বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮ ০৯:০২:১৬ পিএম

ফেসবুকে পরিচয়, বান্ধবীর বাড়িতে গিয়ে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু!

জাতীয় | বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ১২:৪৪:৩০ এএম

‘ফেসবুক’ বান্ধবীর বাড়িতে যুবকের রহস্যমৃত্যু। বিসিসিএল-এর কর্মী বিশ্বনাথ নাগের মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেফতার পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার দুর্গাপুরের দম্পতি। মৃতের গলায় বান্ধবীর ওড়নার ফাঁস। পরিকল্পনা করেই খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ বিশ্বনাথের পরিবারের। ধৃতদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু পুলিশের। খতিয়ে দেখা হচ্ছে ত্রিকোণ প্রেমের অভিযোগও।

তিন বছর আগে বিশ্বনাথ নাগের সঙ্গে ফেসবুকে পরিচয় মৌসুমী ভট্টাচার্যের। ভারত কোকিং কোল লিমিটিডের কর্মী বিশ্বনাথের বাড়ি ধানবাদের ঝরিয়া থানা মোড়ে। আর দুর্গাপুরের সিটি সেন্টারে স্বামীর সঙ্গে থাকতেন মৌসুমী। বন্ধুত্ব থেকে শুরু হলেও, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দু'জনের সম্পর্ক ক্রমেই বাড়তে থাকে। একসময়ে যে বন্ধুত্বের পরিণতি হল মৃত্যু। মঙ্গলবার মৌসুমীর দুর্গাপুরের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় বিশ্বনাথের ঝুলন্ত দেহ। পরিকল্পনা করেই দাদাকে খুন করা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে৷

চার বছর ধরে বিসিসিএল-এ কর্মরত ছিলেন বিশ্বনাথ। মৌসুমীর স্বামী শান্তনু ভট্টাচার্য একটি বেসরকারি মোবাইল সংস্থায় চাকরি করতেন। বছর খানেক আগে চাকরি খোয়ান তিনি। এরপরই বিশ্বনাথ মৌসুমীকে আর্থিকভাবে সাহায্য করতেন বলে পুলিশের দাবি। সন্তানের পড়াশোনা থেকে শুরু করে স্কুটি কেনার টাকা, সবই জোগাতেন বিশ্বনাথ।

বিশ্বনাথের বাড়ি ঝাড়খণ্ডের ধানবাদ জেলার ঝরিয়া থানা মোড়ে৷ বিশ্বনাথ বিসিসিএল-এ ৪ বছর চাকরি করছেন৷ মৌসূমীর স্বামী শান্তনু বেসরকারি মোবাইল সংস্থায় কাজ করতেন৷ গত এক বছর ধরে কাজ নেই৷ তার সংসার খরচ চালাতেন বিশ্বনাথই৷ বান্ধবীর বাড়িতে যাতায়াত ছিল৷ মাঝেমধ্যে থেকেও যেতেন সেখানে৷ বাড়ি থেকে অফিসের কাজে যাচ্ছিলেন বলে আসেন৷ শনিবার দুর্গাপুরের বাড়িতে আসেন৷ মঙ্গলবার ওড়না গলায় ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় বিশ্বনাথের৷

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন