বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ ০৩:৪৪:১৬ এএম

‘রক্তপিপাসু শাসকদের কবল থেকে দেশবাসীকে রক্ষার সংগ্রামে নেমেছি’

রাজনীতি | বুধবার, ৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০৯:৪৪:৪৬ পিএম

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আমি অন্যায় করিনি, দুর্নীতি করিনি, ন্যায়বিচার হলে বেকসুর খালাস পাবো।’ আজ বুধবার দলের গুলশানস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়া এ কথা বলেন।

বেগম জিয়া বলেন, যারা লগিবৈঠা দিয়ে মানুষ খুনের নির্দেশ দেয়, যারা গান পাউডার দিয়ে মানুষ মারে, আন্দোলনের নামে যারা ব্যাংকে আগুন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আগুন, চট্টগ্রাম রেল স্টেশনে আগুন, বন্দরে আগুন দিয়েছে তারাই আজ আমাদের নামে অপপ্রচার চালাচ্ছে। দেশের সব কয়টি প্রতিষ্ঠানেকে ধ্বংস করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ১০ টাকা ধরে চাল খাওয়ানোর ওয়াদাকে ভয়াবহভাবে ভঙ্গ করা হয়েছে। চালের দাম এখন কেজি ধরে ৬০টাকা বিক্রি হচ্ছে। দেশের আজ সত্যিকারের সংসদ নেই। নেই বিরোধী দল। শাসকদের কোথাও কোনো জবাবাদিহিতা নেই। সশস্ত্র বাহিনীর সর্ম্পকে বৈরী প্রচারণা ও ঘৃণা ছড়ানো হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জণগনের বিরুদ্ধে দাড় করানো হয়েছে। মানুষের কাজ নেই। ব্যবসা নেই।

বিএনপি নেত্রী বলেন, মাদকের বিষাক্ত ছোবলে তরুণ সমাজ ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এই দু:সহ অবস্থা থেকে বাংলাদেশের মানুষ মুক্তি চায়। তারা আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। তাদের আশার প্রতিফলন ঘটাতে গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম শুরু করেছি। সেই সংগ্রামে অনেক প্রাণ ঝরে গেছে। অগণিত নেতাকর্মী ও মানুষ হামলা, মামলার শিকার হয়েছে। রক্তপিপাসু শাসকদের কবল থেকে দেশবাসীকে রক্ষার সংগ্রামে নেমেছি। জণগন পরাজিত হবে না। দুঃশাসন একদিন থাকবে না। কিন্তু তারা যে কলংকের ইতিহাস রচনা করেছে তা চিহ্নিত থাকবে।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশের মানুষ তাদের নির্বাচিত করে নি। দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে জণগনের সম্মতি নেই। তাদের নৈতিক শাসন নেই। হুঙ্কার দিলেও তাদের নৈতিক শাসন ও মনোবল নেই। পেশি শক্তি ও রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে জনগণের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করছে। জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দিতে চাই। তাই আমরা আন্দোলন করছি সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য। সেই নির্বাচনে সকল দল নির্বাচন করতে পারবে। ভোট সুষ্ঠুভাবে গণণা করে প্রকাশ করা হবে।

আওয়ামী লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, তারা সুষ্ঠু নির্বাচন চায় না। তারা ক্ষমতায় থেকে, সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন করতে চায়। কারণ ভোট পাল্টে দিয়ে আবারো ক্ষমতায় থাকতে চায়। যার কারণে আমাদের ওপর হামলা মামলা দিচ্ছে। সরকারি খরচে এক বছর আগ থেকে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আন্দোলনের কারণে আমাদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে।

খালেদা বলেন, স্বৈরশাসক আইয়ুব খান মামলা করে এই দেশের জনপ্রিয় শাসকদের নির্বাচন থেকে দূরে সরে রেখেছিলো। কিন্তু গণঅভ্যূত্থানে তার পতন হয়েছে। মঈনউদ্দিন ও ফখরুদ্দিনের সময় আমাকে দেশ ছাড়ার জন্য বলেছিলো। কিন্তু না যাওয়ায় আমার ও সন্তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছিলো। এক বছর দুই মাস কারারুদ্ধ করেছিলো। সন্তানদের কারারুদ্ধ করেছিলো।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত আছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, লে. জে (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও বিশেষ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন প্রমুখ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন