মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ ০৪:৩১:৩৯ এএম

প্রিজন ভ্যানের তালা ভেঙে কর্মীদের ছিনিয়ে নিল বিএনপি (ভিডিওসহ)

আইন আদালত | মঙ্গলবার, ৩০ জানুয়ারী ২০১৮ | ০৫:৪৯:৩২ পিএম

পুলিশের প্রিজন থেকে আটক দুই বিএনপি নেতাকে ছিনিয়ে নিয়েছে দলের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার দুপুরের পর হাইকোর্টের সামনে কদম ফোয়ারার কাছে এই ঘটনা ঘটে। ওই সময় বকশিবাজারের বিশেষ জজ আদালতে দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিয়ে বাসায় ফিরছিলেন খালেদা জিয়া।

নেতাদের ছিনিয়ে নেয়ার সময় পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার এ এইচ এম আজিমুল হকসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া ভেঙে ফেলা হয়েছে পুলিশের একটি অস্ত্রও।

প্রিজন থেকে মুক্তি পাওয়া দুই নেতা হলেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ওবায়দুল হক নাসির ও সোহাগ মজুমদার। সোহাগ মজুমদারের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এর আগেও বেশ কয়েকবার খালেদা জিয়ার আদালতে যাওয়ার আসার সময় বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। অনেক নেতাকর্মী এ সময় আটকও হয়েছেন। তবে এই প্রথম পুলিশের গাড়ি থেকে দুই নেতাকে বের করে নিল বিএনপি কর্মীরা।

জানা গেছে, খালেদা জিয়ার কদম ফোয়ারা পার হওয়ার আগেই সেখানে রাখা প্রিজন ভ্যানে দুই বিএনপি নেতাকে তোলে পুলিশ। প্রিজন ভ্যানের পাশ দিয়ে খালেদা জিয়ার গাড়ি পার হওয়ার সময় ভেতরে থাকা দুই নেতা বাইরে থাকা কর্মীদের ইশারা করেন। পরে তারা সেখানে জড়ো হয়ে প্রিজন ভ্যানে ভাঙচুর শুরু করেন। তাদের বাধা দিতে গেলে এক পুলিশ সদস্যকে ঘিরে ফেলেন কর্মীরা। সেই পুলিশ সদস্যকে বাঁচাতে তার এক সহকর্মী এগিয়ে এলে তাদের দুজনের ওপর হামলা করেন এবং একটি অস্ত্র ভেঙে ফেলেন বিএনপির কর্মীরা। পরে ভেতরে থাকা দুই নেতাকে বের করে আনেন। এরপর বিএনপির সিনিয়র নেতাকর্মীরা এগিয়ে এসে তাদের সরিয়ে নিয়ে যান।

একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, পুলিশ আসার আগেই নেতাকর্মীরা প্রিজন ভ্যানের পেছনের দরজার তালা ভেঙে ফেলে। পরে ভেতরে থাকা দুইজন হেঁটে বের হয়ে যান।

ঘটনার পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ সেখানে গিয়ে বিএনপির কয়েকজন কর্মীকে আটক করে। যদিও শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান সাংবাদিকদের জানান, ‘প্রিজন ভ্যানে কোনো আসামি ছিলেন না। এ ঘটনায় কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।’

ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা জোনের উপ-কমিশনার মারুফ হোসেন সরদার বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া কোর্ট থেকে ফেরার পথে আমরা যথেষ্ট ধৈর্যশীল ছিলাম। আমাদের একটি প্রিজন ভ্যান ভাঙচুর করে। আটক থাকা দুই কর্মীকে তারা নিয়ে গেছে। তারা কোনও মামলার আসামি ছিল কি না, তা এ মুহূর্তে বলতে পারবো না। আমাদের কয়েকজন সদস্যও আহত হয়েছেন।’



ভিডিও কার্টেসিঃ সারাবাংলা.নেট

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন