বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ ০২:৩৯:২১ এএম

আজ পাড়া-মহল্লা-অলিগলিতে সতর্ক অবস্থানে থাকবে আওয়ামী লীগ!

জাতীয় | বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০১:৩৭:১৫ এএম

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রায় ঘিরে সম্ভাব্য নৈরাজ্য-বিশৃঙ্খলা মোকাবিলায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আজ মাঠে থাকবেন। ভোর থেকেই পাড়া-মহল্লার অলিগলি ও দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেবেন তারা। এরই মধ্যে দলীয় উচ্চপর্যায় থেকে এ রকম নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) নিষেধাজ্ঞা থাকায় বড় ধরনের কোনো জমায়েত করবে না ক্ষমতাসীন দল। বিএনপি নেতারা নাশকতা করার চেষ্টা চালালে অথবা সন্দেহভাজন কাউকে ঘোরাফেরা করতে দেখলে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হবে। তবে কোনো ধরনের উসকানি বা সাংঘর্ষিক পরিস্থিতিতে না জড়াতে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে ঢাকা মহানগরী আওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতা ও দলীয় কাউন্সিলরদের।

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আদালতের রায় ঘিরে বিএনপি রাজধানীসহ সারা দেশে বড় ধরনের নাশকতা করতে পারে— এমন বার্তা আছে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহলের কাছে। জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশকে সহায়তা করতে আজ মাঠে থাকবেন দলটির নেতা-কর্মীরা।

বিএনপি অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা করলে তা দেখবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তবে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় যাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া যায় সেজন্য দলের নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। তারা দলের মহানগরী, থানা ও ওয়ার্ড কার্যালয়ে এবং মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান, রাস্তার মোড় ও পাড়া-মহল্লায় সকাল থেকেই অবস্থান নেবেন।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল মুহাম্মদ ফারুক খান (অব.) বলেন, ‘আমাদের কোনো কর্মসূচি নেই। তবে নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকতে বলেছি। কারণ বিএনপির অতীত ইতিহাস আমাদের জানা আছে। রায়কে কেন্দ্র করে কোনো গোষ্ঠী যাতে নৈরাজ্য-বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

যুবলীগের ১০০ টিম : সন্ত্রাস-নাশকতা প্রতিরোধ ও নৌকার পক্ষে প্রচার-প্রচারণা চালানোর জন্য বেশ কিছু দিন আগেই ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ যুবলীগ ১০০ টিম গঠন করেছে। ইতিমধ্যে তারা প্রচারণাও চালিয়েছে। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে রাজপথে সক্রিয় অবস্থান নেবেন সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। পাড়া-মহল্লা-অলিগলিতে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট বলেন, ‘ঢাকার রাজপথে কাউকে বিশৃঙ্খলা করতে দেব না। বিএনপি নেত্রীর রায় ঘিরে কোনো ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলে সন্ত্রাসীদের পুলিশে সোপর্দ করতে নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যেখানেই সন্ত্রাস-নৈরাজ্য সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে।’ তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমরা ১০০ টিম গঠন করে দিয়েছি।’

এদিকে ঢাকা মহানগরী উত্তর যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও ভোর থেকে রাজপথে সক্রিয় থাকবেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, বিএনপি নৈরাজ্য সৃষ্টি করবে। ঢাকাবাসীকে নিরাপদ রাখতে পুলিশবাহিনীকে সর্বোচ্চ সহায়তা দিতে উত্তর যুবলীগের প্রতিটি ওয়ার্ড, থানার নেতা-কর্মীকে সক্রিয় থাকতে বলা হয়েছে।’

আট পয়েন্টে বিশেষ গুরুত্ব : রাজধানীর আটটি পয়েন্টকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে বকশীবাজারের বিশেষ আদালতপাড়ায়। ওই আদালতেই খালেদা জিয়ার রায় ঘোষণা করা হবে। আদালতপাড়ায় আওয়ামী আইনজীবীদের সর্বোচ্চ উপস্থিতি নিশ্চিত করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

কারণ রায় ঘিরে বিএনপি বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে পারে। আবার আদালতে হট্টগোল করারও আশঙ্কা করছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা। এ ছাড়া ঢাকা মেডিকেল, নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার, শাহবাগ, বাংলামোটর, হাই কোর্ট, প্রেস ক্লাব, মত্স্য ভবন ও ফার্মগেট— এসব স্থানে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি বেশি থাকবে বলে জানা গেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও শাহবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল হামিদ বলেন, ‘মহানগরীর শীর্ষ নেতারা শাহবাগ, বাংলামোটর, হাই কোর্ট এলাকায় সর্বোচ্চ উপস্থিতি নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়েছেন। ভোর থেকে আমরা সে অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করব।’

ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ আশপাশ এলাকায় রায় ঘিরে কোনো ধরনের নৈরাজ্য মেনে নেওয়া হবে না। আমরা রাজপথে থেকে পুলিশ প্রশাসনকে সহায়তা করব।’ যে কোনো ধরনের নৈরাজ্য প্রতিহত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে ঢাকা মহানগরী উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ।

বর্ধিত সভা ডেকে তারা প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়েছেন নেতা-কর্মীদের। এ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ বলেন, ‘আমাদের কর্মসূচি নেই। তবে রাজপথে সক্রিয় ও সতর্ক থাকার নির্দেশনা আছে। সে অনুযায়ী ওয়ার্ড ও থানার নেতা-কর্মীরা প্রস্তুত রয়েছেন।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন