সোমবার, ২১ মে ২০১৮ ০৪:৪৬:৪৩ পিএম

রাতে বিছানায় প্রস্রাব, শিশুটির যৌনাঙ্গে ব্লেড চালিয়ে দিল তার বাবা!

আন্তর্জাতিক | শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ১২:১৫:২৯ পিএম

তিন বছরের শিশুটির অপরাধ রাতে বার কয়েক বিছানা ভিজিয়ে ফেলত সে। এই ‘অপরাধে’ কপালে বার কয়েক উত্তম-মধ্যমও জুটেছিল। কিন্তু, তাতেও স্বভাবে বদল আসেনি। তাই এই ‘ভয়ানক অপরাধে’ শিশুটির যৌনাঙ্গে ব্লেড চালিয়ে দিল তার বাবা! এমনই চূড়ান্ত নৃশংসতার সাক্ষী থাকল মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি। শুধু তাই নয়, ঘটনার পর গুরুতর আহত ওই শিশুটিকে একজন হাতুড়ে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় বলে অভিযোগ। সুবিচারের আশায় স্থানীয় পঞ্চায়েতে দ্বারস্থ হয়েছেন শিশুটির ঠাকুরদা।

সাগরদিঘি বিনোদ সাহানা গ্রামে থাকেন রাজেশ ভাস্কর। রাজমিস্ত্রির কাজ করে দিন গুজরান করেন তিনি। স্ত্রী ও তিন সন্তানকে নিয়ে থাকে রাজেশ। পরিবারের আর্থিক অবস্থা একেবারেই ভাল নয়। প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, বরাবরই বদরাগী রাজেশ। চুন থেকে পান খসলেই স্ত্রীকে মারধর করে। রেহাই পায় না সন্তানরাও। রাজেশের দ্বিতীয় সন্তান সুরজ। রাতের প্রায়ই বিছানা ভিজিয়ে ফেলে সে। অভিযোগ, বদভ্যাসের কারণে গত কয়েক দিন ধরেই মাঝরাতে ঘুম তুলে ছোট্ট শিশুকে বেধড়ক মারধর করছিল রাজেশ। পরিস্থিতি চরমে ওঠে বুধবার রাতে। বিছানায় প্রস্রাব করায় রাগের মাথায় তিন বছরের সন্তানের যৌনাঙ্গে ব্লেড চালিয়ে দেয় ওই যুবক। শিশুর চিৎকারে জেগে ওঠেন রাজেশের স্ত্রী। রাতে গুরুতর আহত শিশুটিকে গ্রামের একটি হাতুড়ে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসার পর তাকে বাড়িতে নিয়ে চলে চলে রাজেশ। এখন শিশুটি বাড়িতেই রয়েছে।

তিন বছরের নাতির এই নির্মম অত্যাচারের প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় পঞ্চায়েতের দ্বারস্থ হয়েছেন রাজেশের বাবা মঙ্গল ভাস্কর। নাতিকে দেখভালে দায়িত্ব নিতে চান তিনি। ঘটনা জানার পর, শিশুটিকে দেখতে রাজেশের বাড়ি যান স্থানীয় পঞ্চায়েতের প্রধান হবিবুর রহমান। তিনি জানিয়েছেন, শিশু এখন ভাল আছে। কৃতকর্মের জন্য ক্ষমাও চেয়েছে রাজেশ।

-তথসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন