিরবেন, তার কোনো ঠিক-ঠিকানা না থাকলেও রাজ্জাকের ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফরম্যান্স ঠিকঠাকই ছিল।

এই তো কিছুদিন আগেই প্রথম বাংলাদেশি বোলার হিসেবে ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটে ৫০০ উইকেটের মাইলফলক পেরোলেন। সে জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজের সময় জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের কাছ থেকে পেয়েছেন সন্মাননাও। তখন তো আর ঘুণাক্ষরেও ভাবতে পারেননি যে সুযোগটি এসে যাবে এত দ্রুতই, ‘আমি খেলার মধ্যে ছিলাম। কোনো লক্ষ্য না থাকলে আসলে ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলা যায়ও না। প্রতিটি খেলোয়াড়েরই লক্ষ্য থাকে জাতীয় দলে খেলার। সেটি তো ছিলই। কিন্তু এটা এই সময়ে, এভাবে হবে, আমি বুঝতে পারিনি।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন