বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ ০৬:৫৩:২০ এএম

থেমেছে ঝড়, বন্ধ খাদিজার চিকিৎসা

জেলার খবর | সিলেট | শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০৮:৩৩:৩৩ পিএম

সিলেটে খাজিদা আক্তার নার্গিসকে কথিত প্রেমিক বদরুল আলমের উন্মত্তের মতো কোপানোর দৃশ্য ক্যামেরায় ধরা পড়ার পর দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এ বিষয়ে স্বয়ং প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে দাঁড়িয়ে কথা বলেছিলেন। অভিযুক্ত বদরুলের যাবজ্জীবন সাজাও হয়েছে। এখন আর সেই ঝড় নেই, খাদিজাও ভালো নেই, কেউ রাখে না তার খোঁজ।

দুই দফা অস্ত্রোপচার ও পক্ষাগাত পুনর্বাসন কেন্দ্রে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শেষে বাড়ি ফিরে গেছেন এই তরুণী। জীবনের ঝুঁকি কেটে গেলেও পুরোপুরি স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি। চিকিৎসা এখনও অনেক বাকি। কিন্তু টাকার অভাবে শেষ করতে পারছে না পরিবার।

শুরুতে সরকার পাশে দাঁড়ালেও, চিকিৎসার ব্যয় দিলেও এখন আর খাদিজার খোঁজ করছে না কেউ। আর তার পরিবারও কারও কাছে ধর্ণা দিচ্ছে না। ফলে খাদিজার পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠা এখনও অনিশ্চিত রয়ে গেছে।

অথচ ঘটনা ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে খাদিজাকে নিয়ে তৎপর হয় প্রশাসন, দ্রুত নিয়ে আসা হয় ঢাকায়, নামি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা হয়। প্রায় নিত্যদিন তাকে নিয়ে সংবাদ হয়েছে, তাকে দেখতে গেছেন মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের কর্মকর্তা, মানবাধিকার কর্মী, নারী নেত্রী, বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা। প্রায় ভিআইপি মর্যাদায় চিকিৎসা হয়েছে।

খাদিজার চিকিৎসার ব্যয় মেটানোর ঘোষণা আসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে। আর স্কয়ার হাসপাতালে দীর্ঘদিন ব্যয়বহুল চিকিৎসার এক টাকাও দিতে হয়নি খাদিজা পরিবারকে।

এক সময় রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতাল ছেড়ে খাদিজার পুনর্বাসন শুরু হয় সাভারের পক্ষাগাত পুনর্বাসন কেন্দ্র-সিআরপিতে। আর তখন থেকেই খাদিজাকে ভুলে যাওয়া শুরু। আর এখন তিনি দৃষ্টির আড়ালে।

খাদিজা বেঁচে উঠেছেন ঠিকই, কিন্তু তার জীবন সংগ্রাম শেষ হয়নি। কারণ, তার চিকিৎসার এখনও অনেক বাকি। আর টাকার অভাবে সেটা করতে পারছে না পরিবার।

২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর সিলেটের এমসি কলেজ কেন্দ্রে স্নাতক পরীক্ষা দিয়ে বের হয়ে হামলার শিকার হন সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিস।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সে সময়ের সহ-সম্পাদক বদরুল আলমের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খাদিজার মাথার খুলি ভেদে করে মস্তিষ্কও জখম হয়।

ঘটনার পর ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে তিন দফা অস্ত্রোপচারের পর অনেকটা সুস্থ হন খাদিজা। শরীরের বাঁ পাশ স্বাভাবিক সাড়া না দেওয়ায় চিকিৎসার জন্য স্কয়ার থেকে তাকে পাঠানো হয় সাভারের সিআরপিতে। সিআরপিতে তিন মাসের চিকিৎসা শেষে ২০১৭ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বাড়ি ফেরেন তিনি।

খাদিজার বাবা মাশুক মিয়া ফিরে গেছেন তার কর্মস্থল সৌদি আরবে। তার চাচা আবদুল কুদ্দুস জানান, তার ভাতিজি সিলেটে তাদের বাড়িতেই আছেন। এখন স্বজন, বন্ধু বা পরিচিতজনদের চিনতেও পারে, কথাও বলতে পারে। তবে নিজের কাজকর্ম অন্যের সাহায্য নিয়ে করতে হয়।

খদিজার চচা বলেন, ‘তার বাম হাতে এবং মস্তিস্কে কিছু সমস্যা রয়েছে। সে জন্য তার বাম হাতের একটি অপারেশন প্রয়োজন। এটি বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে করতে হবে। সেই অপারেশনটি করতে প্রায় পাঁচ লাখ টাকার প্রয়োজন।

কুদ্দুস বলেন, খাদিজার বাবা মাশুক মিয়া সৌদি আরবে প্রাইভেটকার চালান। সেখানে আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ। ফলে তিনি খাদিজার চিকিৎসা করাতে পারছেন না।

খাদিজার চাচা বলেন, জেলা প্রশাসনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্ট করেছি। কিন্তু পারিনি। চাইলেই তাদের সঙ্গে আমাদের মতো মানুষের পক্ষে যোগাযোগ করা কঠিন।’খাদিজার চাচা জানান, মাস দুয়েক আগে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের অধ্যাপক এম কে দত্তকে দেখিয়েছেন। এই চিকিৎসক তখন দুই মাসের মধ্যে হাতে অপারেশনের পরামর্শ দিয়েছেন। আর জানিয়েছেন, এর ব্যয় হতে পাঁচ লাখ টাকা।

এ ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের পরিচালক আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, খাদিজার চিকিৎসার জন্য এখানে কেউ এসেছিল কি না আমার জানা নেই। যোগাযোগ করলে তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করব। তাদের টাকা নিয়ে ভাবতে হবে না।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন