বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৩:৫১:১৩ এএম

ঢাকাসহ সারা দেশে গণগ্রেফতার

জাতীয় | বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০১:৫৪:২০ এএম

ঢাকাসহ সারা দেশে চলছে গণগ্রেফতার। সেই সঙ্গে বিএনপি জোটের নেতা-কর্মীদের বাসায় বাসায় চলছে তল্লাশিও। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, যুবদল ঢাকা উত্তর শাখার সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীরসহ বেশ কয়েকজন নেতার বাসায় তল্লাশির খবর পাওয়া গেছে।

বিকালে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ব্যক্তিগত সহকারী ইউনুস আলীকে ডিবি পুলিশ আটক করে সন্ধ্যায় ছেড়ে দেয়। এ নিয়ে গতকাল রাতে সংবাদ সম্মেলনে করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। তিনি জানান, ঢাকাসহ সারা দেশে ব্যাপক ধরপাকড় চলছে। দেশকে সরকার কারাগারে পরিণত করেছে। ঢাকাসহ সারা দেশে এ পর্যন্ত প্রায় ৩৩০০ নেতা-কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে আদালত সূত্র জানিয়েছে, রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে ৩২৮ জন নিয়মিত মামলায়, অনিয়মিত মামলায় ৬০ জন গ্রেফতার। বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে ৬৬ আসামি। এদিকে দুর্নীতির মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার রায় ঘোষণাকে সামনে রেখে পুলিশের ব্যাপক কড়াকড়িতে নয়াপল্টনের বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় একেবারেই নেতা-কর্মীশূন্য হয়ে পড়ে। গত কয়েকদিন ধরেই বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহদফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ ও নির্বাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপক আমিনুল ইসলামকে দেখা গেছে।

কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাশাপাশি ঢাকা মহানগরের কার্যালয়টিও রয়েছে বন্ধ; গেটে তালা ঝুলছে। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাঁচতলা ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় বিএনপির কার্যালয় এবং অন্যান্য তলায় যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদল, মহিলা দল, জাসাসের অফিস রয়েছে। সেগুলোও বন্ধ। গতকাল কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ব্যাপক সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সদস্যদের তত্পর দেখা যায়। পোশাকি পুলিশ দেখা যায় ভিক্টোরিয়া হোটেলের সামনে। কিছুক্ষণ পর পর তাদের কার্যালয়ের সামনে টহল দিতে দেখা যায়।

ভবনের প্রধান ফটকের কলাপসিবল গেটও বন্ধ করে রেখে দেয় বিএনপি। ভিতর দিয়ে তালা লাগিয়ে নিরাপত্তা কর্মীদের ডিউটি করতে দেখা গেছে। এ প্রসঙ্গে অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের বলেন, ‘কঠিন অবস্থার মধ্যে আমাদের দিন অতিক্রান্ত করতে হচ্ছে। দেখতেই পারছেন নেতা-কর্মীরা আসতে পারছেন না গ্রেফতার আতঙ্কে, নির্যাতনের ভয়ে। এক কালো অন্ধকারের ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে সরকার।’

এদিকে ঢাকার বাইরে গণগ্রেফতার সম্পর্কে প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর অনুযায়ী গতকাল কুমিল্লায় বিএনপি-জামায়াতের ৭৯, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিএনপির ৫৪, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১১, ঝিনাইদহে বিএনপি ও জামায়াতের ৪৬ জন নেতা-কর্মীসহ ৭৯, জয়পুরহাটে বিএনপি-শিবিরের ২০, কুড়িগ্রামে বিএনপি-জামায়াতের ২৩, সাতক্ষীরায় বিএনপি ও জামায়াতের ৩৪ নেতা-কর্মীসহ ৬৮, সিরাজগঞ্জে বিএনপি-শিবিরের ১২, চাঁদপুরে বিএনপি-জামায়াতের ২৯, সৈয়দপুরে ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকসহ ৩, বদরগঞ্জে (রংপুর) দুই জামায়াতের ২, কালকিনিতে (মাদারীপুর) বিএনপির ৫, মঠবাড়িয়ায় (পিরোজপুর) বিএনপির ২

বাগেরহাটে বিএনপির ১০ নেতা-কর্মীসহ ৫০, টাঙ্গাইলে বিএনপি নেতাসহ ৪৫, দিনাজপুরে বিএনপি-জামায়াতের ১৪ জন নেতা-কর্মীসহ ৫২, খাগড়াছড়িতে বিএনপির ৬, রাজশাহীতে বিএনপি, ছাত্রদল ও ছাত্রশিবিরের ৪১, মুন্সীগঞ্জে তিন দিনে বিএনপির ১৭, নরসিংদীতে যুবদলের সভাপতিসহ ৩০, পিরোজপুরে বিএনপির ১২, ঝালকাঠিতে বিএনপি ও শিবিরের ৩, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বিএনপির ৭, কুড়িগ্রামে বিএনপি ও জামায়াতের ২৪, টাঙ্গাইলের সখিপুরে ১, নোয়াখালীতে বিএনপি-জামায়াতের ৫০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিডি প্রতিদিন

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন