শনিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৮ ০৫:২৯:১১ পিএম

ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না : ফখরুল

জাতীয় | শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০১:১৮:৫৫ এএম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দেওয়া কারাদণ্ডের রায় জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে।

তিনি বলেন, অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার রাজনীতি ও আসন্ন নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য ভুয়া ও মিথ্যা মামলা তৈরি করে খালেদা জিয়াকে হেয় প্রতিপন্ন করতে এই সাজা দিয়েছে। এমন অন্যায় কাজের জন্য ইতিহাস কখনো তাদের ক্ষমা করবে না। এ রায় দেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট আরও ঘনীভূত করবে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় ঘোষণাসহ বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠানোর পর বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

এ সময় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী; ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল রুহুল আলম চৌধুরী (অব.); সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, যুগ্মমহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, অবৈধ সরকার আদালতের ওপর ভর করে তাদের নিকৃষ্টতম হীনরাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করল। বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা যিনি দীর্ঘ নয় বছর গণতন্ত্রের পক্ষে, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন, লড়াই করেছেন এবং জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে তিনবার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন, দুবার বিরোধীদলীয় নেতা হয়েছেন এবং বহুদলীয় সংসদীয় গণতন্ত্র প্রবর্তন করেছেন— সেই জনপ্রিয় নেতাকে এই গণবিচ্ছিন্ন অবৈধ সরকার রাজনীতি ও আসন্ন নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য ভুয়া ও মিথ্যা মামলা দায়ের করে এবং তার জাল নথি তৈরি করে তাকে সাজা দিয়েছে; যা এ দেশের জনগণ কোনো দিনই গ্রহণ করবে না। এরই মধ্যে তা প্রত্যাখ্যান করেছে জনগণ। আমরা অত্যন্ত ঘৃণার সঙ্গে এ রায় প্রত্যাখ্যান করছি।

তিনি জানান, গত কয়েক দিনে সারা দেশে বিএনপির হাজার হাজার নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে খালেদা জিয়া কোনো ধরনের সহিংস আন্দোলনে না যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন।

রবিবার আপিল : সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, জাল কাগজ দিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে। রায়ে অন্যদের অপরাধের বিষয়ে উল্লেখ করা হলেও বেগম জিয়ার অপরাধের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। ৪০৯ ধারায় এমন শাস্তি হতে পারে না। রায়ের কপি হাতে পেলে আগামী রবিবার বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন করা হবে।

মওদুদ আরও বলেন, এটি একটি ফৌজদারি মামলা হলেও তা রাজনৈতিক মামলা হিসেবে পরিচালিত হয়েছে। তাই মামলার রায় আইনসংগত হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, বেগম জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কিনা, তা আদালত সিদ্ধান্ত নেবে। তবে জামিনের পর বেগম জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন